কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ভৈরবে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে নিহত ২


 আফসার হোসেন তূর্জা, ভৈরব | ১৭ এপ্রিল ২০২১, শনিবার, ৬:৩৮ | ভৈরব 


কিশোরগঞ্জের ভৈরবে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দুই দফা সংর্ঘষে একই বংশের দুইজন নিহত হয়েছেন। এতে দুই পক্ষেরই আহত হয়েছেন অন্তত ৩০ জন। ঘটেছে শতাধিক ঘরবাড়ি ভাঙচুর ও লুটের ঘটনা।

আহতদের মধ্যে পাঁচজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। তাদের উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

শনিবার (১৭ এপ্রিল) সকাল ও দুপুরের দিকে ভৈরব উপজেলার আগানগর ইউনিয়নের লুন্দিয়া গ্রামে পৃথক এই সংঘর্ষের খবর পেয়ে পুলিশ ও র‌্যাব ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে।

এর মধ্যে সকাল ৯টার দিকে লুন্দিয়া গ্রামের শেখ বাড়ির সাথে লুন্দিয়া সিকদার বাড়ির মাজু মেম্বার গ্রুপের সংর্ঘষ হয়। এতে নিহত হয়েছেন মৃত শেখ মোতালিব মিয়ার ছেলে শেখ মকবুল (৪০)।

অপরদিকে বেলা ১২টার দিকে লুন্দিয়া শেখ বাড়ির সাথে পাগলার বাড়ির সংর্ঘষ হয়। এতে নিহত হয়েছে শেখ খালেক মিয়ার ছেলে শেখ পাবেল (২৮)।

নিহত দুইজন একই বংশের লোক।

এছাড়া আহতরা হলেন, লুন্দিয়া এলাকার ধন মিয়ার ছেলে খাইরুল (৩৬), আবু তাহের মিয়ার ছেলে ইকবাল মিয়া (৩০), রউফ মিয়ার স্ত্রী বিপাশা (২৮), নিহত মকবুলের স্ত্রী শেফালি (৩০), শহিদ মিয়ার ছেলে হৃদয় মিয়া (২৪), ইদ্রিস মিয়ার ছেলে খাইরুল (২৪), মৃত নুরুল ইসলামের ছেলে মুছা মিয়া (৪০), উসমান মিয়ার ছেলে শিবলী (৩৫), মজনি মিয়ার ছেলে কালা মিয়া (৪৫) প্রমুখ।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, দুই গ্রামের দুই বংশের আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে শনিবার (১৭ এপ্রিল) সকাল ৯টার দিকে লুন্দিয়া খলাপাড়া গ্রামে শিকদার বাড়ী ও শেখ বাড়ীর মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়।

তারপর দুপুর ১২টার দিকে পুনরায় লুন্দিয়া গ্রামে পাগলা বাড়ী ও শেখ বাড়ীর মধ্য সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়ে।

খলাপাড়া এলাকার আহত শেখ কালা মিয়া জানান, গ্রামে দুই পক্ষের আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে এই ঘটনাটি ঘটে। দীর্ঘদিন যাবত পক্ষ দুইটি গ্রামের নানা কাজে আধিপত্য বিস্তারের চেষ্টা করছিল।

শনিবার (১৭ এপ্রিল) সকালে ধান মাড়াইকে কেন্দ্র করে প্রথমে ঝগড়ার সৃষ্টি হয় বলে তার দাবি।

তারপর দ্বিতীয় দফায় দুপুর ১২টার দিকে আবারও দুই পক্ষ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়লে দুইজন নিহত হয় বলে তিনি জানান।

ভৈরব থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) কাজী মাহফুজ হাসান সিদ্দিক জানান, দুই গ্রামের আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে এই সংঘর্ষের সৃষ্টি হয়েছে। সংঘর্ষের সময় দেশীয় অস্ত্রের আঘাতে তারা দুইজন মারা গেছেন।

লাশের সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি করা হয়েছে। ঘটনাস্থলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে র‌্যাব-পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এ ঘটনায় যথাযথ আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও তিনি জানান।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর