কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ভৈরবে তরমুজের কেজি ৬০-৭০ টাকা


 আফসার হোসেন তূর্জা, ভৈরব | ২৮ এপ্রিল ২০২১, বুধবার, ১২:২৯ | ভৈরব 



রমজান আর বৈশাখের খরতাপকে কেন্দ্র করে কিশোরগঞ্জের ভৈরবে তরমুজের বাজারে যেন আগুন লেগেছে। এ আগুনে নিম্ন মধ্যবিত্ত তো দূরের কথা, মধ্যবিত্তরাই পুড়ে ছারখার। অথচ দেশজুড়ে চলমান তীব্র দাবদাহে ইফতারের প্রধান উপকরণ হওয়ার কথা তরমুজ।

পুষ্টিগুণে সমৃদ্ধ তরমুজ এখন ভৈরব শহরে কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। এই সুযোগে বিক্রেতাদের মুনাফা চরমে।

চলতি সপ্তাহে খুচরা বাজারে এক কেজি ওজনের তরমুজ ৬০ থেকে ৭০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। এতে ১০ কেজির একটি তরমুজের জন্য ক্রেতার গুণতে হচ্ছে ৬০০ থেকে ৭০০ টাকা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ভৈরব উপজেলায় খুচরা ফল ব্যবসায়ীরা আড়তদারদের কাছ থেকে ৮ থেকে ১০ কেজি ওজনের প্রতি লট তরমুজ ৩৮ থেকে ৪২ হাজার টাকা দরে কিনে আনছে। এতে প্রতি পিস তরমুজের দাম পড়ছে ৩৮০ থেকে ৪২০ টাকা।

কিন্তু সেই তরমুজ ব্যবসায়ীরা বিক্রি করছেন ৬০-৭০ টাকা দরে। যা ১০ কেজি ওজনের প্রতি পিস তরমুজের দাম পড়ছে ৬০০ থেকে ৭০০ টাকা।

এতে খুচরা ব্যবসায়ীরা লাভবান হলেও সাধারণ জনগণের ক্রয়ক্ষমতার বাইরে চলে যাচ্ছে।

ভৈরব পৌর শহরের বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা গেছে, ছোট সাইজের খুচরা এক কেজি তরমুজের দাম ৫৫ থেকে ৬০ টাকা। ভালো মানের তরমুজ বিক্রি হচ্ছে ৬৫-৭০ টাকায়। ১০ কেজির একটি তরমুজের জন্য ক্রেতাকে গুণতে হচ্ছে ৬৫০ থেকে ৭০০ টাকা।

তরমুজের আড়তদারদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, এবার তরমুজের ভালো ফলন না হওয়াতে বাজারে তরমুজের সংখ্যা কম। তারা দেশের বিভিন্ন তরমুজের বড় বড় হাট থেকে শ’ হিসেবে তরমুজ কিনে আনেন।

তারা ৮ থেকে ১০ কেজি ওজনের তরমুজ শ’ হিসেবে কিনেন ৩৫ থেকে ৪০ হাজার টাকা দরে। আর খুচরা ব্যবসায়ীদের কাছে বিক্রি করছেন ৩৬ থেকে ৪২ হাজার টাকা দরে। এতে প্রতি পিস তরমুজের দাম পড়ছে ৩৬০ থেকে ৪২০ টাকা।

খুচরা ব্যবসায়ীরা সে তরমুজ ৬০ থেকে ৭০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করায় দাম পড়ছে ৬০০ থেকে ৭০০ টাকা।

ভৈরব উপজেলার বাসস্ট্যান্ডে প্রায় ১৯টির মত আড়ত রয়েছে। উপজেলার অধিকাংশ তরমুজ এখানকার আড়ত থেকে সরবারহ হয়। তবে কোন আড়তদার পাইকারদের কাছে কেজি হিসেবে তরমুজ বিক্রি করে না।

তারা পিস হিসেবে তরমুজ বিক্রি করেন। খুচরা ব্যবসায়ীরা সিন্ডিকেট করে কেজি হিসেবে চড়া দরে এসব তরমুজ ক্রেতাদের কাছে বিক্রি করছেন।

শাহাজালাল ফলের আড়ত ও ভৈরব ফল ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক রাকিব রায়হান জানান, এ বছর তরমুজের ফলন ভালো হয়নি, তাই তরমুজের দাম একটু বেশি। আমরা ৮ থেকে ১০ কেজি ওজনের সাইজের তরমুজ ৩৬ থেকে ৪০ হাজার টাকা ধরে লট কিনে আনি। যে দরে ক্রয় করে আনছি তার থেকে সামান্য কিছু লাভ রেখে বিক্রি করছি। আমরা কেজি দরে বিক্রি করছি না।

এছাড়া গাজী ফল ভান্ডার এর মালিক জানান, আমরা আড়তদার থেকে লট হিসেবে তরমুজ কিনি। প্রতি লটে ছোট বড় মিলে ১০০টি তরমুজ থাকে যা গড় হিসেবে প্রতি তরমুজের দাম পড়ে ৩৮০ থেকে ৪২০ টাকা।

যদি কোনো ক্রেতা কেজি চায় তাহলে কেজি দরে বিক্রি করি আর যদি কেউ চুক্তি দাম করে তাহলে তার সাইজ বুঝে দাম করে বিক্রি করা হয়। কেজি আর চুক্তি একই দাম পড়ে তরমুজের।

ভৈরব পৌর শহরের পৌরসভার রোড থেকে তরমুজ কিনতে আসা সালাম মিয়া বলেন, ৮ কেজি ওজনের একটি তরমুজ অনেক দামাদামি করে ৬৫ টাকা কেজি দরে ৫২০ টাকায় কিনলাম। তরমুজের খুব দাম। এ বছর আর তরমুজ খামু না।

এছাড়া বড়তলা রোড থেকে তরমুজ কিনতে আসা আসমা বেগম নামে এক মহিলা ক্রেতা জানান, প্রায় ৬ কেজি ওজনের একটা তরমুজ দাম করলাম। ৬০ টাকা কেজি ধরে তরমুজের দাম আসে ৩৫০ টাকার। যা কেজি দরে বিক্রির আগে ২০০ থেকে ২৫০ টাকার মধ্যে কিনা যেত।

ভৈরব উপজেলার সাধারণ মানুষ মনে করেন, কেজি দরে বিক্রির কারণেই এমন দাম উঠেছে। এতো ভারী একটি ফল ছোট পরিবারের জন্য কিনতে গেলেও ৫ কেজির নিচে হয় না।

এমন পরিস্থিতিতে দেশের জনপ্রিয় সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম ফেসবুকে অনেকে ক্ষোভ ঝাড়ছেন। পরিবারের জন্য প্রিয় ফলটি না কিনতে পেরে হতাশায় ভুগছেন। মৌসুমি এই ফলটির পুষ্টিগুণ থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন।

অনেকে কেজি দরে তরমুজ বিক্রিকে ভোক্তাদের সঙ্গে বড় রকমের প্রতারণা বলে আখ্যায়িত করছেন। কেজি দরে তরমুজ কিনতে চাচ্ছেন না তারা। কেউ কেউ তরমুজ বয়কটের শ্লোগান দিচ্ছেন।

সাধারণ মানুষ যেন এই মৌসুমি ফলটি কিনে খেতে পারে তার জন্য তারা প্রশাসনের কাছে বাজার মনিটরিং করার জন্য অনুরোধ জানান।


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর