কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


আখেরী মোনাজাতের মধ্য দিয়ে নন্দীপুরে মিনি মহিলা ইজতেমা সমাপ্ত


 নেত্রকোনা সংবাদদাতা | ১৯ জানুয়ারি ২০২০, রবিবার, ১:৫৪ | ময়মনসিংহ-নেত্রকোনা 


‘আমিন, আমিন’ ধ্বনিতে মুখরিত টঙ্গীর তুরাগ নদীর পাড়ে বিশ্ব ইজতেমার সাথে তাল মিলিয়ে নেত্রকোনা সদর উপজেলার মদনপুর ইউনিয়নের নন্দীপুর গ্রামে রোববার (১৯ জানুয়ারি) সকাল ১১টায় আখেরী মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হয়েছে তিন দিনব্যাপী মিনি মহিলা ইজতেমা।

গত শুক্রবার (১৭ জানুয়ারি) জুমআর নামাজের পর মহিলা ইজতেমা শুরু হয়। রোববার (১৯ জানুয়ারি) শেষ দিনে মিনি মহিলা ইজতেমায় আখেরী মোনাজাত পরিচালনা করেন মহিলা ইজতেমার মুরব্বী জেসমিন আক্তার।

মোনাজাতে তিনি মুসলিম উম্মাহর ঐক্য, সহমর্মিতা, ভ্রাতৃত্ববোধ, সুখ, শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনা করেন।

তিন দিনব্যাপী এই ইজতেমায় আম বয়ান করেন ময়মনসিংহ জেলার ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার নূর নাহার বেগম, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেলার পারভীন আক্তার, নেত্রকোনা সদর উপজেলার মদনপুর গ্রামের হাসফুন্নাহার বেগম, অনন্তপুর গ্রামের মনোয়ারা বেগম, গাড়া গ্রামের জেসমিন আক্তার, তিয়শ্রী গ্রামের খাদিজা আক্তার ও আটপাড়া উপজেলার সামছুন্নাহার বেগম।

নন্দীপুর গ্রামের ধর্মপ্রাণ তাবলীগ জামাত কর্মী ইসমত আলী প্রতি বছর বিশ্ব ইজতেমায় যোগদান করে এলাকায় এসে মুসলমানদের কাছে ইসলামের প্রকৃত শিক্ষা গ্রহণ ও ঈমান আখলাক আমল করার দাওয়াত দিতেন।

তারই পরামর্শে তার স্ত্রী তারা বানু আজ থেকে ৩৮ বছর পূর্বে নিজ বাড়ীতে আশপাশের মহিলাদের নিয়ে মহিলা ইজতেমা শুরু করেন। দিন দিন এর প্রসার লাভ করে।

তারা বানু’র মৃত্যুর পর মায়ের আদেশে তার ছেলে আলী উছমান জাকারিয়া নিজ উদ্যোগে প্রতি বছর মহিলা ইজতেমার আয়োজন করে আসছেন।

মহিলা ইজতেমায় নেত্রকোনা, ময়মনসিংহ, কিশোরগঞ্জ শেরপুর, জামালপুর ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে প্রতি বছর হাজার হাজার মহিলা যোগদান করেন।

ইজতেমার আয়োজক আলী উছমান জাকারিয়া মহিলা ইজতেমায় আগত মহিলাদের অজু, গোসল ও পয়ঃনিস্কাশনের জন্য প্রয়োজনীয় পানীয় জল, পর্যাপ্ত টয়লেট ও ইবাদত বন্দেগী করার জন্য অবকাঠামো নির্মাণের জন্য স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও প্রশাসন, জেলা পরিষদসহ সরকারের সুদৃষ্টি কামনা করেছেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর