কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জে যুবলীগ কর্মী মনি হত্যায় আরেক আসামির স্বীকারোক্তি


 বিশেষ প্রতিনিধি | ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, রবিবার, ৯:২৪ | কিশোরগঞ্জ সদর 


কিশোরগঞ্জে যুবলীগ কর্মী একেএম ইউসুফ মনি (৪২) কে কুপিয়ে হত্যা ও তার ছোট ভাই কিশোরগঞ্জ পৌরসভার ৬নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ইয়াকুব সুমন (৩৬) কে গুরুতর আহত করার ঘটনায় তানিম (২০) নামে আরেক আসামি আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দিয়েছে। শনিবার (৯ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যায় কিশোরগঞ্জের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. রফিকুল বারী তাঁর খাসকামরায় ১৬৪ ধারায় তানিমের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি গ্রহণ করেন।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কিশোরগঞ্জ সদর মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মোহাম্মদ আহসান হাবীব আদালতে তানিমের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়া তানিম কিশোরগঞ্জ শহরের আখড়াবাজার পিটিআই গলি এলাকার বাচ্চু মিয়ার ছেলে। তানিম তার স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে সন্ত্রাসী ওই হামলায় অংশ নেয়ার বিশদ বিবরণ দিয়েছে। জবানবন্দি রেকর্ড শেষে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়।

তানিম ছাড়াও আলোচিত এই হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় এর আগে গত বৃহস্পতিবার (৭ ফেব্রুয়ারি) সজিব আহমেদ নামে আরেক আসামি আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়ে সন্ত্রাসী ওই হামলায় জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে।

এর আগে শুক্রবার (৮ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় শহরের নগুয়া ভাওয়ালিয়াবাড়ি এলাকা থেকে তানিমকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। এই নিয়ে মনি হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় মোট ১০ আসামি গ্রেপ্তার হলো। এর আগে ইমন খান (১৭), জয় পাল (২২), আশিক (১৮), সিয়াম হোসেন শুভ্র (২০), তানিম (২৫), রাব্বী (১৯), সজিব আহমেদ (১৯), আশিকুর রহমান রিয়াদ (১৯) ও রাসেল মিয়া (২৮) এই নয় জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল।

কিশোরগঞ্জ জেলা শহরের প্রাণকেন্দ্র রথখলা ঈশা খাঁ রোডের আট শতাংশ জায়গার মালিকানা নিয়ে দ্বন্দ্বের জের ধরে গত ২৫শে জানুয়ারি রাত পৌনে ৯টার দিকে সেখানকার মাধবী প্লাজা এলাকায় শতাধিক অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী কিশোরগঞ্জ পৌরসভার ৬নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ইয়াকুব সুমনের ওপর হামলা চালায়।

খবর পেয়ে কাউন্সিলরের বড় ভাই যুবলীগের সক্রিয় কর্মী একেএম ইউসুফ মনি সেখানে গেলে তার উপরও চড়াও হয় সন্ত্রাসীরা। এ সময় মনি আত্মরক্ষার জন্য দৌড়ে মাধবী প্লাজার তিন তলার সিঁড়ির ওপরে ওঠার চেষ্টা করলেও সন্ত্রাসীরা সিঁড়ির ওপরেই তার ওপর হামলে পড়ে। চাপাতি-রামদা দিয়ে নৃশংসভাবে কুপিয়ে তারা ক্ষতবিক্ষত করে মনিকে। পরে সেখানে মুমূর্ষু মনিকে ফেলে রেখে চলে যাওয়ার সময় মার্কেটটির সামনে রাখা বেশ কয়েকটি গাড়ি ভাঙচুর করে তাণ্ডব চালায় সন্ত্রাসীরা। এছাড়া মনি ও সুমনের আখড়াবাজারের বাসায় গিয়ে সেখানেও ভাঙচুর করে।

অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীদের অনেকের মুখোশ পড়া ছিল। তারা চলে যাওয়ার পর স্থানীয়রা দুই ভাইকে উদ্ধার করে কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে অবস্থার আরও অবনতি হওয়ায় তাদেরকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়। ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পর রাত ১১টা ১০মিনিটের দিকে কর্তব্যরত চিকিৎসক মনিকে মৃত ঘোষণা করেন।

এ ঘটনায় নিহত একেএম ইউসুফ মনি’র স্ত্রী মোছা. আবেদা আক্তার শিখা বাদী হয়ে গত ২৭শে জানুয়ারি কিশোরগঞ্জ সদর মডেল থানায় ১২ জনের নামোল্লেখ ও অজ্ঞাতনামা ৪০/৫০ জনকে আসামি করে মামলা করেন।

কিশোরগঞ্জ সদর মডেল থানার ওসি মো. আবুবকর সিদ্দিক পিপিএম বলেন, মামলার অপর আসামিদের ধরতেও পুলিশ কাজ করছে। শীঘ্রই ইতিবাচক ফল মিলবে বলেও তিনি মন্তব্য করেন।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর