কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


মিস্টার ক্রাইসিস ম্যান



 কিশোরগঞ্জ নিউজ রিপোর্ট | ২ জানুয়ারি ২০২২, রবিবার, ১১:৫০ | বিশেষ সংবাদ 



বাংলাদেশের শুদ্ধ রাজনীতির আইকন সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম। মুক্তিযুদ্ধকালীন বাংলাদেশ সরকারের অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলামের সন্তান চার ছেলে ও দুই মেয়ের মধ্যে সবার বড় ছিলেন সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম। ছিলেন রাজনীতির এক অনন্য কবি। তাঁর কবিতার কারুকার্যে আজো মোহিত বাংলাদেশ।

সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের সবচেয়ে বড় পরিচয় তিনি একজন গেরিলা মুক্তিযোদ্ধা। রাষ্ট্রপতির ছেলে হয়েও রণাঙ্গনে যুদ্ধ করেছেন। যুদ্ধকালীন রাষ্ট্রপতির ছেলে হয়েও শুকনো রুটি খেয়েছেন, স্টেনগান হাতে মাটিতে বুকে ভর দিয়ে যুদ্ধ করেছেন।

ভারতীয় জেনারেল উবান স্বাধীনতা যুদ্ধ নিয়ে তার বইয়ে যে সাদামাটা, শান্ত আর বুদ্ধিদীপ্ত তরুণ যোদ্ধা আশরাফের কথা বলেছিলেন, তিনিই বাংলাদেশের সৈয়দ আশরাফ।

থাইল্যান্ডের বামরুনগ্রাদ হাসপাতালে ছয় মাস চিকিৎসাধীন থাকার পর ২০১৯ সালের ৩ জানুয়ারি রাত সাড়ে ৯টার দিকে সৈয়দ আশরাফ পাড়ি জমান না ফেরার দেশে। এর আগে তাঁর শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে ২০১৮ সালের ৩ জুলাই তাঁকে সেখানে ভর্তি করা হয়।

কিশোরগঞ্জ সদর আসনের টানা পাঁচবারের নির্বাচিত সংসদ সদস্য, আওয়ামী লীগের দুই বারের সাবেক সফল সাধারণ সম্পাদক, সাবেক এলজিআরডি ও জনপ্রশাসন মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের মৃত্যুতে আজো কাঁদে কিশোরগঞ্জ, কাঁদে বাংলাদেশ।

আওয়ামী লীগের চরম বিরুদ্ধবাদীরাও বলছেন, এ এক অপূরণীয় মৃত্যু। দলের ভেতরে-বাইরে জনপ্রিয়তা ঈর্ষণীয় এমন রাজনীতিবিদ কোন দলেই সাম্প্রতিককালে দেখা যায়নি। সৈয়দ আশরাফের এই কারিশমার রহস্য আজো অজানাই রয়ে গেছে, যা তাঁকে অনন্য উচ্চতায় নিয়ে গেছে। শারীরিক মৃত্যু সেখানে একেবারেই তুচ্ছ।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান পাকিস্তানের কারাগারে বন্দি থাকায় মুক্তিযুদ্ধকালীন বাংলাদেশ সরকারে বঙ্গবন্ধুর শূন্যতা পূরণ করেছিলেন সৈয়দ নজরুল ইসলাম। এক-এগারোতে সেনা সমর্থিত সরকার আজকের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে গ্রেপ্তার করলে সৈয়দ আশরাফ উনার শূন্যতা পূরণ করেছিলেন। রাজনীতিতে দুই প্রজন্মে এমন অকৃত্রিম বন্ধু পাওয়ার মতো সৌভাগ্য কেবল আওয়ামী লীগেরই হয়েছে।

স্বাধীন বাংলাদেশ সরকারের অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম একজন নির্লোভ, দেশপ্রেমিক ও আত্মত্যাগী নেতা হিসেবে আমৃত্যু জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বিশ্বস্ত স্বজন ছিলেন। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট পরিবার-পরিজনসহ বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের পর ক্ষমতাসীন খুনি মোশতাক চক্রের প্রতি আনুগত্য প্রকাশ না করায় তাঁকে কারাজীবন বেছে নিতে হয়। আরো তিন জন সতীর্থের সঙ্গে জেলহত্যাকাণ্ডে নৃশংসতার শিকার হয়ে জীবন দিতে হয়।

যোগ্য পিতার যোগ্য সন্তান হিসেবে যুক্তরাজ্যের মূলধারার রাজনীতিতে জায়গা করে নেওয়া সাবেক ছাত্রলীগ নেতা সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার ডাকে বাংলাদেশে আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে ফিরে এসেছিলেন।

দেশে ফেরার পর অংশ নিয়েছিলেন ১৯৯৬ সালের ১২ জুন অনুষ্ঠিত সপ্তম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে। ১৯৯১ সালে বিএনপির কাছে হারানো কিশোরগঞ্জ সদর (তৎকালীন কিশোরগঞ্জ-৩) আসনটি ১৯৯৬ সালের ১২ জুনের নির্বাচনে পুনরুদ্ধারের মাধ্যমে রাজনীতিতে অবিস্মরণীয় প্রত্যাবর্তন হয় সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের।

এই প্রত্যাবর্তনের পর একজন ভদ্র, বিনয়ী ও অজাতশত্রু রাজনীতিবিদ হিসেবে দলের সবার শ্রদ্ধা ও স্নেহ কুড়াতে বেশি সময় নেননি সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম। ২০০১ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের চরম ভরাডুবি ঘটলেও সৈয়দ আশরাফ বিপুল ভোটে বিজয়ী হয়ে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

২০০২ সালে অনুষ্ঠিত আওয়ামী লীগের ১৭তম জাতীয় কাউন্সিলে তিনি কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। এক-এগারোতে সেনা সমর্থিত সরকার রাজনীতি থেকে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনাকে মাইনাস করার নীল-নকশা নিয়ে যখন এগোচ্ছিল, বয়সের ভারে ন্যূব্জ ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জিল্লুর রহমান একা সব কিছু সামাল দিয়ে পেরে উঠছিলেন না।

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক আবদুল জলিল কারাগারে থাকায় ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব নেন ‘মিস্টার ক্রাইসিস ম্যান’ খ্যাত সৈয়দ আশরাফ। সেই ক্রান্তিলগ্নে দৃঢ়চিত্ত আর রাজনৈতিক প্রজ্ঞায় আওয়ামী লীগকে নিশ্চিহ্ন হওয়া থেকে উদ্ধার করে শেখ হাসিনাকে মুক্ত ও আওয়ামী লীগকে মতায় ফিরিয়ে আনতে অবিস্মরণীয় অবদান রাখেন সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম।

দল ক্ষমতায় আসার পর ২০০৯ সালের ২৪ জুলাই অনুষ্ঠিত আওয়ামী লীগের ১৮তম জাতীয় কাউন্সিলে তিনি সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। ২০১২ সালের ২৯ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত আওয়ামী লীগের ১৯তম জাতীয় কাউন্সিলে পুনরায় সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম।

২০১৬ সালে অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ২০তম কাউন্সিলে তিনি জায়গা পান প্রেসিডিয়ামে। তখন আরেক দফা তাঁর প্রতি নেতাকর্মীদের আবেগ অনুভূতি ও সমর্থন দৃশ্যমান হয়। তুমুল জনপ্রিয়তা নিয়ে দলের সাধারণ সম্পাদক পদ থেকে বিদায় নিয়েছিলেন তিনি।

দলের সাধারণ সম্পাদক থাকাকালে তিনি কখনও কোন গণমাধ্যমকে সাাৎকার দেননি। রোজ প্রেসবিফ্রিং করেননি। কিন্তু যখন যেটি প্রয়োজন সেটি সময়মতো ইতিবাচকভাবে বলতে ভুল করেননি। অতিকথন, মতার দম্ভ যেমন তাকে স্পর্শ করেনি তেমনি গণমাধ্যমের সমালোচনায় ব্যক্তিগত আক্রোশ পোষেননি।

একজন উদার পশ্চিমা গণতান্ত্রিক রাজনীতিবিদের মতোই তিনি নীরবে নিভৃতে পথ হেঁটেছেন। আমৃত্যু সেই পথ থেকে তিনি কখনও বিচ্যুত হননি। তদবিরবাজ, মতলববাজ, সুবিধাবাদীরা যেমন তাঁর কাছে ভিড়তে পারেননি তেমনি দুর্নীতি, স্বজনপ্রীতি, মতার অপব্যবহারে ন্যূনতম কলঙ্কের ছিটেফোটাও তাঁর গায়ে লাগেনি।

২০তম জাতীয় সম্মেলনে সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম বলেছিলেন, ‘আমি আওয়ামী লীগের সন্তান। আওয়ামী লীগের ঘরেই আমার জন্ম। আওয়ামী লীগ যখন ব্যথা পায়, আমার হৃদয়েও ব্যথা লাগে। আওয়ামী লীগের একটা কর্মী যদি ব্যথা পায়, সেই ব্যথা আমিও পাই।’

তাঁর এমন কালজয়ী বক্তব্য আজো মানুষকে সমানভাবে আলোড়িত করে। তিনি বাংলাদেশের মানুষকে বোঝাতে সম হয়েছিলেন যে, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ বাংলাদেশের অনুভূতি। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের বিভিন্ন স্তরের নেতারা তাঁকে চেনেন একজন নির্লোভ, নীতিবান এবং বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের আর্দশে গড়া একজন স্বল্পভাষী তবে লক্ষ্যে অটুট নেতা হিসেবে।


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর