কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জে নতুন ২৩ জনের করোনা, সদরে ১১, ভৈরবে ৭, আরো একজনের মৃত্যু


 কিশোরগঞ্জ নিউজ রিপোর্ট | ৩০ জুলাই ২০২০, বৃহস্পতিবার, ১০:৩৩ | বিশেষ সংবাদ 


কিশোরগঞ্জে করোনাভাইরাস ভাইরাস পরিস্থিতি সুস্থতার বিবেচনায় কিছুটা উন্নতির দিকে রয়েছে। জেলায় সুস্থতার হার শতকরা ৮৭.৩১ ভাগ। থেমে নেই নতুন সংক্রমণও। এরই মাঝে করোনাভাইরাস কোভিড-১৯ নামক অদৃশ্য এই ভাইরাস কেড়ে নিয়েছে ৩৭টি মূল্যবান প্রাণ।

সর্বশেষ বৃহস্পতিবার (৩০ জুলাই) দিবাগত রাতে মোট ১৮৪ জনের নমুনা পরীক্ষার রিপোর্ট প্রকাশিত হয়েছে। প্রকাশিত এই নমুনা পরীক্ষার রিপোর্টে জেলায় নতুন করে মোট ২৩ জনের করোনাভাইরাস কোভিড-১৯ পজেটিভ শনাক্ত হয়েছে।

অন্যদিকে ১৬০ জনের নেগেটিভ এসেছে। এছাড়া পুরাতন পজেটিভ একজনের আবারও পজেটিভ এসেছে।

এ নিয়ে জেলার ১৩টি উপজেলায় মোট ২০১৮ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। তাদের মধ্যে ১৭৬২ জন সুস্থ হয়েছেন।

সুস্থ ও মৃত ব্যক্তিদের বাদ দিয়ে বর্তমানে জেলায় করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ২১৯ জন।

এছাড়া করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে নতুন করে আরো একজনের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে। তিনি কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার বাসিন্দা। তাঁর নাম অধ্যক্ষ মাওলানা মো. রফিকুল ইসলাম (৫২)।

অধ্যক্ষ মাওলানা মো. রফিকুল ইসলাম বুধবার (২৯ জুলাই) দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে কিশোরগঞ্জের শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। তিনি ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলার জাহাঙ্গীপুর সিনিয়র আলিম মাদরাসার অধ্যক্ষ ছিলেন।

নতুন করোনা শনাক্ত হওয়া ২৩ জনের মধ্যে ১১ জন কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায়। এছাড়া বাকি ১২ জনের মধ্যে ভৈরব উপজেলায় ৭ জন, কটিয়াদী উপজেলায় ২ জন, নিকলী উপজেলায় ২ জন এবং হোসেনপুর উপজেলায় ১ জন রয়েছেন।

এছাড়া জেলায় নতুন করে আরো ১৭ জন সুস্থ হয়েছেন।

নতুন সুস্থ হওয়া এই ১৭ জনের মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার সর্বোচ্চ ৭ জন রয়েছেন। বাকি ১০ জনের মধ্যে পাকুন্দিয়া উপজেলার ৪ জন, কটিয়াদী উপজেলার ১ জন এবং বাজিতপুর উপজেলার ৫ জন রয়েছেন।

এনিয়ে জেলায় মোট ১৭৬২ জন করোনাভাইরাস মুক্ত হয়ে সুস্থ হয়েছেন। অন্যদিকে জেলায় মোট ৩৭ জন করোনাভাইরাস আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন।

সুস্থ ও মৃত ব্যক্তিদের বাদ দিয়ে বর্তমানে জেলায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ২১৯ জনের মধ্যে ২৫ জন হাসপাতালে এবং বাকি ১৯৪ জন নিজ নিজ বাড়িতে হোম আইসোলেশনে রয়েছেন।

হাসপাতালে থাকা ২৫ জনের মধ্যে তিনজন শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আইসিইউতে ভর্তি রয়েছেন।

এছাড়া অন্য জেলায় শনাক্তকৃত ১ জন করোনা পজেটিভ এবং ২ জন সাসপেক্টটেড/নেগেটিভ বিভিন্ন হাসপাতাল ও নিজ বাড়িতে আইসোলেশনে রয়েছেন।

শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের প্রি-আইসোলেশন ওয়ার্ডে ভর্তিকৃত জরুরী রোগীসহ সোমবার (২৭ জুলাই), মঙ্গলবার (২৮ জুলাই), বুধবার (২৯ জুলাই) ও বৃহস্পতিবার (৩০ জুলাই) সংগৃহীত ১৮৪ জনের নমুনা কিশোরগঞ্জের শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পিসিআর ল্যাবে পরীক্ষা করা হয়।

ল্যাবটিতে মোট ১৮৪ জনের নমুনা পরীক্ষা করে নতুন করে ২৩ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে।

বুধবার (২৯ জুলাই) পর্যন্ত কিশোরগঞ্জ জেলায় করোনা শনাক্তের সংখ্যা ছিল ১৯৯৫ জন। বৃহস্পতিবার (৩০ জুলাই) নতুন করে আরো ২৩ জনের করোনা শনাক্ত হওয়ায় বর্তমানে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২০১৮ জনে।

এদিকে জেলায় করোনাভাইরাস থেকে নতুন করে ১৭ জন সুস্থ হয়েছেন। এর আগে জেলায় সুস্থ হওয়ার সংখ্যা ছিল ১৭৪৫ জন। ফলে সুস্থ হওয়ার সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৭৬২ জন।

বৃহস্পতিবার (৩০ জুলাই) দিবাগত রাত ১০টার দিকে কিশোরগঞ্জের সিভিল সার্জন ডা. মো. মুজিবুর রহমান কিশোরগঞ্জ নিউজকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

সিভিল সার্জন ডা. মো. মুজিবুর রহমান কিশোরগঞ্জ নিউজকে জানান, প্রকাশিত ১৮৪ জনের নমুনা পরীক্ষার রিপোর্টে নতুন করে ২৩ জনের পজেটিভ ও ১৬০ জনের নেগেটিভ এসেছে। এছাড়া পুরাতন পজেটিভ একজনের আবারও পজেটিভ এসেছে।

ফলে বৃহস্পতিবার (৩০ জুলাই) পর্যন্ত পাওয়া নমুনা পরীক্ষার রিপোর্ট অনুযায়ী কিশোরগঞ্জ জেলায় মোট ২০১৮ জনের করোনাভাইরাস কোভিড-১৯ পজেটিভ এসেছে।

উপজেলাওয়ারী হিসাবে, কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় ৫৮০ জন, হোসেনপুর উপজেলায় ৫০ জন, করিমগঞ্জ উপজেলায় ১২০ জন, তাড়াইল উপজেলায় ৮৫ জন, পাকুন্দিয়ায় উপজেলায় ১০৯ জন, কটিয়াদী উপজেলায় ১১৮ জন, কুলিয়ারচর উপজেলায় ১০৮ জন, ভৈরব উপজেলায় ৫৬২ জন, নিকলী উপজেলায় ৪১ জন, বাজিতপুর উপজেলায় ১৬২ জন, ইটনা উপজেলায় ৩২ জন, মিঠামইন উপজেলায় ৩৮ জন ও অষ্টগ্রাম উপজেলায় ১৩ জন এ পর্যন্ত করোনাভাইরাস কোভিড-১৯ পজেটিভ শনাক্ত হয়েছেন।

তাদের মধ্যে ৩৭ জন মৃত ব্যক্তি রয়েছেন। উপজেলাওয়ারী হিসেবে, কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার ৮ জন, হোসেনপুর উপজেলার ১ জন, করিমগঞ্জ উপজেলার ২ জন, তাড়াইল উপজেলার ১ জন, কটিয়াদী উপজেলার ১ জন, কুলিয়ারচর উপজেলার ৩ জন, ভৈরব উপজেলার ১৪ জন, নিকলী উপজেলার ৩ জন, বাজিতপুর উপজেলার ২ জন, ইটনা উপজেলার ১ জন ও মিঠামইন উপজেলার ১ জন মৃত ব্যক্তি রয়েছেন।

সুস্থ ও মৃত ব্যক্তিদের বাদ দিয়ে বর্তমানে জেলায় করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ২১৯ জন। উপজেলাওয়ারী হিসাবে, কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় ১১২ জন, হোসেনপুর উপজেলায় ৯ জন, করিমগঞ্জ উপজেলায় ৯ জন, তাড়াইল উপজেলায় ৪ জন, পাকুন্দিয়ায় উপজেলায় ১২ জন, কটিয়াদী উপজেলায় ১৩ জন, কুলিয়ারচর উপজেলায় ৩ জন, ভৈরব উপজেলায় ৪৩ জন, নিকলী উপজেলায় ৯ জন, বাজিতপুর উপজেলায় ৩ জন, ইটনা উপজেলায় ১ জন ও অষ্টগ্রাম উপজেলায় ১ জন বর্তমানে করোনাভাইরাস আক্রান্ত ব্যক্তি রয়েছেন।

জেলার ১৩ টি উপজেলার মধ্যে একমাত্র মিঠামইন উপজেলায় বর্তমানে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত কোন রোগী নেই।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর