কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কটিয়াদীতে বেল থেকে হাড্রোলিক হর্ন, শব্দ দূষণে নাকাল জনজীবন


 মো. রফিকুল হায়দার টিটু, কটিয়াদী | ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, রবিবার, ৮:৩৭ | কটিয়াদী 



কিশোরগঞ্জের কটিয়াদীতে এখন শব্দ দূষণে নাকাল জনজীবন। পরিত্রাণের উপায় জানা নেই। নেই প্রশাসনের নজরদারী। ফলে উচ্চ শব্দে মাইকিং, গাড়ি, মোটরসাইকেল ও অটোরিকশার হর্ন যেন নিয়তি হয়ে দাঁড়িয়েছে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, শব্দ দূষণের মারাত্মক ক্ষতিকর এ প্রভাবে শিশু-কিশোর থেকে শুরু করে সকল বয়সের মানুষ হারাচ্ছে শ্রবণশক্তি।

এছাড়া শব্দ দূষণে নানা রকম মানসিক, শারীরিক রোগে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে যাচ্ছে। শিক্ষার্থীরা হারাচ্ছে স্মৃতিশক্তি।

এদিকে এমন অসহনীয় পরিস্থিতিতে শব্দ দূষণ রোধে জরুরী পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য প্রশাসনের নজরদারী চান এলাকাবাসী।

সরেজমিন দেখা যায়, কিশোরগঞ্জের কটিয়াদীতে এখন আর পায়ে প্যাডেল চালিত রিকশা চোখে পড়ে না। মনে হয় রিকশার যুগ শেষ হয়ে এসেছে।

আধুনিকতার ছোঁয়া লেগেছে ত্রি-চক্রযান বা রিকশাতে। বিদেশ থেকে আমদানি করা এসব অটোরিকশায় এখন আর প্যাডেল ও বেল ব্যবহার করা হয় না, ব্যবহৃত হয় উচ্চ শব্দের হাইড্রোলিক হর্ন।

বেপরোয়া এসব অটোচালক কার আগে কে যাবে এ নিয়ে প্রতিযোগিতায় মত্ত থাকে। ফলে কারণে অকারণে সারাক্ষণই হর্ন বাজাতেই থাকে।

বিশেষ করে স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা, হাসপাতাল ও আবাসিক এলাকার প্রতিটি পাড়া মহল্লার অলি গলি রাস্তায় এর মারাত্মক প্রভাব পড়ছে।

এসব রাস্তায় অটোরিকশার পাশাপাশি মোটরসাইকেল চালকদের বেপরোয়া গতির কারণেও হরদম হর্ন বাজাতে দেখা যায়।

এছাড়া বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপনি কিংবা সভা সমাবেশের প্রচারের জন্য উচ্চশব্দের মাইকিং নাগরিক জীবনে চরম অশান্তি সৃষ্টি করলেও এর প্রতিকারের যেন কোন পদক্ষেপ নেই।

সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত অনবরত শব্দ দূষণে শিশু, কিশোর, অসুস্থ, বৃদ্ধ সকল বয়সি মানুষের শারীরিক ও মানসিক স্বাভাবিকতায় বিরূপ প্রভাব পড়ছে। এই শব্দ দূষণ নিয়ন্ত্রণ না হলে নাগরিক জীবনে স্বাস্থ্যহানীর পরিমান দিন দিন বেড়েই যাবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

কটিয়াদী বাজারের ফার্নিচার ব্যবসায়ী আবুল কাসেম বলেন, যতক্ষণ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে থাকি অটোরিকশা, মোটরসাইকেল ও অন্যান্য গাড়ির উচ্চ শব্দের হর্ন আমার কান এবং মনোজগতকে এক বিশৃঙ্খল পরিবেশে নিয়ে যায়। মাত্রারিক্ত শব্দ দূষণে কারো সাথে কথা বলতে গেলে আমাকেও অস্বাভাবিক উচ্চস্বরে কথা বলতে হয়। দিন শেষে যখন গ্রামের বাড়িতে ফিরি মনে হয় স্বর্গীয় নিস্তব্দতায় শান্তির অনুকুল পরিবেশে ফিরে গেলাম। কিন্তু জীবন জীবিকার তাগিদে শব্দ দূষণের অস্বস্তিকর পরিবেশের মধ্যে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে অবস্থান করতে হয়। এ অবস্থা থেকে পরিত্রাণের দাবি জানাই।

স্বাস্থ্য বিভাগের সাবেক উপ পরিচালক ডা. আব্দুল মুক্তাদির ভূঞা বলেন, মাত্রারিক্ত শব্দ দূষণ শিশুদের মেধা বিকাশকে বাধাগ্রস্থ করে, লেখাপড়ায় অমনোযোগী করে তুলে, কানে কম শুনার সমস্যা হতে পারে। অসুস্থ ও বৃদ্ধদের ঘুমের ব্যাঘাত সৃষ্টি করে। সাধারণ মানুষের মন মেজাজ খিটখিটে হয়ে যায়।

কিশোরগঞ্জ পরিবেশ অধিদপ্তরের সিনিয়র কেমিস্ট কাজী সুমন বলেন, উচ্চ শব্দ সম্পন্ন শব্দ দূষণের জন্য দায়ী যে কোন যানের হাইড্রোলিক হর্ন ব্যবহার বন্ধের জন্য শীঘ্রই অভিযান পরিচালনা করা হবে।

কটিয়াদী উপজেলা নির্বাহী অফিসার জ্যোতিশ্বর পাল শব্দ দূষণ নিয়ন্ত্রণের বিষয়ে বলেন, রিকশা-অটোরিকশা সমিতির নেতৃবৃন্দকে অবহিত করে ২০-২৫দিন সময় দিয়ে হর্ন পরিবর্তনের সুযোগ দেয়া হবে।

উচ্চ শব্দের মাইকিং এর বিষয়ে তিনি বলেন, বর্তমানে সাউন্ড সিস্টেমে অনেক উন্নতি হয়েছে। মাইকিং প্রচারণায় মৃদু, সুন্দর সাউন্ডের মাইক ব্যবহার করলে শব্দ দূষণ অনেকটা রোধ করা সম্ভব। এছাড়া মোটরসাইকেল চালকদেরও প্রচারণার মাধ্যমে সচেতন করে তুলতে হবে।

তবে নির্দিষ্ট সময় পরে আদেশ অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনা করে শব্দ দূষণ নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করা হবে।


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর