কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


মানুষ, প্রেম ও বিজ্ঞান: শাহ আজিজুল হক


 কিশোরগঞ্জ নিউজ রিপোর্ট | ৭ মে ২০২১, শুক্রবার, ১০:২৯ | রকমারি 



[শাহ আজিজুল হক: কবি, সাংবাদিক, রাজনীতিবিদ। সভাপতি, কিশোরগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতি। পিপি, কিশোরগঞ্জ জজ কোর্ট। সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক, জেলা আওয়ামী লীগ, কিশোরগঞ্জ। মানুষ, প্রেম ও বিজ্ঞান নিয়ে তিনি উপস্থাপন করেছেন বিজ্ঞানভিত্তিক বিশ্লেষণ।]

আধুনিক মানব প্রজাতির উদ্ভবের ২৫ লক্ষ বছর পূর্বেও মনুষ্য-ন্যায় প্রাণীর অস্তিত্ব এই পৃথিবীতে ছিল বলে বিজ্ঞানীদের অভিমত। তবে সভ্যতার ইতিহাসকার এবং নৃবিজ্ঞানীদের মতে, বুদ্ধিময় মানুষ প্রজাতির পূর্ববর্গীয় মানুষ-সদৃশ্যগণ ২০ লক্ষ বছর পৃথিবীতে বিস্তৃত ছিল। উল্লেখ্যযোগ্য বিষয় হলো, তাদের কোনও নিজস্ব সংস্কৃতি কিংবা আচারিক শৈলী ছিল না।

বিবর্তনের ধারাবাহিকতায় ৭০ হাজার আগে আজকের আধুনিক মানুষের আবির্ভাব ঘটে। বিজ্ঞানের ভাষায় এই মানুষের নামাকরণ হয় Homo sapiens । হোমো অর্থ মানুষ সেপিয়েন্স হচ্ছে বুদ্ধিদীপ্ত; অর্থাৎ ‘বুদ্ধিদীপ্ত মানুষ’। তারা তৈরি করে সংস্কৃতি। আর এ সংস্কৃতিই মানুষকে অন্য প্রাণি থেকে আলাদা করে ।

মোটা দাগে তিনটি বৈপ্লবিক বিকাশের মধ্য দিয়ে আজকের Homo Sapiens সভ্য মানুষ বিকশিত হয়েছে। ফলে মানব প্রজন্ম এক অভিন্ন সাংস্কৃতিক বিবর্তন ও ধারাবাহিকতার সন্তান। এবং এই অর্থে Homo Sapiens তথা সভ্য মানুষ মাত্রেই কমবেশি Sapiosexsual রূপেও বিবেচিত।

এসব কারণেই আধুনিক মানুষের মধ্যে মনোদৈহিক প্রেষণায় প্রেমের জটিল যৌগ-রসায়নের জন্ম হয়। আর এ জটিল কর্মটি সম্পন্ন করে মস্তিষ্ক। অর্থাৎ শরীর বৃত্তীয় বিবেচনায়, হৃদয় নয় মস্তিষ্ক থেকেই ভালবাসার উৎপত্তি। আসলে মনোবিজ্ঞান মনের বা হৃদয়ের বিজ্ঞান নয়, চিন্তাপ্রবাহের কাঠামোগত সমীক্ষণ। কারণ, মন বা হৃদয় বলে কোন কিছুর অস্তিত্ব নেই বলেই অধিকাংশের ধারণা। অস্তিত্বহীন কোন জিনিস বিজ্ঞানের আলোচনার বিষয় হতে পারে না বলেও বিজ্ঞানীদের এক অংশের অভিমত।

সে যাই হোক, ভালবাসা বা ভালোলাগার ক্ষেত্রে মানুষের বিশাল ও জটিল ব্যক্তিত্ব কাঠামোর অন্তর্গত বিশেষ যে প্রভাবটির আধিক্য পরিলক্ষিত হয়, সেই বৈশিষ্ট্যজাত প্রক্রিয়ার উপর ভিত্তি করেই Sexual Definitions কিংবা ভালবাসার সংজ্ঞা ও প্রকৃতি নির্ধারণ করা হয়েছে।

একই সঙ্গে এটাও বলা যায় যে, শুধু বুদ্ধিময় ভালবাসা তথা ‘প্লেটনিক লাভ' নিছক কল্পবিলাস মাত্র, বাস্তবে এর কোন অস্তিত্ব নেই। কারণ, ভালবাসা মনের কল্পনা অতিক্রমকারী মস্তিষ্কজাত, যা দৈহিক চাহিদার ফলিত রূপ এবং জৈবিক তাড়নামাত্র।

প্রসঙ্গত বলা দরকার যে, 'বিবিসি’তে সদ্য প্রকাশিত হেলেন ফিশারের গবেষণাটি মানুষ, প্রেম ও বিজ্ঞান বিষয়ক যুক্তিগ্রাহ্য ও প্রমাণ নির্ভর আলোচনার সঞ্চার করেছে। ফলে তার নিবন্ধের অংশ বিশেষ এখানে প্রাসঙ্গিকভাবে উদ্ধৃত করা হলো।

প্রেমের তিনটি স্তর:

যুক্তরাষ্ট্রের একাধিক বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকদের সঙ্গে কথা বলে হেলেন ফিসার জানান, প্রেমের তিনটি স্তর রয়েছে। এই তিনটি স্তরের প্রতিটি স্তরই ভিন্ন ভিন্ন হরমোন ও রাসায়নিক পদার্থ দ্বারা পরিচালিত হয়। স্তরগুলো হলো- ভালোবাসার ইচ্ছে, আকর্ষণ ও সংযুক্তি।

ভালোবাসার ইচ্ছে:

এটি প্রেমের প্রথম স্তর। যখন কাউকে ভালো লাগে, তখন তাকে ভালোবাসার আগ্রহ বা ইচ্ছে থেকে ছেলেদের ক্ষেত্রে টেসট্রোন ও মেয়েদের ক্ষেত্রে ইস্ট্রোজেন হরমোন নিঃসৃত হয়।

আকর্ষণ:

কাউকে দীর্ঘদিন ধরে ভালোলাগার ফলে তার প্রতি এক ধরনের আকর্ষণবোধ সৃষ্টি হয়। বিজ্ঞানীদের মতে এই স্তরের সঙ্গে তিনটি নিউরোট্রান্সমিটার জড়িত। এড্রিনালিন, ডোপামিন ও সেরোটোনিন। নিউরোট্রান্সমিটার হলো এক ধরনের এন্ডোজেন রাসায়নিক যা এক স্নায়ুকোষ থেকে অপর স্নায়ুকোষে সংকেত দেয়।

বলা বাহুল্য, মানুষের আবেগ, অনুভূতি, ভালোলাগা, মন্দলাগা, ভীতি, আতঙ্ক, প্রেম, বিরহ, অবসাদ, উদ্দীপনা ইত্যাদির আধিক্য বা হ্রাস-বৃদ্ধি বহুলাংশে হরোমন সম্পর্কিত মর্মে আধুনিক চিকিৎসা বিজ্ঞান বিশ্বাস করে।

এড্রিনালিন:

প্রেমে পড়ার প্রাথমিক পর্যায়ে এড্রিনালিন গ্রন্থি ও কর্টিসলে রক্ত সঞ্চালন বাড়ে। ফলে প্রিয় মানুষটিকে দেখলে বা তার সঙ্গে কথা বলার সময় ঘাম ঝরে, হৃদপিণ্ডের গতি বেড়ে যায় ও গলা শুকিয়ে আসে।

ডোপামিন:

হেলেন ফিসার সদ্য প্রেমে পড়া ছেলেমেয়েদের মস্তিষ্ক পরীক্ষা করে দেখেছেন যে ভালোবাসার উত্তেজনার ফলে তাদের মধ্যে উচ্চমানের ডোপামিন নিঃসরণ হয়েছে। এই রাসায়নিক পদার্থটি ব্যক্তির মধ্যে পাওয়ার আকাঙ্ক্ষা তৈরি করে। এক ফোঁটা কোকেন মস্তিষ্কে যে পরিমাণ উত্তেজনা সৃষ্টি করে ডোপামিনও এর ব্যতিক্রম নয়। ফিসার জানান, ডোপামিনের নিঃসরণ বেশি হলে শক্তি বাড়ে, ঘুম ও খাওয়ার চাহিদা কমে যায় ও মনযোগ বাড়ে।

সেরোটোনিন:

সর্বশেষ ও গুরুত্বপূর্ণ এই হরমোনটিই নির্ধারণ করে যে কেন ও কখন আপনি প্রেমে পড়বেন!।

সুতরাং চেতনে-অবচেতনে মানুষ প্রেমে পড়ে। তৈরি হয় তীব্র আকর্ষণ। এ এক প্রবল নিষিদ্ধ নেশা। রবীন্দ্রনাথ এ কারণেই লিখেছিলেন, 'ন্যায় অন্যায় জানিনে জানিনে...।'

আরও আদ্যিকালের কাব্যেকথায় বর্ণিত হয়েছে, 'পীরিতিরে ছাড়িলে পীরিতি নাহি ছাড়ে, ইহাই পীরিতিরধারা/ সব দিয়া দিলে তবু থাকে বাকী ধীরে ধীরে করে সাড়া।'

বস্তুত পক্ষে মানুষের জীবনে প্রেম নামক অনির্বচনীয় বিষয়টি হৃদয়বৃত্তীয় অনুভূতি এবং সাহিত্যিক-মানবিক অনুষঙ্গ রূপে বিবেচিত কিংবা গৃহীত হলেও এর মস্তিষ্কজাত ক্রিয়া-প্রতিক্রিয়া এবং শরীরবৃত্তীয় বিষয়সমূহকে উপেক্ষা করা যায় না।

মানুষের জীবনে প্রেম যে এক বিজ্ঞানময় কাঠামোতে বিশ্লেষণযোগ্য বিষয় রূপে অবস্থিত, এই সত্যও অস্বীকার করার জো নেই। বরং অদূর ভবিষ্যতে মানুষের মনস্তত্ত্ব ও এন্ড্রোক্রাইনোলজি মানব হৃদয় ও মস্তিষ্কের বহুবিচিত্র অনুভূতির তরঙ্গপ্রবাহকে শনাক্তের ক্ষেত্রেও সাফল্য দেখাতে পারে।

উল্লেখ্য, এন্ডোক্রাইনোলজি (Endocrinology) আক্ষরিক অর্থে অন্তঃক্ষরাবিজ্ঞান বা অন্তঃক্ষরাগ্রস্থিবিজ্ঞান হচ্ছে জীববিজ্ঞান ও চিকিৎসাবিজ্ঞানের একটি বিশেষায়িত শাখা, যা অন্তঃক্ষরা গ্রন্থিতন্ত্র, এর রোগ এবং বিভিন্ন ধরণের হরমোন নামক সুনির্দিষ্ট জৈব যৌগের নিঃসরণ নিয়ে অধ্যয়ন করে।


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর