kishoreganjnews.com:কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

ভূমি অধিগ্রহণ কর্মকর্তার ৫ কোটি টাকা আত্মসাত, দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা


 বিশেষ প্রতিনিধি | ৯ জানুয়ারি ২০১৮, মঙ্গলবার, ৬:৪৫ | অপরাধ 


কিশোরগঞ্জ কালেক্টরেটের সিনিয়র সহকারী সচিব পদমর্যাদার ভূমি অধিগ্রহণ কর্মকর্তা সেতাফুল ইসলাম জনগণের ভূমি অধিগ্রহণ বাবদ ক্ষতিপূরণের ৫ কোটি টাকা আত্মসাত করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। এছাড়া আরো ১০ কোটি টাকা আত্মসাতের প্রকৃয়ার মাঝপথে জেলা প্রশাসন ওই চেকটি আটকে দিয়েছে। এ ব্যাপারে তদন্ত চলছে। তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত সেতাফুল ইসলাম যেন দেশত্যাগ করতে না পারেন, এই মর্মে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে চিঠি দেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন কিশোগঞ্জের জেলা প্রশাসক মো. আজিমুদ্দিন বিশ্বাস।

এই বিপুল পরিমাণ অর্থ আত্মসাতের ঘটনা তদন্তে কিশোরগঞ্জের স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক উপ-সচিব মো. জহিরুল ইসলামের নেতৃত্বে তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির অপর দুই সদস্য হলেন- অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) দুলাল চন্দ্র সূত্রধর ও রেভিনিউ ডেপুটি কালেক্টর ফারহানা আলী। এ ঘটনায় তদন্ত কাজ চলছে বলে জানিয়েছেন তদন্ত কমিটির প্রধান জহিরুল ইসলাম।

তবে এর আগেই অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) দুলাল চন্দ্র সূত্রধরের নেতৃত্বে রেভিনিউ ডেপুটি কালেক্টর ফারহানা আলী ও সহকারী কমিশনার আরিফুজ্জামানকে সদস্য করে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছিল। সেই কমিটির তদন্তেই প্রথম ৫ কোটি টাকা আত্মসাত ও ১০ কেটি টাকা আত্মসাতের প্রকৃয়ার বিষয়টি প্রমাণিত হয় বলে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) তরফদার মো. আক্তার জামীল জানিয়েছেন।

এদিকে অভিযোগ তদন্তে ভূমি মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব মির্জা তারিক হিকমত কিশোরগঞ্জ সফর করেছেন। তিনি শনিবার কিশোরগঞ্জে এসে রোববার আগের দুই তদন্ত কমিটির সদস্যদের সঙ্গে কথা বলে এ সংক্রান্ত তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করেছেন। যুগ্ম সচিব মির্জা তারিক হিকমত এর সোমবার কিশোরগঞ্জ ছেড়ে যাওয়ার কথা ছিল।

প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, জেলার বিভিন্ন এলাকায় উন্নয়ন কাজের জন্য অধিগ্রহণকৃত ভূমির মালিকদের ক্ষতিপূরণ বাবদ প্রায় ৫০০ কোটি টাকার বরাদ্দ এসেছে। এসব অর্থ থেকে অধিগ্রহণকৃত জমির মালিকদেরকে জমির মূল্য বাবদ প্রাপ্য অর্থ না দিয়ে সেতাফুল ইসলাম ট্রেজারি ও সোনালী ব্যাংকের মাধ্যমে ইতোমধ্যে ৫ কোটি টাকা আত্মসাত করে ফেলেছেন বলে তদন্ত কমিটির প্রধান জহিরুল ইসলাম জানিয়েছেন। আরো ১০ কোটি টাকা আত্মসাতের ব্যবস্থা করে ফেলেছিলেন। বিষয়টি জানতে পেরে জেলা প্রশাসন সেই চেকটি আটকে দিয়েছে।

অভিযুক্ত ভূমি অধিগ্রহণ কর্মকর্তা সেতাফুল ইসলামকে গত ৫ই ডিসেম্বর কিশোরগঞ্জ থেকে একই পদে পিরোজপুরে বদলি করা হলে সেখান থেকে আবার তাকে ভোলায় বদলি করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন কিশোরগঞ্জের জেলা প্রশাসক মো. আজিমুদ্দিন বিশ্বাস।

গত ৩রা ডিসেম্বর ভূমি মন্ত্রণালয়ের অধিশাখা-২ (মাঠ প্রশাসন) এর জারিকৃত এক প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, মো. সেতাফুল ইসলামকে কিশোরগঞ্জ থেকে পিরোজপুর জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের ভূমি অধিগ্রহণ কর্মকর্তা হিসেবে বদলি/পদায়ন করা হলো। উল্লেখিত কর্মকর্তা বদলিকৃত কর্মস্থলে যোগদানের নিমিত্ত ৫ই ডিসেম্বর বর্তমান কর্মস্থল থেকে অবমুক্ত হবেন। অন্যথায় ৬ই ডিসেম্বর তারিখে তাৎক্ষণিকভাবে অবমুক্ত বলে গণ্য হবেন।

এই আদেশ জারির পর ৫ই ডিসেম্বর জেলা হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তা স্বাক্ষরিত পাঁচ কোটি টাকার একটি চেক (কোড নং-০-০৭৪২-০০০০-৯৪০১) ৬ই ডিসেম্বর ভূমি অধিগ্রহণ শাখার কর্মচারীদের বেতন-ভাতা শিরোনামে চলতি হিসাবে (হিসাব নম্বর-৩৪১১২০০০০০২৮৪) জমা হয়। ওই দিনই ২০৬২৬৩৯ নম্বর চেকের মাধ্যমে ২ কোটি টাকা এবং ৭ই ডিসেম্বর ৪১৩৫৬২১ নম্বর চেকের মাধ্যমে ২ কোটি ৯৪ লাখ টাকা মো. সেতাফুল ইসলাম উত্তোলন করেন। এছাড়া আরও ৬ লাখ টাকা তপন ইন্ডাস্ট্রিজের নামে একটি হিসেবে ব্যালেন্স ট্রান্সফার করেন তিনি।

একটি তদন্ত প্রতিবেদনে বলা হয়, মো. সেতাফুল ইসলাম সরকারি হিসাব নম্বরে (৩৪১১২০০০০০২৮৪) ভূমি অধিগ্রহণের ৫ কোটি টাকা জমা করেন। পরে নিজেই তা উত্তোলন করে আত্মসাৎ করেন। জেলা হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা কিশোরগঞ্জ সোনালী ব্যাংক লিমিটেড কিশোরগঞ্জ শাখায় পাঁচ কোটি টাকার এমব্রোস-এ প্রাপক হিসেবে ভূমি হুকুম দখল কর্মকর্তা, কিশোরগঞ্জ লেখা হয়। জেলা হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তার অফিস থেকে সেতাফুল ইসলাম স্বাক্ষরিত অপর একটি এলএ চেক (নম্বর-০১০৪৩৪) পাওয়া যায়। এই চেকের মাধ্যমে ভূমি অধিগ্রহণ কর্মকর্তা বরাবর আরও ১০ কোটি টাকার এমব্রোস প্রেরণের অপেক্ষায় ছিল। এ খবর জানার সঙ্গে সঙ্গে চেকটি জেলা প্রশাসন জব্দ করে।

প্রতিটি এলএ কেসের বিপরীতে ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তির নামে আলাদা চেক ইস্যু হওয়ার কথা থাকলেও তা না করে সেতাফুল ইসলাম টাকা আত্মসাতের জন্য এই অভিনব কৌশল ব্যবহার করেন বলে তদন্ত প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে বলে জেলা প্রশাসনের একটি সূত্র জানিয়েছে। এছাড়া এলএ শাখার হিসাবের ৬১টি চেকের ৮ কোটি ৯ লাখ ৭০ হাজার টাকার সুস্পষ্ট গরমিল পাওয়া গেছে বলেও তদন্ত সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র জানিয়েছে।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর









সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮
Web: www. kishoreganjnews.com
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ