কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


একজন আদর্শিক সম্পাদককে হারিয়ে বেদনাহত



 মাজহার মান্না | ২৩ এপ্রিল ২০২১, শুক্রবার, ৬:০৩ | মত-দ্বিমত 



স্বাধীন বাংলাদেশে রয়েছে গণতান্ত্রিক মতাদর্শের ব্যবহার। রয়েছে গুণীজনদের কদর। অনেক রক্ত, ত্যাগ-তিতীক্ষার বিনিমিয়ে অর্জিত হয়েছে প্রাণের স্বাধীন এই বাংলাদেশ। কিন্তু স্বাধীনতার এতবছর পরে এসেও মুক্তিযুদ্ধের প্রকৃত ইতিহাস নিয়ে রয়েছে নানা তর্ক-বিতর্ক।

তবুও আমরা পেয়েছি স্বদেশ। পেয়েছি নিজস্ব স্বকীয়তা। এছাড়াও বিশ্ব দরবারে মাথা উঁচু করে দাঁড়ানোর সুযোগ। মুক্তিযুদ্ধের সময় আমরা হারিয়েছি আমাদের বরেণ্য বুদ্ধিজীবীদের। পাক হানাদার বাহিনীরা বাঙালি জাতি যেন মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে না পারে, সে লক্ষ্যে কেঁড়ে নিয়েছে অমর রত্নগুলো।

তবুও দীর্ঘ ৫০ বছরে জন্ম নিয়েছে অনেক জ্ঞানীগুণী। তেমনি একজন হলেন মুক্তিযুদ্ধের লড়াকু সৈনিক দৈনিক জনকণ্ঠের সম্পাদক, মুদ্রাকর ও প্রকাশক আতিক উল্লাহ খান মাসুদ। তিনি এখন আর আমাদের মাঝে বেঁচে নেই। গত ২২ মার্চ ভোররাতে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। ইন্নালিল্লাহি ... রাজিউন।

আতিক উল্লাহ খান মাসুদ মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়ে দেশকে যেমন হানাদারমুক্ত করেছেন; তেমনি সততা, নিষ্ঠা আর মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে অবিচল ছিলেন। রক্তচক্ষুকে উপেক্ষা করে অনেক প্রতিকূল পরিস্থিতির মুখেও তিনি মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, অসাম্প্রদায়িকতা, মৌলবাদ ইস্যুতে কোনো আপস করেননি। এমন একজন সাহসী সম্পাদকের চিরবিদায়ে আমরা এখন বেদনাহত। প্রকৃত অর্থে আমার আদর্শিক একজন সম্পাদককে হারিয়ে আমি মুহ্যমান, হতবাক ও বেদনাবিধূর।

১৯৯৩ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি জনকণ্ঠ পত্রিকা প্রকাশের পর সংবাদ সংগ্রহ ও পরিবেশনা এবং রঙিন ছাপার কারণে গ্রহণযোগ্যতা ছিল অনেক বেশি। এই দৈনিকের বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ প্রকাশের কারণে পাঠকরা এটিকে তাঁদের কাঙিক্ষত ভরসাস্থল হিসেবে গণ্য করতে শুরু করে। বিশেষ করে পত্রিকাটির নীতিগত লেখায় আদর্শিক ও মানবিক গুণাবলীর বহিঃপ্রকাশ দেখে নানা শ্রেণি পেশার মানুষ তখন এটিকে আনন্দচিত্তে গ্রহণ করে।

জনকণ্ঠ প্রতিষ্ঠার পর সম্পাদক তাঁর একান্ত ইচ্ছায় সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে কিছু করার চেষ্টা করেন। সেই লক্ষ্যে তিনি সমাজে পিছিয়ে থাকা ও অনগ্রসর জনগোষ্ঠীর জন্য কাজ শুরু করেন। পাশাপাশি যারা অর্থাভাবে চিকিৎসা করতে পারছিলেন না, তাঁদের জন্য তিনি পত্রিকায় ‘মানুষ মানুষের জন্য’ প্রথম পৃষ্ঠার প্রথম কলামটি ছাপানোর উদ্যোগ নেন। এ কলামটিতে অসহায়দের সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিতে সমাজের বিত্তশালী ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের প্রতি আবেদন-নিবেদন আর অনুনয় বিনয় দিয়ে লেখা পাঠককে আকৃষ্ট করে তুলেছিল।

তবে এ কথা ঠিক, সাহায্য প্রার্থীরাও সঠিক তথ্য, ডাক্তারের পরামর্শ ও ব্যয়বহুল চিকিৎসার বিষয়টি যদি সার্বিকভাবে সত্যের মাপকাঠিতে তুলে আনতে না পারলে এ কলামটিতে জায়গা পেত না। কারণ নিষ্ঠার সঙ্গে এ কলামটি পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে পরীক্ষা-নিরীক্ষার পরই এমনকি ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে লেখা হতো। এখনও পর্যন্ত এ কলামটি পাঠকের কাছে তুমুল জনপ্রিয়। জনকণ্ঠ সম্পাদক আতিক উল্লাহ খান মাসুদ মানবিকতার সর্বশীর্ষে থেকে এ কলামটি উৎসর্গ করেছিলেন অসহায় গরিব-দুঃখীদের সহায়তার জন্য।

দৈনিক জনকণ্ঠের আরেকটি বৈশিষ্ট্য তুলে ধরতে তিনি পত্রিকার শিরোভাগে ‘প্যানেল নিউজ’ ছাপানোর ব্যবস্থা নেন। এখানে কোনো বিত্তশালী নয় বরং প্রতিভাবানদের নিয়ে এবং সুপ্ত প্রতিভার অধিকারী মানুষদের ফুটিয়ে তোলার প্রচেষ্টা চালানো হতো। প্রতিদিনই নতুন নতুন মুখ উঠে আসত ওই প্যানেল নিউজে। দেশের ৬৪টি জেলায় জনকণ্ঠের কর্মরত সাংবাদিকরাই প্রতিনিয়ত খুব আন্তরিকতার সাথে এটি তৈরি করে পাঠাতেন।

এছাড়াও সাপ্তাহিক ‘টেকনাফ থেকে তেঁতুলিয়া’ মফস্বল পাতায় তুলে ধরা হতো সারা দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলের নানাবিধ আকর্ষণীয় সব ফিচার। যা সব শ্রেণির পাঠকের দৃষ্টি কাড়ে।

আতিক উল্লাহ খান মাসুদ একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন বলেই নির্যাতনের মুখেও নীতির প্রশ্নে কখনও আপস করেননি, সবসময় অন্যায়ের প্রতিবাদ করে গেছেন। তাঁর অকাল মৃত্যুতে একজন গুণী ব্যক্তিত্বকে হারালো বাংলাদেশ, যা দেশের জন্য অপূরণীয় ক্ষতি হয়েছে। সাংবাদিক জগতে সাহসী ও ভালো লোকের প্রস্থানে আমরা একজন অভিভাবককে হারালাম। ভালো থাকুন ওপারে।

বজ্রকণ্ঠের দেশপ্রেমিক দৈনিক জনকণ্ঠ সম্পাদক আতিক উল্লাহ খান মাসুদের সঙ্গে আমার মাত্র দু’দিন কথা বলার সুযোগ হয়েছিল। গম্ভীর ওই কণ্ঠটি এখনও কানে বাজে। ভারী এ কণ্ঠ শুনলে চিরদিন মনে থাকবে।

২০১০ সালের প্রথমদিকে জনকণ্ঠে যখন কাজ শুরু করি তখন কিশোরগঞ্জ জেলায় আমাকে নিয়োগ না দিতে সম্পাদক বরাবর নামে-বেনামে বেশ কয়েকটি উড়ো চিঠি পাঠানো হয়। একপর্যায়ে কর্তৃপক্ষ লোক পাঠিয়েও এগুলোর সত্যতা খুঁজে পায়নি। এরপর হঠাৎই একদিন সন্ধ্যার পর জনকণ্ঠ অফিসের নম্বর থেকে আমার মোবাইলে কল আসে। রিসিভ করতেই একজন বললেন, সম্পাদক স্যার কথা বলবেন-লাইনে থাকেন। কিছুক্ষণ পর হ্যালো বলতেই, আমি সালাম দেয়া মাত্রই তিনি আমাকে কঠিন গলায় বললেন, ‘তোমার নামে এত অভিযোগ আসে কেন? তোমার বয়স কম, তুমি ঠিকমতো কাজ করতে পারবে তো? জি স্যার, পারবো’। শোনার পরপরই অপরপ্রান্ত থেকে ফোন রেখে দেয়া হয়।

দ্বিতীয়বার তিনি গত দুই বছর আগে একটি রিপোর্টিং বিষয়ে কথা বলেছিলেন। তাঁর নির্দেশে পরদিন সকালে সরেজমিনে রিপোর্ট সংগ্রহ করে ফোনে এ বিষয়ে দু’জনের অনেকক্ষণ কথা হয়েছিল। এরপর আর কখনো তাঁর সঙ্গে কথা বা দেখা হয়নি। তবে তাঁর বজ্রকণ্ঠের আলাপন এখনো আমার কানে বাজে। এ স্মৃতি ভুলবার নয়।

সবশেষে তাঁর বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করছি। আল্লাহ তাঁকে বেহেশত নসিব করুন।

# লেখক: নিজস্ব সংবাদদাতা (কিশোরগঞ্জ জেলা), দৈনিক জনকণ্ঠ।


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর