কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


যুক্তরাষ্ট্রের সিনেটর নির্বাচনে জিতে ইতিহাস গড়লেন কিশোরগঞ্জের চন্দন


 স্টাফ রিপোর্টার | ২৩ মে ২০১৮, বুধবার, ৩:০০ | প্রবাস 


যুক্তরাষ্ট্রের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্য জর্জিয়ার ডিসট্রিক্ট-৫ প্রাইমারি নির্বাচনে বিজয়ী হয়েছেন মূলধারার রাজনীতিবিদ বাংলাদেশি-আমেরিকান শেখ মুজাহিদুর রহমান চন্দন। মঙ্গলবার (২২ মে) এই আসনে গুইনেট কাউন্টির নরক্রস, লিলবার্ন ও লরেন্সভিল শহরের ভোটারদের অংশগ্রহণে সরাসরি এ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়।

নির্বাচনে শেখ মুজাহিদুর রহমান চন্দন পান শতকরা ৬৮ ভাগ ভোট। তাঁর বিপরীতে কার্ট থম্পসন পান শতকরা ৩২ ভাগ ভোট। ভোটসংখ্যার হিসাবে শেখ মুজাহিদুর রহমান চন্দনের প্রাপ্ত ভোটের সংখ্যা চার হাজার দুই। অন্যদিকে কার্ট থম্পসন পেয়েছেন এক হাজার ৮শ’ ৮৫ ভোট।

নির্বাচনে এই বিজয়ের ফলে শেখ মুজাহিদুর রহমান চন্দন নভেম্বরে অনুষ্ঠিতব্য সিনেটর পদে ডেমোক্র্যাটিক পার্টির মনোনয়ন লাভ করেছেন। তবে জাতীয় নির্বাচনে রিপাবলিকান পার্টি সিনেটর নির্বাচনে জর্জিয়ার নির্বাচনী এলাকা ডিসট্রিক্ট-৫ এ কোন পার্থী দেয় না। স্বভাবতই এটা অনেকটা নিশ্চিতভাবে ধরে নেওয়া যায় যে, শেখ মুজাহিদুর রহমান চন্দন ওরফে শেখ রহমান এ আসনে বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় সিনেটর নির্বাচিত হচ্ছেন।

শেখ মুজাহিদুর রহমান চন্দন সিনেটর নির্বাচিত হলে তিনিই হবেন জর্জিয়া স্টেট সিনেট নামের এ রাজ্যের আইন প্রণয়নকারী প্রতিনিধি পরিষদের প্রথম বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত নাগরিক।

স্ত্রী, এক কন্যা ও এক পুত্র নিয়ে আটলান্টায় বসবাসকারী শেখ মুজাহিদুর রহমান চন্দনের বাড়ি বাংলাদেশের কিশোরগঞ্জে। তাঁর আদি পুরুষের বাস কিশোরগঞ্জের বাজিতপুর উপজেলার সরারচরে। রেলওয়ের নিরাপত্তা বাহিনীর কমান্ডার বাবার চাকরির সুবাদে তাঁর ছোটবেলা কাটে ঢাকায়। তাঁর বাবা শেখ নজিবর রহমান মুক্তিযোদ্ধা ও আগরতলা জয়বাংলা যুবশিবিরের সুপারভাইজার ছিলেন।

শেখ মুজাহিদুর রহমান চন্দন আশির দশকে যুক্তরাষ্ট্রে পাড়ি জমান। এরপর তিনি নর্থ ক্যারোলিনায় ইউনিভার্সিটি অব জর্জিয়া থেকে এমবিএ করেন। শেখ মুজাহিদুর রহমান চন্দন গত বছর ডেমোক্র্যাটিক পার্টির সম্মেলনে জাতীয় কমিটিতে প্রথম বাংলাদেশি কার্যকরী সদস্য নির্বাচিত হন। মূলধারার রাজনীতিতে অনেকের কাছেই অনায়াসে গ্রহণযোগ্য নেতা হিসেবে আলোচিত ব্যক্তিতে পরিণত হন।

এর আগে ২০১২ সালে তিনি জর্জিয়া রাজ্যের সাধারণ প্রতিনিধি পরিষদের প্রতিনিধি প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে সর্বপ্রথম পত্র-পত্রিকা ও মিডিয়াতে শিরোনাম হন। সেখানে তিনি স্বল্প ভোটের ব্যবধানে পরাজিত হন।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর