কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


নীতি-নৈতিকতা সাংবাদিকের স্বাধীনতার রক্ষাকবচ


 মাজহার মান্না | ৫ আগস্ট ২০২১, বৃহস্পতিবার, ১:৫৩ | মত-দ্বিমত 



সময়টা মহামারির। অদৃশ্য মরণ ভাইরাস দাপিয়ে বেড়াচ্ছে পৃথিবীর চারপাশ। প্রতি পদে ঘুরে যাচ্ছে মৃত্যুর সার্চলাইট। বিশ্ব শান্তি প্রতিষ্ঠায় আন্তর্জাতিক উদ্বেগ এখন চরমে। মানুষ আজ একটি নতুন মানবিক বিশ্ব ব্যবস্থা প্রত্যাশা করছে। কিন্তু কোনোভাবে মানুষকে আর মানবিক করে তোলা যাচ্ছে না। এ পরিস্থিতিতে দেশ ও জাতির কল্যাণে গণ্যমাধ্যম অন্যতম ভূমিকা পালন করে যাচ্ছে।

বাংলাদেশে সংবাদপত্র এখন একটি শিল্প হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছে। গণমাধ্যমের বিকাশ হয়েছে দ্রুত। কিন্তু সাংবাদিকতার মানের ধারাটি হয়তো আমরা ধরে রাখতে পারিনি। স্বচ্ছ রাজনীতির জন্য, টেকসই গণতন্ত্রের জন্য, দেশ ও মানুষের সমৃদ্ধির জন্য প্রয়োজন একটি স্বচ্ছ গণমাধ্যম।

বলা হয়, গণমাধ্যম বরাবরই কঠিন চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি। তবুও মানুষের প্রতি দায়িত্বের জন্য, সাংবাদিকের কাজ প্রতিনিয়ত মানুষের জীবনকে স্পর্শ করছে। তাই তো সমাজ ও মানুষের কাছে তারা দায়বদ্ধ। আর নীতি-নৈতিকতা মান্য করলে মানুষের আস্থা ও সমর্থন মেলে। সেটাই একজন সাংবাদিকের স্বাধীনতার সবচেয়ে বড় রক্ষাকবচ। কেননা নীতি-নৈতিকতা সাংবাদিকতার অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ।

সংবাদপত্র এখন খুব একটা লাভজনক ব্যবসাও নয়। কঠিন একটা প্রতিযোগিতা। তারপরও প্রচুর মিডিয়ার আত্মপ্রকাশ ঘটছে। কারণ একটাই, তারা এই গণমাধ্যমকে সামনে রেখে অন্য স্বার্থ হাসিল করার চেষ্টা করেন। মালিকরা স্বার্থসিদ্ধির জন্য এটাকে হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করছেন।

অন্যদিকে সাংবাদিকরাও বিভিন্ন সময় তাদের সাংবাদিকতার পরিচয়পত্রটি ব্যবহার করে ব্যক্তিস্বার্থ হাসিল করছেন। তারা নীতি-নৈতিকতা মেনে সাংবাদিকতার দায়িত্ব পালন করতে এই পেশায় আসেননি। তারা সমাজের অন্য সূত্রগুলোকে তুষ্ট করে বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা নিয়ে লাভবান হওয়ার জন্যই সংবাদ পরিবেশন করছেন। আর অশিক্ষা-ধর্মীয় গোঁড়ামি, অর্থের প্রতি অতিলোভ- এসব অসুস্থ প্রবণতাও এর জন্য দায়ী।

বর্তমান সময়ে সোস্যাল মিডিয়া অনেক শক্তিশালী একটি মাধ্যম। কেননা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গণমাধ্যমের আগেই অনেক খবর খুব সহজেই প্রকাশ পেয়ে যাচ্ছে। কিন্তু এই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের কোনো জবাবদিহিতা নেই। এখানে যে যার খুশি লিখে যাচ্ছেন, এতে বাধা দেয়ার কোনো সুযোগ নেই। ব্যক্তির স্বাধীনতা অনুযায়ী যে যা লিখে যাচ্ছেন। তবে ব্যক্তির বুলি অনেক শক্তিশালী এটাও ঠিক।

অবস্থা পর্যালোচনায় এখন সোস্যাল মিডিয়াকে আমাদের খুব গুরুত্ব দিয়েই দেখতে হবে। একই সঙ্গে এখানে ইচ্ছেমতো সবকিছু লেখা যায়, বলা যায় বিধায় মিথ্যা তথ্য ও ফেক নিউজ ছড়ানোর প্রবণতা লক্ষ্য করা যায়। যার যার মোটিভ বা উদ্দেশ্য হাসিল করার জন্য এসব পোস্ট বা কমেন্টস করতে পারেন। এই চর্চা আমাদের সমাজের জন্য ভালো কিছু বয়ে আনবে না-এটা বিশ্বাস করতেই হবে।

সাংবাদিকেরাও আজ সাংবাদিকতায় সীমাবদ্ধ থাকছেন না। তোষামোদি, ব্ল্যাকমেল, রাজনীতি ও ব্যবসা-অনেক সাংবাদিকের এখন বড় পরিচয়। ফলে তাঁরা এখন সাংবাদিকের সম্মান হারাচ্ছেন। এ থেকে পরিত্রাণের জন্য পাঠকহীন, নামসর্বস্ব সংবাদপত্র ও মাধ্যমসমূহের ডিক্লারেশন বাতিল করতে হবে।

জাতীয় প্রেস কাউন্সিল এবং সাংবাদিকদের নিজেদের পেশার জন্য আচরণবিধি তৈরি করতে হবে। সাংবাদিকদের সাংবাদিকতা, চাটুকারিতা, রাজনীতি ও ব্যবসার যে কোনো একটিকে বেছে নিতে হবে। তা না হলে যে ধস শুরু হয়েছে, তা থামানো যাবে না, বরং ভবিষ্যতে সংকট আরও প্রকট হবে।

# মাজহার মান্না: সাংবাদিক-লেখক ও কর আইনজীবী, কিশোরগঞ্জ।


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর