কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


হলুদ তরমুজের চাষ করে বাজিমাত


 সাখাওয়াত হোসেন হৃদয় | ২৩ এপ্রিল ২০২১, শুক্রবার, ১:০৫ | কৃষি 


কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া উপজেলায় হলুদ রংয়ের তরমুজ চাষ করা হয়েছে। প্রথমবারের মতো এ রংয়ের তরমুজ চাষ করে চমক লাগিয়েছেন ইসমাইল হোসেন নামের এক যুবক। কীটনাশক ব্যবহার না করায় এটি সম্পূর্ণ বিষমুক্ত।

এ তরমুজ খেতে সুস্বাদু। বাইরে হলুদ ভেতরে টকটকে লাল। নতুন জাতের ও রংয়ের এ তরমুজ দেখতে উৎসুক লোকজন ভীড় করছেন। এ তরমুজ চাষে অন্যান্য কৃষকদের মধ্যেও আগ্রহ দেখা দিয়েছে।

ইসমাইল হোসেন উপজেলার এগারসিন্দুর ইউনিয়নের দাওরাইট গ্রামের ছবির উদ্দিনের ছেলে।

জানা গেছে, পড়ালেখা শেষ করে বেকার ছিলেন ওই যুবক। করোনার এমন পরিস্থিতিতে বসে না থেকে তিন কিছু একটা করার চিন্তা করেন। আঙিয়াদী ব্লকের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা হামিমুল হক সোহাগের পরামর্শে ও উপজেলা কৃষি বিভাগের সহযোগিতায় তিনি তার পৈত্রিক জমিতে হলুদ রংয়ের তরমুজ চাষাবাদ শুরু করেন।

প্রথম অবস্থায় ২৫শতক জমিতে তিনি এর চাষ শুরু করেন। প্রথমবারেই বেশ ফলন হয়েছেন। ওই জমিতে তার চারশ’র মতো গাছ রয়েছে। যার প্রতিটিতে ৪-৫টি করে তরমুজ এসেছে।

অল্প সময়ে এ জাতের তরমুজ চাষে যে পরিমাণ ফলন এসেছে তা থেকে তিনি ভালো লাভবান হবেন বলে আশা করা হচ্ছে।

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, উদ্যোক্তা তৈরি করার লক্ষ্যেই ওই বেকার যুবককে উদ্বুদ্ধ করা হয়েছে। প্রথমবারের মতো হলুদ রংয়ের তরমুজ চাষাবাদ করে তিনি সফলতাও পেয়েছেন।

জমিতে কীটনাশক ব্যবহারের পরিবর্তে ফেরোমেন ও ইয়েলো ট্যাপ ব্যবহার করা হয়েছে। এতে পোকা-মাকড় ও রোগ-বালাইয়ের হাত থেকে ফসল রক্ষা পেয়েছে। ফলনও বেশ ভাল হয়েছে।

সম্পূর্ণ বিষমুক্ত এ তরমুজ খেতে মিষ্টি। দেখতে সুন্দর। পরিপক্ক প্রতিটি তরমুজ ৩-৪কেজি পর্যন্ত ওজন হয়ে থাকে।

এর আগে সবুজ ও ছোপছোপ রংয়ের তরমুজ চাষ হলেও এ উপজেলায় হলুদ রংয়ের তরমুজ চাষ এই প্রথম। এটি ‘গোল্ডেন ক্রাউন’ জাত হিসেবে পরিচিত।

এ বছর উপজেলার শ্রীরামদী, সৈয়দগাঁও ও দাওরাইট গ্রামের চার বিঘা জমিতে এ জাতের তরমুজ চাষ করা হয়েছে। এটি ৮০-৮৫দিনের ফলন। এর মধ্যে চাষাবাদ শুরু হয়ে পরিপক্ক হয়ে বিক্রির উপযোগী হয়ে যায়।

সরেজমিনে দাওরাইট গ্রামের ইসমাইল হোসেন এর জমিতে গিয়ে দেখা গেছে, জমির চারপাশে নেট দিয়ে বেড়া দেওয়া হয়েছে। মাচা পদ্ধতিতে হলুদ রংয়ের তরমুজ চাষ করা হয়েছে। প্রতিটি মাচা নেট দ্বারা আবৃত।

পোকা-মাকড় আক্রমণ করতে না পারে সেজন্য মাচার মাঝখান দিয়ে ফেরোমেন ও ইয়েলো ট্যাপ লাগানো। মাচার ভেতরে ঢুকতেই দেখা যায় শতশত তরমুজ। তরমুজে মাচাগুলো ভরপুর।

প্রতিটি গাছে চার থেকে পাঁচটি করে ঝুলে আছে। একেকটি তরমুজ দুই থেকে আড়াই কেজি ওজনের মতো হবে। প্রত্যেকটি নেট দ্বারা আবৃত করে রাখা হয়েছে।

তরমুজ চাষী ইসমাইল হোসেন বলেন, পড়ালেখা শেষ করে বাড়িতেই ছিলাম। বসে না থেকে কিছু একটা করার চিন্তা করি। আমাদের ব্লকের দায়িত্বপ্রাপ্ত উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা হামিমুল হক সোহাগ ভাইয়ের পরামর্শে ২৫শতক জমিতে হলুদ রংয়ের তরমুজ চাষ শুরু করি।

এতে প্রথমবারই আমি সফল হই। আমার জমিতে প্রায় চারশ গাছ রয়েছে। যার প্রতিটিতেই ৪-৫টি করে তরমুজ ধরেছে। পুরোদমে পরিপক্ক হতে সপ্তাহ খানেক লাগবে।

এতে আমার সবমিলিয়ে প্রায় ৩৫ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। যে পরিমাণ ফলন হয়েছে তা বিক্রি করে আমি লাভবান হব বলে আশা করছি।

ইসমাইল আরও বলেন, এ রংয়ের তরমুজ চাষ এলাকায় প্রথম। তাই এটি দেখার জন্য প্রতিদিন উৎসুক লোকজন ছুটে আসছেন।

আঙিয়াদী ব্লকের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা হামিমুল হক সোহাগ বলেন, বেকার যুবকদের উদ্যোক্তা হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষে চাষাবাদে উদ্বুদ্ধ করা হয়েছে। কৃষি বিভাগ থেকে ওই যুবককে পর্যাপ্ত পরামর্শ ও সহযোগিতা করা হয়েছে। এতে প্রথমবার চাষাবাদে সে সাফল্য পেয়েছে। এতে সে বেকারত্ব মোচন করে আর্থিকভাবে লাভবান হবে।

এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ মো. সাইফুল হাসান আলামিন বলেন, শিক্ষিত তরুণরা চাষাবাদে এগিয়ে এলে এ সেক্টর আরও সমৃদ্ধ হবে। পাশাপাশি বেকারত্ব থেকে মুক্তি লাভ করে উদ্যোক্তা হবে। এতে ব্যক্তি, সমাজ ও দেশ উপকৃত হবে। ওই যুবকের সাফল্য দেখে অন্যরাও আগ্রহ দেখাচ্ছেন। এতে আগামিতে এ উপজেলায় হলুদ রংয়ের তরমুজ চাষ আরও বাড়বে।

ভিডিও:




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর