কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


করোনাকালীন পাঠদানে সম্ভাব্য শিক্ষক সংকট


 এম এ বাতেন ফারুকী | ১১ সেপ্টেম্বর ২০২১, শনিবার, ১:৪৪ | মত-দ্বিমত 



১২ সেপ্টেম্বর ২০২১ তারিখ থেকে সারা দেশে প্রাথমিক, মাধ্যমিকের স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসায় একযোগে শ্রেণিকক্ষে পাঠদান শুরু হবে। কিন্তু আমরা যারা মাঠপর্যায়ে দায়িত্ব পালন করে শ্রেণি কার্যক্রমকে ফলপ্রসূ করতে আপ্রাণ চেষ্টা করবো তাও দীর্ঘ দেড় বছর পর যে কাজটি করতে সত্যিকার অর্থেই শিক্ষক সমাজ মুখিয়ে আছে সে কাজটিই কিনা শুরুতেই হুমকির মুখে পড়ছে। বিষয়টি একটি বাস্তব উদাহরণ দিয়ে ব্যাখ্যা করার চেষ্টা করা যাক।

ধরুন, কোনো স্কুলে  ২০২১ সনের এসএসসি পরীক্ষার্থী ২৫০ জন এবং ২০২২ সনের এসএসসি পরীক্ষার্থী আছে ২৭০ জন ও অন্যান্য শ্রেণিতেও ২৫০ এর অধিক শিক্ষার্থী আছে।

এখন আসেন, গাইড লাইন অনুযায়ী ২০২১, ২০২২ সনের এসএসসি পরীক্ষার্থী ও অন্য একটি শ্রেণির শিক্ষার্থীরা প্রতিদিন স্কুলে আসবে এবং যদি তিনটি শ্রেণিকে তিন শিফটেও ক্লাস নেয়া হয় তবুও দেখা যাক কী কী সমস্যা হতে পারে। যদি প্রথম শিফটে শুধুই ২০২২ সালের এসএসসি পরীক্ষার্থীরা স্কুলে আসে তবে তাদের আসন ব্যবস্থা কেমন হবে দেখা যাক।

প্রায় সকল শ্রেণিকক্ষের ২৫*২৫ বর্গফুট মাপ অনুযায়ী প্রতি শ্রেণিতে ১৮ টি বেঞ্চ দেয়ার ব্যবস্থা আছে। যদি ২ জন করেও বসানো হয় তবে ২৫০ জনের মধ্যে ২০০ জন শিক্ষার্থীও যদি উপস্থিত থাকে তাদেরকে কমপক্ষে ছয়টি কক্ষে বসাতে হবে। আর যদি প্রতি বেঞ্চে একজন করে বসানো হয় তবে কক্ষ সংখ্যা লাগবে দ্বিগুণ অর্থাৎ বারোটি।

এখন ধরা যাক প্রথম ঘন্টা ওদের পদার্থ বিজ্ঞান /হিসাব বিজ্ঞান /ইতিহাস। যদি পরিক্ষার্থী তিন বিষয়ের বা দুই বিষয়ের কিংবা এক বিষয়ের বা গ্রুপের যেভাবেই বলি না কেন গড়পড়তায় ওই অবস্থায় প্রতি বিষয়ের জন্য ৫/৬ জন করে শিক্ষক লাগবে।

আর যদি এক গ্রুপের পরীক্ষার্থী হয় তবে তো কথাই নেই। অর্থাৎ ১২ জন পদার্থের শিক্ষক বা ১২ জন হিসাব বিজ্ঞান শিক্ষক কিংবা ১২ জন ইতিহাসের শিক্ষকের প্রয়োজন হবে।

এখন দেখা যাক দ্বিতীয় শিফটে ২০২২ সালের এসএসসি পরীক্ষার্থীরা ক্লাস করতে আসল। তাদের তো আর শুধু তিন বিষয়ে পরীক্ষা হবে না। ধরা যাক তাদের প্রথম ক্লাস ইংরেজি বা গণিত। এক্ষেত্রেও কি একেই সমস্যা হবে না?

সমস্যাটা খুলেই বলি। এখানে ১২/১৩ জন ইংরেজি শিক্ষক কিংবা সমসংখ্যক গণিত শিক্ষকের প্রয়োজন হবে। এভাবে প্রতিটি শ্রেণির বা প্রতিটি বিষয়ের ক্ষেত্রেই একেই সমস্যা হবে।

অবশ্য যদি একই পিরিয়ডে দুটি বিষয়ের ক্লাস ভাগ করে নেয়া যায় তখনই কেবল সমস্যাটা অর্ধেকে নামানো যাবে। যেমন, ১২ টা কক্ষের ৬ টিতে পদার্থ আর বাকি ৬ টিতে জীব বিজ্ঞান অথবা ৬ টি কক্ষে গণিত বাকি ৬ টি কক্ষে ইংরেজি পড়ালে সমস্যা অর্ধেকে নেমে আসবে। তবু সমস্যাটা চারগুণের জায়গায় কমপক্ষে দ্বিগুণ হারে মোকাবেলা করতে হবে।

এর বেশি আর লিখলাম না। বাংলাদেশের কয়টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে উল্লেখিত সংখ্যক বিষয় ভিত্তিক শিক্ষক আছে বলে মনে হয়? এ প্রশ্নটি রাখলাম।

বিষয় ভিত্তিক বাদই দিলাম। ইংরেজি, গণিত, পদার্থ বিজ্ঞান, জীব বিজ্ঞান, রসায়ন কিংবা হিসাব বিজ্ঞান পড়াতে সক্ষম এত শিক্ষক কি আছেন? লেখাটি শুধু বাস্তব তথ্য প্রদানের জন্য লেখা।

# এম এ বাতেন ফারুকী, লেখক ও শিক্ষক, প্রধান শিক্ষক, সৈয়দ হাবিবুল হক উচ্চ বিদ্যালয়, বৌলাই, কিশোরগঞ্জ সদর।


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর