কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জে সিনিয়র-জুনিয়র দ্বন্দ্বে প্রাণ গেলো এসএসসি পরীক্ষার্থীর


 স্টাফ রিপোর্টার | ৮ জানুয়ারি ২০১৯, মঙ্গলবার, ৪:০৮ | কিশোরগঞ্জ সদর 


কিশোরগঞ্জের একটি বিদ্যালয়ের এক ক্লাস জুনিয়র ছাত্রকে নাম ধরে ডাকতে নিষেধ করার জের ধরে মেহেদী হাসান জয় (১৬) নামে এক এসএসসি (ভোকেশনাল) পরীক্ষার্থীর ওপর হামলা চালিয়ে ছুরিকাঘাতে হত্যার ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় এখলাস উদ্দিন (২৬) নামে বিদ্যালয়ের এক শিক্ষকও আহত হয়েছেন।

মঙ্গলবার (৮ জানুয়ারি) সকাল সোয়া ৮টার দিকে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার আউলিয়াপাড়া এলাকার আব্দুল গণি কারিগরি স্কুল এন্ড কলেজ প্রাঙ্গণে নির্মম এই হত্যাকাণ্ডের ঘটনাটি ঘটে। নিহত মেহেদী হাসান জয় কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার বিন্নাটি আতকাপাড়া গ্রামের ট্রাকচালক মো. কাঞ্চন মিয়ার ছেলে।

এ ঘটনায় পুলিশ তারেক নামে একজনকে গ্রেপ্তার করেছে। তবে মূল অভিযুক্ত বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্র সাব্বির হোসেন ও তার অপর সহযোগী রিয়েল পলাতক রয়েছে।

নিহত এসএসসি (ভোকেশনাল) পরীক্ষার্থী মেহেদী হাসান জয়ের ঘনিষ্ঠ বন্ধু ও সহপাঠি নূর মোহাম্মদ জানায়, দশম শ্রেণির ছাত্র সাব্বির হোসেন এসএসসি (ভোকেশনাল) পরীক্ষার্থী মেহেদী হাসান জয়কে কয়েকদিন আগে নাম ধরে ডাক দেয়। সাব্বিরকে জয় নাম ধরে রাখতে নিষেধ করে। এ নিয়ে দু’জনের মাঝে বিরোধের সৃষ্টি হয়। সোমবার (৭ জানুয়ারি) এ নিয়ে দু’জনের মাঝে ঝগড়াও হয়।

হামলায় আহত বিদ্যালয়ের ইংরেজি শিক্ষক এখলাস উদ্দিন জানান, তার কাছে মেহেদী হাসান জয় বিদ্যালয়ে এসে প্রাইভেট পড়তো। সকাল ৮টা থেকে জয়দের ব্যাচ শুরু হয়। সকাল ৭টার ব্যাচ শেষ না হওয়ায় বিদ্যালয় প্রাঙ্গণেই জয় এবং অন্যরা অপেক্ষা করছিল। এ সময় বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্র সাব্বির হোসেন তার এক সহযোগীকে নিয়ে সেখানে গিয়ে জয়কে একটু আড়ালে ডেকে নেয়।

বিষয়টি জানতে তিনি কাছাকাছি গিয়ে দেখেন, সাব্বির তার দুই সহযোগী রিয়েল ও তারেককে সাথে নিয়ে জয়ের সঙ্গে তর্কে লিপ্ত রয়েছে। এ সময় তাদের নিবৃত্ত করতে তিনি এগিয়ে যাওয়ার আগেই জয়ের বুকে সাব্বির ধারালো চাকু ঢুকিয়ে দেয়। তিনি সেখানে গিয়ে জয়কে রক্ষা করতে চাইলে তাকেও চাকু দিয়ে আঘাত করে পালিয়ে যায় সাব্বির এবং তার দুই সহযোগী রিয়েল ও তারেক। চাকুর আঘাতে তার নাকের নিচের অনেকটা অংশ কেটে যায়।

পরে সহপাঠি ও অন্যরা মিলে মেহেদী হাসান জয়কে উদ্ধার করে কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

এদিকে ঘটনার খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে সাব্বির এবং তার দুই সহযোগী রিয়েল ও তারেককে ধরতে বিভিন্ন এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে। পুলিশের অভিযানে দুপুর ১২টার দিকে তারেক আটক হয়।

মেহেদী হাসান জয়ের হত্যাকাণ্ডের বিষয়টি জানাজানি হওয়ার পর সহপাঠি ও স্বজনেরা কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল মর্গের সামনে ভীড় করেন। এ সময় স্বজনদের কান্না আর আহাজারিতে ভারি হয়ে ওঠে সেখানকার পরিবেশ।

কিশোরগঞ্জ সদর মডেল থানার ওসি মো. আবুবকর সিদ্দিক জানান, সিনিয়র-জুনিয়র দ্বন্দ্বে হত্যাকাণ্ডের ঘটনাটি ঘটেছে বলে প্রাথমিকভাবে জানা গেছে। এ ঘটনায় অভিযুক্তদের মধ্যে তারেক নামে একজনকে অভিযান চালিয়ে আটক করা হয়েছে। বাকিদের ধরতে তারা অভিযান অব্যাহত রেখেছেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর