কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ভাবি হত্যায় জামিনে এসে যে কারণে চাচাকে হত্যা বর্বর শামীমের


 স্টাফ রিপোর্টার | ৬ এপ্রিল ২০১৯, শনিবার, ৯:৩৯ | অপরাধ 


মাত্র পৌনে দুই বছর আগে ভাবিকে নৃশংসভাবে কুপিয়ে হত্যার এবার বৃদ্ধ চাচাকে ছুরিকাঘাতে হত্যা করেছে শামীম (৩০) নামে বর্বর এক যুবক। শুক্রবার (৫ এপ্রিল) সন্ধ্যা ৭টার দিকে কিশোরগঞ্জ শহরের বত্রিশ মনিপুরঘাট এলাকায় নৃশংস এই হত্যাকাণ্ড সংঘটিত হয়।

নিহতের নাম হাবিবুর রহমান (৬৫)। তিনি কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার যশোদল ব্রাহ্মণকান্দি গ্রামের মৃত আব্দুর রাশিদের ছেলে। ঘটনার পর পরই স্থানীয়দের সহায়তায় ঘাতক শামীমকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। ঘাতক শামীম যশোদল ব্রাহ্মণকান্দি গ্রামের দুলাল মিয়ার ছেলে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, ২০১৭ সালের ১৩ই জুলাই রাতে যশোদল ব্রাহ্মণকান্দি গ্রামের স্বামীর ঘরে নৃশংস হত্যাকাণ্ডের শিকার হন গৃহবধূ রওশন আরা (২৪)। এ ঘটনায় পুলিশ নিহত গৃহবধূর স্বামী হযরত আলী, দেবর শামীম, শ্বশুর দুলাল মিয়া, শাশুড়ি, ননদ ও দুলাল মিয়ার সৎ ভাই হাবিবুর রহমানের ছেলে হুমায়ুন এই ছয়জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে চার্জশীট জমা দেয়।

ছয় আসামির মধ্যে হযরত আলী, তার ছোট ভাই শামীম এবং মা ও বোন এই চারজন কিছুদিন আগে জামিনে জেল থেকে ছাড়া পায়। বাকি দুই আসামির মধ্যে হুমায়ুন আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয় এবং সে কারাগারে রয়েছে।

এছাড়া অপর আসামি হযরত আলীর বাবা দুলাল মিয়া কিছুদিন আগে আদালতে আত্মসমর্পণ করলে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়।

বাবা দুলাল মিয়া জেলে যাওয়ায় এবং জেলে থাকা সৎ চাচাতো ভাই হুমায়ুন আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়ায় হুমায়ুনের ওপর ক্ষিপ্ত ছিল দুই ভাই হযরত আলী ও শামীম। কিন্তু হুমায়ুন কারাগারে থাকায় দুই ভাইয়ের রোষানলে পড়েন সৎ চাচা হাবিবুর রহমান।

এ রকম পরিস্থিতিতে শুক্রবার (৫ এপ্রিল) সন্ধ্যা ৭টার দিকে কিশোরগঞ্জ শহরের বত্রিশ মনিপুরঘাট এলাকার একটি চায়ের স্টলে বসে হাবিবুর রহমান চা পান করার সময় দুই ভাই হযরত ও শামীম সেখানে গিয়ে হাবিবুর রহমানের ওপর চড়াও হয়। এ সময় শামীম সৎ চাচা হাবিবুর রহমানের গলায় সজোরে ছুরিকাঘাত করলে ছুরিটি গলায় বিদ্ধ হয়ে ভেতরে ঢুকে যায়। এতে রগ কেটে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে ঘটনাস্থলেই হাবিবুর রহমানের মৃত্যু হয়।

এ সময় হযরত আলী পালিয়ে গেলেও স্থানীয়রা ঘাতক শামীমকে আটক করে গণপিটুনী দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করে। পরে কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে পুলিশ হেফাজতে শামীমকে চিকিৎসা দেয়া হয়।

কিশোরগঞ্জ সদর মডেল থানার ওসি মো. আবুবকর সিদ্দিক জানান, এই হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় নিহত হাবিবুর রহমানের স্ত্রী কল্পনা আক্তার বাদী হয়ে দুই ভাই শামীম ও হযরত আলীকে আসামি করে শনিবার (৬ এপ্রিল) থানায় মামলা করেছেন। দুই আসামির মধ্যে গ্রেপ্তার হওয়া শামীমকে শনিবার (৬ এপ্রিল) আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। অপর আসামি হযরত আলীকে গ্রেপ্তারের জন্য পুলিশ অভিযান চালিয়ে যাচ্ছে।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা কিশোরগঞ্জ সদর মডেল থানার এসআই মো. শরীফুল ইসলাম জানান, ঘাতক শামীমকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আদালতে চার দিনের রিমান্ড চাওয়া হয়েছে। সোমবার (৮ এপ্রিল) রিমান্ড শুনানি অনুষ্ঠিত হবে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর