কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

যুক্তরাষ্ট্রের সিনেটর নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে ইতিহাস গড়তে চান কিশোরগঞ্জের চন্দন


 হাকিকুল ইসলাম খোকন, নিউইয়র্ক | ১ মে ২০১৮, মঙ্গলবার, ৪:০৩ | প্রবাস 


যুক্তরাষ্ট্রের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্য জর্জিয়ার ডিসট্রিক্ট-৫ থেকে ডেমোক্র্যাটিক পার্টির মনোনয়ন নিয়ে সিনেটর পদে প্রার্থী হয়েছেন মূলধারার রাজনীতিবিদ বাংলাদেশি-আমেরিকান শেখ মুজাহিদুর রহমান চন্দন। আগামী ২২ মে ওই আসনে গুইনেট কাউন্টির নরক্রস, লিলবার্ন ও লরেন্সভিল শহরের ভোটারদের অংশগ্রহণে সরাসরি এ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

শেখ মুজাহিদুর রহমান চন্দন নির্বাচিত হলে তিনিই হবেন জর্জিয়া স্টেট সিনেট নামের এ রাজ্যের আইন প্রণয়নকারী প্রতিনিধি পরিষদের প্রথম বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত নাগরিক।

স্ত্রী, এক কন্যা ও এক পুত্র নিয়ে আটলান্টায় বসবাসকারী শেখ মুজাহিদুর রহমান চন্দনের বাড়ি বাংলাদেশের কিশোরগঞ্জে। তাঁর আদি পুরুষের বাস কিশোরগঞ্জের বাজিতপুর উপজেলার সরারচরে।

সিনেটর পদে শেখ মুজাহিদুর রহমান চন্দনের সমর্থনে ২৮ এপ্রিল (শনিবার) সন্ধ্যায় নিউইয়র্ক সিটির জ্যাকসন হাইটসে এক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। এলায়েন্স অব সাউথ এশিয়ান-আমেরিকান লেবার (আসাল) এই সমাবেশের আয়োজন করে। এতে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন কংগ্রেসওম্যান গ্রেস মেং।

গ্রেস মেং তার বক্তব্যে নিজেকে বাংলাদেশীদের অকৃত্রিম বন্ধু হিসেবে অভিহিত করে বলেন, ‘গত ১০ বছরে ডেমক্র্যাটরা কংগ্রেসসহ অঙ্গরাজ্য ও স্থানীয় পর্যায়ের সহস্রাধিক আসন হারিয়েছি। সেগুলো রিপাবলিকানদের দখলে চলে গেছে। এ অবস্থার অবসানে সকলকে সংঘবদ্ধ হতে হবে। গত এক বছরের আমরা মাত্র ৪০টি আসন পুনরুদ্ধারে সক্ষম হয়েছি। সামনের নির্বাচনে কংগ্রেসের অধিকাংশ আসন দখলে নিতে হবে। এজন্যে যারা ইতিমধ্যেই সিটিজেনশিপ গ্রহণ করেছেন, তাদের উচিত হবে ভোটার হিসেবে তালিকাভুক্ত হওয়া।’

সমাবেশ সঞ্চালনা করেন প্রখ্যাত শ্রমিক ইউনিয়ন নেতা মাফ মিসবাহউদ্দিন। অন্যান্যের মধ্যে আলোচনায় অংশ নেন কম্যুনিটি লিডার মোর্শেদ আলম, ফখরুল আলম, খোরশেদ খন্দকার, গিয়াস আহমেদ, হাসানুজ্জামান হাসান, করিম চৌধুরী, আলী হোসেন, এ কে এম নূরল হক এবং সাংবাদিক মাহফুজুর রহমান।

সকলেই শেখ মুজাহিদুর রহমান চন্দনের বিজয়ে নিজ নিজ অবস্থান থেকে কাজের অঙ্গিকার করেন।

এ সময় প্রদত্ত বক্তব্যে মোর্শেদ আলম বলেন, স্টেট সিনেট নির্বাচনে ৪২% ভোট পেয়েও হেরে গেছি। কারণ, ডেমক্র্যাটরাই আমাকে ভোটদানে কার্পণ্য করেছে। অথচ ফ্লাশিংয়ের চায়নিজরা দলে দলে ভোট দিয়েছেন। সে ঋণ আমি কখনো ভুলবো না। এ প্রসঙ্গে কংগ্রেসওম্যান গ্রেস মেং বলেন, চায়নিজরা এডপ্ট করেছিলেন মোর্শেদ আলমকে। এর প্রতিদান হিসেবে জ্যামাইকার বাংলাদেশীরা আমাকে এডপ্ট করেছেন। তারা আমার পক্ষে রয়েছেন সবসময়।

বাংলাদেশ সোসাইটির সাবেক সাধারণ সম্পাদক ফখরুল আলম বলেন, পরস্পরের সহযোগী হয়ে সামনে এগুতে হবে। শেখ মুজাহিদুর রহমান চন্দনকে সে তাগিদেই সর্বাত্মক সহায়তা দিয়ে যাবো। এর বিকল্প নেই। গিয়াস আহমেদ বলেন, রিপাবলিকান হয়েও আমি ডেমক্র্যাট শেখ মুজাহিদুর রহমান চন্দনের পক্ষে কাজ করছি। কারণ, তিনি হলেন বাংলাদেশী। এ চেতনায় সকলকে কাজ করতে হবে।

বাংলাদেশী আমেরিকান ডেমক্র্যাটিক লীগের প্রেসিডেন্ট ও ডেমক্র্যাট ন্যাশনাল কমিটির সদস্য খোরশেদ খন্দকার বলেন, রোহিঙ্গা সংকটে জর্জরিত বাংলাদেশ। এ থেকে উত্তরণে গ্রেস মেং-এর সহায়তা চাই। বিশেষ করে রোহিঙ্গারা যাকে সসম্মানে মিয়ানমারে নিজের বসতভিটায় ফিরতে পারে-সে ব্যাপারে মার্কিন কংগ্রেসের হস্তক্ষেপ জরুরী। এর পরিপ্রেক্ষিতে মেং বলেন, ‘মিয়ানমারের বর্বরতায় সকলেই ক্ষুব্ধ। আমরা বদ্ধপরিকর সে সমস্যার স্থায়ী সমাধানে। এজন্যে চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।

হাসানুজ্জামান হাসান বলেন, শেখ রহমান আমাদের ঘুরে দাঁড়াতে প্রেরণা দিচ্ছেন। তার মত আরো যারা লড়ছেন, সকলের জন্যেই কাজ করতে হবে। বাংলাদেশী-আমেরিকানদের জন্যে দলমত-নির্বিশেষে জোট গঠন করতে হবে।

মাফ মিসবাহ বলেন, ঐক্যের বিকল্প নেই। আর এ ঐক্যের প্ল্যাটফরম হচ্ছে ডেমক্র্যাটিক পার্টি। মূলধারায় প্রবাসীদের সম্পৃক্ত করতে আমরা ‘আসাল’ (এলায়েন্স অব সাউথ এশিয়ান-আমেরিকান লেবার) এর মাধ্যমে নেটওয়ার্ক রচনা করছি। বিভিন্ন অঙ্গরাজ্যে কমিটি হয়েছে। অন্যসকল রাজ্যেও কমিটির চেষ্টা চলছে। এভাবেই আমাদের মধ্যেকার সাংগঠনিক সম্পর্ক সুসংহত রাখতে পারলে যে কোন নির্বাচনে আমাদের সমর্থিত প্রার্থীর বিজয় আনা সম্ভব।

কিশোরগঞ্জের সন্তান শেখ মুজাহিদুর রহমান চন্দন বলেন, ‘ডিশওয়াশারের কাজের মাধ্যমে আমার প্রবাস জীবন শুরু। ১৪ বছর লেগেছে কলেজ-ভার্সিটির লেখাপড়া শেষ করতে। আর আজকের এ অবস্থানে আসতে সময় লেগেছে ৩৫ বছর। আমি সকলের প্রতি অনুরোধ রাখতে চাই, একবার হেরে গেলেই হাল ছেড়ে দেবেন না। এটি হচ্ছে ভাগ্য গড়ার অপূর্ব সুযোগের একটি স্থান। চেষ্টা করলে ভাগ্য প্রসন্ন হবেই। ডেমক্র্যাটিক পার্টিতে আমি এবং গ্রেস মেং-এশিয়ান। এটি একটি ইতিহাস। গ্রেস মেং ভোটে জয়ী হয়ে ভাইস প্রেসিডেন্ট এবং আমি নির্বাহী সদস্য হয়েছি। নির্বাচনে জয়-পরাজয় উভয়ই রয়েছে। একবার হারলেই যেন কেউ হতাশ না হন।’

ডেমক্র্যাটিক পার্টির জাতীয় নির্বাহী কমিটিতে একমাত্র বাংলাদেশীই শুধু নন দক্ষিণ এশিয়ান শেখ মুজাহিদুর রহমান চন্দন আরো বলেন, ‘এখন সময় হচ্ছে ঘুরে দাঁড়ানোর। এখন সময় হচ্ছে আমেরিকান স্বপ্ন পূরণে জোরালো ভূমিকায় অবতীর্ণ হবার।’

এ সংক্রান্ত সংবাদ: যুক্তরাষ্ট্রে সিনেটর পদে লড়ছেন কিশোরগঞ্জের চন্দন



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর



















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮, ০১৮৪১ ৮১৫৫০০
kishoreganjnews247@gmails.com
সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি: সাইফুল হক মোল্লা দুলু
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ