কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


শুভ’র পরিবারে শুধুই কান্না


 বিশেষ প্রতিনিধি | ১৭ ডিসেম্বর ২০১৮, সোমবার, ৯:১২ | বিশেষ সংবাদ 


মর্মান্তিক এক সড়ক দুর্ঘটনায় কিশোরগঞ্জে নিহত তিন কিশোরের মধ্যে জাহিদুল হাসান শুভ এর বাবা বাবুল মিয়া বছর দু’য়েক আগে এক সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হন। বাবুল মিয়ার মৃত্যুতে পরিবারটি পড়ে অকুলপাথারে। ছোট দুই সন্তান ছেলে শুভ আর মেয়ে ভাবনাকে নিয়ে বুকে পাথরচাপা কষ্ট নিয়ে স্বামী হারানোর শোক সামলেছিলেন সখিনা বেগম।

ছেলে-মেয়েকে লেখাপড়া শিখিয়ে মানুষ করার স্বপ্ন দেখেছিলেন সখিনা বেগম। কিন্তু সখিনা বেগমের এই স্বপ্নও দুমড়ে-মুচড়ে দিয়েছে আরেকটি সড়ক দুর্ঘটনা। বাবার মতোই সড়ককে রক্তে রাঙিয়ে অকালে পৃথিবী থেকে হারিয়ে গেছে শুভ।

সন্তান হারানোর শোকে নির্বাক সখিনা বেগমের চোখে-মুখে এখন কেবলই বেদনা। সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত শুভ’র ক্ষতবিক্ষত মরদেহ দেখে, কোনভাবেই বিশ্বাস করছিলেন না যে, এটি তার ছেলের মরদেহ। বার বারই বলে ওঠছিলেন, তাঁর ছেলে শুভ মারা যায়নি।

মায়ের মতোই শোকে পাথর মেয়ে ভাবনা। একমাত্র ভাইকে হারানোর শোকে বার বার ডুঁকরে কেঁদে ওঠছিল ১২ বছরের ভাবনা। বাবার পর তার ভাইটিও যে তাকে স্নেহহীন করে এভাবে চলে যাবে, ভাবতেই পারেনি ছোট্ট মেয়েটি।

রোববার (১৬ ডিসেম্বর) বিকালে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার মারিয়া ইউনিয়নের ঝাটাশিরা গ্রামে শুভ’দের বাড়িতে গিয়ে এমন দুঃসহ চিত্রই দেখা যায়। স্বজনদের কান্না আর আহাজারিতে ভারি ছিল এলাকার পরিবেশ।

শোকার্ত মানুষের আক্ষেপ, ‘সখিনা বেগমের কষ্টের দিন বুঝি আর ফুরোল না। স্বামীর মতো একমাত্র ছেলেকেও হারালো এই অল্প বয়সেই। এই শোক কিভাবে সামলাবেন তিনি!’

ঝাটাশিরা জিএ দাখিল মাদরাসার সহকারী শিক্ষক মো. আব্দুল হান্নান জানান, খুব শান্ত ও ভদ্র স্বভাবের ছিল শুভ। এবার জেডিসি পরীক্ষা দিয়েছিল। কয়েকদিন পরই সেই পরীক্ষার ফল বের হবে। কিন্তু এর আগেই ছেলেটি সবাইকে কাঁদিয়ে না ফেরার দেশে চলে গেছে।

স্বজনেরা জানান, স্বামীহারা সখিনা বেগমের সহায়-সম্পদ বলতে একচিলতে ভিটেয় ছোট একটি দোচালা ঘর। স্বামীর মৃত্যুর পর থেকেই দুই সন্তানকে নিয়ে খুব কষ্টে দিনাতিপাত করছিলেন তিনি। ছেলে শুভ জেডিসি পরীক্ষা দিয়েছিল। আর মেয়ে ভাবনা এবার প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষা দিয়েছে। স্বামীর মৃত্যুর পর সংসারে যেটুকু আলো ছিল, ছেলের মৃত্যুতে সেই আলোটুকুই আজ হারিয়ে গেছে। কান্না ছাড়া এখন আর কিছুই নেই পরিবারটিতে।

রোববার (১৬ ডিসেম্বর) দুপুরে তিন বন্ধু শান সৈকত (১৬), জাহিদুল হাসান শুভ (১৪) ও মিলন মিয়া (১৬) মোটর সাইকেলে করে ঘোরাঘুরি শেষে বাড়ি ফেরার সময়ে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার রশিদাবাদ মধ্যপাড়া বেইলী ব্রিজ এলাকায় অনন্যা ক্লাসিক পরিবহনের একটি যাত্রীবাহী বাস মোটরসাইকেলটিকে চাপা দেয়। এতে মোটর সাইকেলটি দুমড়ে-মুচড়ে গিয়ে ঘটনাস্থলেই প্রাণ হারায় সৈকত ও মিলন। মুমূর্ষু অবস্থায় শুভকে উদ্ধার করে কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সে-ও মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে।

নিহত তিন কিশোরের মধ্যে শান সৈকত কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার মারিয়া ইউনিয়নের প্যারাভাঙ্গা গ্রামের হেলাল উদ্দিনের ছেলে, জাহিদুল হাসান শুভ পার্শ্ববর্তী ঝাটাশিরা গ্রামের মৃত বাবুল মিয়ার ছেলে এবং মিলন মিয়া পাশের পাঠানকান্দি গ্রামের আবুবাক্কার মিয়ার ছেলে।

শান সৈকতের স্থানীয় ঝাটাশিরা জিএ দাখিল মাদরাসার শিক্ষার্থী হিসেবে এবার দাখিল পরীক্ষা দেয়ার কথা ছিল। জাহিদুল হাসান শুভ একই মাদরাসা থেকে এবার জেডিসি পরীক্ষা দিয়েছিল। এছাড়া মিলন মিয়া একটি মোটর গ্যারেজে কাজ করতো।

পাশাপাশি তিন গ্রামের তিন বন্ধুর এমন মর্মান্তিক মৃত্যুতে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে। আদরের সন্তানদের হারিয়ে পরিবারগুলোতে চলছে মাতম।

এ সংক্রান্ত সংবাদ: কিশোরগঞ্জে বেপরোয়া বাস কেড়ে নিলো তিন বন্ধুর প্রাণ, এলাকায় মাতম



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর