কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


পাকুন্দিয়ায় চায়না লিচু চাষ করে ‘লাখপতি’ আলাল উদ্দিন



 সাখাওয়াত হোসেন হৃদয় | ২৪ মে ২০২১, সোমবার, ৮:৪৭ | কৃষি 



পেশায় কৃষক। ছোটখাটো ব্যবসাও রয়েছে। বাড়তি আয় পেতে ৮-১০ বছর আগে শুরু করেন লিচু চাষের। এরপর আর পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি ওই কৃষকের। প্রতিবছর বেড়েই চলছে তার লিচু বাগানের পরিধি।

শুরুতে অল্প সংখ্যক জমিতে লিচু চাষ করলেও এখন তিনি তাঁর চার বিঘা জমিতে লিচু চাষ করছেন। এ থেকে বছরে লাখ টাকার উপরে আয় হচ্ছে তাঁর।

বলছি, কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া উপজেলার এগারোসিন্দুর ইউনিয়নের তালদর্শী গ্রামের কৃষক আলাল উদ্দিনের কথা।

গত কয়েক বছর ধরে তিনি চায়না-৩ জাতের লিচু চাষ করে বাজিমাত করেছেন। লিচুর মৌসুমে লিচু। অন্য মৌসুমে লিচুর চারা বিক্রি করে লাভবান হচ্ছেন এই কৃষক।

সরেজমিনে আলাল উদ্দিনের লিচু বাগানে গিয়ে দেখা গেছে, মাটি থেকে ৮-৯ ফুট লম্বা লিচু গাছ। অধিকাংশ গাছের লিচু শেষ হয়েছে।  বাকি রয়েছে বেশ কিছু।

আকারে বড়, গোলাপি বর্ণের লিচু ঝুলে রয়েছে গাছে। সবুজ পাতার আড়ালে লাল-গোলাপি বর্ণের লিচু মন ভরিয়ে দেয়।

ওই বাগানের ভেতর কয়েকজনকে নিয়ে লিচু বাঁধাই করছেন আলাল উদ্দিন। সেখানেই কথা হয় তাঁর সাথে।

লিচু চাষি আলাল উদ্দিন জানান, তিনি ৮-১০ বছর আগে এগারোসিন্দুর ব্লকের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা মোশারফ হোসেনের পরামর্শ ও সহযোগিতায় চায়না-৩ জাতের লিচু চাষ শুরু করেন।

প্রথমে অল্প সংখ্যক জমিতে এর বাগান করলেও এখন বাণিজ্যিকভাবে চাষ করা হচ্ছে। চার বিঘা জমির তিনটি বাগানে এ জাতের লিচু চাষ করেছেন। এতে কয়েশত লিচু গাছ রয়েছে। প্রতি বছর লিচু চাষ থেকে তিনি দুই লক্ষাধিক টাকা আয় করে থাকেন।

তিনি আরও জানান, লিচু চাষের জন্য পানি ও গোবর কিনতে হয় না। এছাড়া কীটনাশকের প্রয়োগ হয় কম। এছাড়া বাড়তি কোনো খরচ নেই।

এসব বাগানে তাঁর মাত্র ১০-১২ হাজার টাকা খরচ হয়ে থাকে। অল্প খরচে তিনি প্রতিবছর ভালো টাকা লাভ করে থাকেন। তাই দিনদিন লিচুর আবাদ বাড়াচ্ছেন।

এছাড়া লিচুর মৌসুম ছাড়া লিচু গাছের চারা বিক্রি করেও বাড়তি টাকা আয় হচ্ছে তাঁর।

চায়না জাতের লিচু চাষে কৃষক আলাল উদ্দিনের সফলতা দেখে এলাকার অন্য কৃষকেরাও আগ্রহ দেখাচ্ছেন। তারাও বাণিজ্যিকভাবে এ জাতের লিচু চাষ শুরু করেছেন।

এগারোসিন্দুর ব্লকের দায়িত্বপ্রাপ্ত উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা মো. মোশারফ হোসেন বলেন, ‘চায়না-৩ জাতের লিচু সাইজে বড়। আঁটি ছোট। রসালো। খেতে সুস্বাদু। এ জাতের লিচু বেশ সাড়া ফেলেছে।

দূর-দূরান্ত থেকে লোকজন এ লিচু কিনতে আসছেন। ৮-১০ বছর আগে জেলা কৃষি বিভাগের মাধ্যমে জামালপুর থেকে এ জাতের লিচু চারা সংগ্রহ করা হয়।

পরে কৃষক আলাল উদ্দিনকে উদ্বুদ্ধকরণের মাধ্যমে বাণিজ্যিকভাবে এর চাষ শুরু হয়। এখন আলাল উদ্দিন ছাড়াও অন্যান্য এলাকায় বাণিজ্যিকভাবে এ জাতের লিচুর চাষ শুরু হয়েছে।’

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ সাইফুল হাসান আলামিন বলেন, ‘চায়না-৩ জাতের লিচু চাষ বেশ লাভজনক। কৃষক আলাল উদ্দিন এই জাতের লিচু চাষে লাভবান হয়েছেন। কৃষি বিভাগ থেকে তাঁকে পর্যাপ্ত পরামর্শ ও সহযোগিতা প্রদান করা হয়েছে।’


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর