কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


নজরকাড়া ফুল হেলিকোনিয়া


 লেখা ও ছবি: নূর আলম গন্ধী | ১১ মে ২০২১, মঙ্গলবার, ১১:৫০ | রকমারি 



হেলিকোনিয়ার আদি নিবাস আমেরিকা। এর পরিবার Musaeae, উদ্ভিদতাত্ত্বিক নাম Heliconia rostrata। এটি বলিভিয়ার জাতীয় ফুল। সেখানকার স্থানীয় নাম পাটুজু। ফুলের মধু হামিংবার্ডসহ অনেক পাখির প্রিয়।

আমাদের দেশের প্রকৃতি পরিবেশে গ্রীষ্ম ঋতুতে হেলিকোনিয়া ফুল ফোটে এবং এর ফুল ফোটার ব্যাপ্তি পুরু গ্রীষ্ম জুড়ে।

ফুল গন্ধহীন। এর ফুলের মঞ্জরি বেশ লম্বা, নিচ দিকে ঝুলন্ত, উজ্জ্বল লাল রঙের। ফুল মঞ্জরিতে সুবিন্যস্ত ভাবে সাজানো থাকে। যেনো ঝুলন্ত সাজানো মালা।

ফুল রঙে লাল, তবে অগ্রভাগ সবুজ। ফুটন্ত ফুল মনোমুগ্ধকর ও নজরকাড়া। দেখে আনন্দের ঢেউ জাগে। এর ফুটন্ত ফুলের সৌন্দর্য বেশ অনেক দিন অটুট থাকে।

গাছ ঝোপালো ভাবে জন্মে। গাছের পাতা আকার-আকৃতিতে অনেকটা কলা গাছের মতো, লম্বা ডাঁটার অগ্রভাগে আয়াতকার ফলক, রং সবুজ, পুরু, মধ্যশিরা স্পষ্ট।

গাছের উচ্চতা গড়ে প্রায় ১০ থেকে ১২ ফুট হয়ে থাকে।

কন্দজাতীয় এ ফুলের গাছ কন্দ চারার মাধ্যমে বংশ বিস্তার হয়ে থাকে। কোন স্থানে চারা গাছ রোপণ করা হলে সেখানে দিন দিন গাছের পরিমাণ বাড়তে থাকে।

হেলিকোনিয়া ফুলের চারা ইচ্ছে মতো সারি করে বা বিভিন্ন নকশায় রোপণ করা যায় এতে বাগানের সৌন্দর্য বৃদ্ধি পায়। বাসা-বাড়ির সীমানাতে লাগানো যেতে পারে। তাছাড়া বড় টব ও সরাসরি মাটিতে রোপণ উপযোগী ফুল গাছ।

আমাদের দেশের পারিবারিক বাগান, অফিস, পার্ক, উদ্যান ও বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের বাগানে হেলিকনিয়া চোখে পড়ে। উঁচু ভূমি, রৌদ্রউজ্জ¦ল পরিবেশ ও প্রায় সব ধরনের মাটিতে এ ফুল গাছ জন্মে।


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর