কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


নানা আয়োজনে আমতলী স্কুলের শিক্ষামেলা অনুষ্ঠিত


 স্টাফ রিপোর্টার | ১ মার্চ ২০১৯, শুক্রবার, ১২:১৮ | সারাদেশ 


দেয়ালে শোভা পাচ্ছে বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, কাজী নজরুল ইসলাম থেকে শুরু করে বরেণ্য শিল্পী, সাহিত্যিক, অভিনেতা, রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বসহ বিশ্বের অসংখ্য গুণীদের ছবি। টেবিলে টেবিলে সাজানো রয়েছে স্কুলের শিক্ষার্থীদের হাতের সুন্দর লেখা, কাঠের তৈরি শিল্পকর্ম, মাটির চুলা, গানের সিডি ও বাংলাদেশের জন্মকথার  ওপর প্রামাণ্য চিত্রের সিডি, বাঁশের তৈরি কৃষকের মাথালী, হরিকেন, হ্যাজাকসহ আগেকার দিনের বাদ্যযন্ত্র সামগ্রী।

অন্যদিকে মঞ্চ থেকে ভেসে আসছে সুললিত কণ্ঠে ‘আগে কি সুন্দর দিন কাটাইতাম’, ‘ আছেন আমার মোক্তার’সহ লোকজ গান।

নাচ, গান, কবিতা, কৌতুক, চিত্র প্রদর্শনী আর কথামালায়  ঢাকায় শেষ হলো আমতলী মডেল স্কুলের তিন দিনব্যাপী শিক্ষামেলা।

ঢাকার শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় চিত্রশালা প্লাজায় আয়োজিত ‘বগুড়া থেকে ঢাকা’ প্রতিপাদ্যে এ শিক্ষামেলা শুরু হয় ২৫ ফেব্রুয়ারি। বুধবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) ছিল শিক্ষামেলার শেষ দিন।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী। তিনি তাঁর বক্তব্যে বলেন, বাংলা ভাষাই আমাদের স্বাধীনতা যুদ্ধের মৌলিক চেতনা। ভাষা আন্দোলনকে কেন্দ্র করেই আমরা রক্তক্ষয়ী মুক্তিযুদ্ধ করেছি। মহান মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়বার জন্যই বীর ভাষা শহীদদেরা আমাদের সাহস যুগিয়েছে। আর বাংলা ভাষা ও সংস্কৃতি রক্ষায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। সেই উদ্যোগে আমতলী মডেল স্কুল এক অংশগ্রহণকারী প্রতিষ্ঠান।

বিশেষ অতিথি ছিলেন মন্ত্রী পরিষদের অতিরিক্ত সচিব রেজাউল আহসান, ঢাকা জেলার এডিসি আবুল ফাতেহ্ মোহাম্মদ সফিকুল ইসলাম, কাঞ্চন পৌরসভার মেয়র দেওয়ান আবুল বাশার বাদশা ও একুশে পদক প্রাপ্ত কণ্ঠশিল্পী মোহম্মদ খুরশিদ আলম।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন আমতলী মডেল স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা ও  শিক্ষামেলা উদযাপন কমিটির সভাপতি মীর লিয়াকত আলী।

শুরুতে ছিল সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। এ পর্বের শুরুতে ‘কেমনে ভুলিব আমি’ গানটি পরিবেশন করেন হীরা। পরে শিল্পী সোমার কণ্ঠে পরিবেশিত হয় একক গান। আলমিনা আক্তার নিতু পরিবেশন করেন একক গান ‘তুমি বিনে আকুল পরান থাকতে চায়না ঘরেতে’। শিল্পী আহাদ চৌধুরীর কণ্ঠে পরিবেশিত হয় আধুনিক গান ‘আছেন আমার মোক্তার আছেন আমার বারিস্টার’।

অনুষ্ঠানে কৌতুক পরিবেশন করেন চিকন আলী। জাদুশিল্পী যুবরাজ ও রাজ্জাকের মোহময় জাদুতে মুগ্ধ হয় দর্শক। এরপর ‘ঝুমুর ঝুমুর নুপুর বাজে’ গানের সঙ্গে নৃত্য পরিবেশন করেন শিল্পী হীরা আক্তার।

পরপর দুটি জনপ্রিয় গান পরিবেশন করেন শিল্পী শহীদুল্লাহ গাজী। তার পরিবেশনায় ছিল ‘ইষ্টিশনের রেলগাড়ীটা’ ও ‘গ্রামের নওজোয়ান...।’ ‘ময়না ছলাৎ ছলাৎ’ গানের সঙ্গে দ্বৈত নৃত্য পরিবেশন করেন শিশু শিল্পী সামিয়া ও নুহী। এছাড়া অনুষ্ঠানে একক সঙ্গীত পরিবেশন করেন শিল্পী রেখা সুফিয়ানা, রহিমা খাতুন ও রুবেল মাহমুদ।

এরপর মীর লিয়াকত আলীর রচনা এবং সুমন মজুমদারের পরিচালনায় মঞ্চস্থ হয় নাটক ‘প্রতিজ্ঞা’।

অনুষ্ঠানের এক পর্যায়ে বই পড়া ও  সাধারণ জ্ঞান প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারী ২০ শিক্ষার্থীকে পুরস্কৃত করা হয়। ঢাকাস্থ শিবগঞ্জ উপজেলা কল্যাণ সমিতি এই পুরস্কার প্রদান করে।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন সমিতির আহবায়ক  এ জেড এম (ডা:) মাইনুল ইসলাম, সদস্য সচিব রফিকুল ইসলাম, আব্দুল আলীম, স্কুলের পরিচালক মীর মহরম আলী, প্রধান শিক্ষক আলমগীর হোসেন, মেলা উদযাপন কমিটির সাধারণ সম্পাদক, সাংবাদিক লেখক লায়ন মীর আব্দুল আলীম প্রমুখ।

আলোচনা অনুষ্ঠানে বক্তারা বগুড়ার আমতলী মডেল স্কুলের সাফল্যের বিভিন্ন দিক তুলে ধরে বলেন, প্রত্যন্ত পল্লীতে গড়ে ওঠা আমতলী মডেল স্কুল এবার নিজস্ব গন্ডি পেরিয়ে রাজধানী ঢাকার বুকে প্রথমবারের মতো নিজেদের পথচলা, শিক্ষা উপকরণ, শক্তিসম্ভার, সাফল্য এবং আত্মগাথাসহ সামগ্রিক বিষয় তুলে ধরেছে সগৌরবে। প্রতিষ্ঠানটি ইতোমধ্যে এলাকার মানুষের মন জয় করে সর্বস্তরের মানুষের প্রশংসা কুড়িয়েছে। গ্রামের বাঁশঝাড়ের ছায়াতলে প্রতিষ্ঠিত স্কুলটি কীভাবে একের পর এক সাফল্য অর্জন করে চলেছে এ শিক্ষামেলা তারই প্রকৃষ্ট উদাহরণ।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর