কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


শিক্ষকের মর্যাদার আসনটি পুনঃপ্রতিষ্ঠা করা জরুরি


 শরীফুল্লাহ মুক্তি | ৫ আগস্ট ২০২১, বৃহস্পতিবার, ৮:০৬ | মত-দ্বিমত 



‘আজ থেকে চির-উন্নত হল শিক্ষাগুরুর শির/সত্যই তুমি মহান উদার বাদশাহ্ আলমগীর’- শিক্ষক সম্পর্কিত এই মহান উদ্ধৃতিটি আমাদের সকলেরই জানা। কবি কাজী কাদের নেওয়াজের ‘শিক্ষকের মর্যাদা’ কবিতাটি ছোটবেলায় আমরা অনেকেই পড়েছি। কবিতাটি বাদশাহ্ আলমগীর ও তাঁর সন্তানের শিক্ষককে নিয়ে। কবিতাটি আমার খুব ভালো লাগত। আমার মনে হয় শিক্ষককে মর্যাদা দেওয়ার উৎকৃষ্ট উদাহরণ আছে এই কবিতায়।

কবিতাটি ছোটবেলায় বার বার পড়েছি, শিক্ষকদের নিয়ে অনেক ভেবেছি, ভেবেছি শিক্ষকের মর্যাদা নিয়ে। আর বুঝলাম শিক্ষকের মর্যাদা অন্যরকম উচ্চতায়। একজন বাদশাহ্ হয়েও বাদশাহ্ আলমগীর তাঁর সন্তানের শিক্ষকের প্রতি অত্যন্ত শ্রদ্ধাশীল ছিলেন। তিনি শিক্ষকের প্রতি সন্তানের একটু অবহেলাও (কুমার কেন নিজ হাতে শিক্ষকের পা ধুয়ে দেননি) মেনে নিতে পারেননি। শিক্ষকের চিন্তাতেও যখন ওই অবহেলার বিষয়টি ছিল না তখন বাদশাহ্ নিজে তাকে বিষয়টি ধরিয়ে দেন। তার যে এ বিষয়টিও সন্তানের শিক্ষার মধ্যে আনা উচিত ছিল তা বোঝানোর জন্যই তিনি একদিন শিক্ষককে ডেকেছিলেন। আর শিক্ষকের প্রতি এতটা সম্মান দেখানোর জন্য বাদশাহ্ আলমগীরকে কবিতায় কবি মহান বলে বর্ণনা করেছেন। বাদশাহ্ সত্যিই বুঝেছিলেন শিক্ষকের মর্যাদা কেমন হওয়া উচিত।

শিক্ষক হিসেবে একজন মানুষ কতটা সফল তা তাঁর চাকরির ওপর নির্ভর করে নির্ণয় করা যায় না। বরং সেই শিক্ষক কতজনকে মানুষ হওয়ার সঠিক পথ দেখাতে পেরেছেন, কতজন শিক্ষার্থীকে মানুষের মতো মানুষ বা আদর্শ মানুষ করতে পেরেছেন তার ওপর নির্ভর করে। একজন শিক্ষক বেঁচে থাকেন তাঁর শিক্ষার্থীর মধ্যে। মানুষ হওয়ার সেই মন্ত্র একমাত্র শিক্ষকের ভিতরই থাকে। শিক্ষক হলেন আদর্শ।

একজন শিক্ষার্থী শিক্ষক সম্পর্কে নেতিবাচক মন্তব্য করার সুযোগই পাওয়া উচিত না। কারণ যিনি প্রকৃত শিক্ষক তিনি কোনোদিন কোনো শিক্ষার্থীর জীবনে ক্ষতিকর প্রভাব ফেলে এমন কিছু করেন না। আবার শিক্ষকতা পেশায় থাকলেই প্রকৃত শিক্ষক হওয়া যায় না। এটাও এক ধরনের প্রাণান্ত চেষ্টার ফল। দেশের মেধাবী সন্তানেরা বের হয় কোনো না কোনো শিক্ষকের হাত ধরেই।

আবার বছরের পর বছর পড়িয়ে পরীক্ষায় পাস করানো বা রেজাল্ট ভালো করাতে পারলেই কিন্তু শিক্ষকের দায়িত্ব শেষ হয়ে যায় না। বরং শিক্ষকের দায়িত্ব হলো প্রতিটি শিক্ষার্থীর মধ্যে লুকিয়ে থাকা সুপ্ত প্রতিভার বিকাশ ঘটিয়ে তাকে মানুষের মতো মানুষ হিসেবে গড়ে তোলা।

প্রবাদ আছে- ‘শিক্ষাই আলো’। কারণ শিক্ষা সমাজের রন্ধ্রে রন্ধ্রে বিরাজমান অন্ধকারকে দূরীভূত করে সমাজকে আলোকিত করে তোলে। পার্কার বলেছেন- ‘পূর্ণাঙ্গ মানুষের আত্মপ্রকাশের জন্যে যে সব গুণাবলী নিয়ে শিশু এ পৃথিবীতে আগমন করেছে শিক্ষার উদ্দেশ্য হবে সে সব গুণাবলীর যথাযথ বিকাশ সাধন’। নেলসন ম্যান্ডেলার মতে, ‘জীবন ও জগৎকে পরিবর্তন করতে পারে এমন নিয়ামকই হচ্ছে শিক্ষা’। সমাজবিজ্ঞানী কার্ল মার্কস বলেছেন, ‘শিক্ষা হচ্ছে সমাজের মৌল কাঠামোর ওপর নির্ভরশীল একটি গুরুত্বপূর্ণ সামাজিক প্রতিষ্ঠান’।

আসলেই শিক্ষা একমাত্র মাধ্যম যা মানব মনের বিকাশ ও উন্নয়নে অগ্রণী ভূমিকা রাখে। শুধু তাই নয়, উপযুক্ত শিক্ষাব্যবস্থার মাধ্যমেই সমাজ ও রাষ্ট্র তার উন্নতির চরম শিখরে আরোহণ করতে পারে। সেদিক থেকে শিক্ষাকে সামাজিক পরিবর্তন ও উন্নয়নের প্রধান নিয়ামক হিসেবেও বিবেচনায় করা হয়। অধ্যাপক রঙ্গলাল সেন এজন্য শিক্ষাকে সামাজিক নিয়ন্ত্রণের বাহন হিসেবে উল্লেখ করেছেন। শিশুর তথা ব্যক্তির দৈহিক, মানসিক, সামাজিক, মানবিক, নান্দনিক ও নৈতিক গুণগুলো সঠিকভাবে ফুটিয়ে তোলাই শিক্ষার উদ্দেশ্য।

শিক্ষকতা কোনো চাকরি নয়। এটি একটি মহান পেশা। তবে বর্তমানে অনেকেই এটাকে চাকরি হিসেবে গ্রহণ করেছেন। আবার পেশা হলেও কিন্তু বাস্তবে অন্য আর দশটা পেশা থেকে শিক্ষকতা পেশার উদ্দেশ্য ভিন্ন, দায়িত্ব ও কর্তব্যও ভিন্ন। এ পেশায় জীবিকা নির্বাহের পাশাপাশি মানবসেবা বা মানুষের জন্য কাজ করার যথেষ্ট সুযোগ আছে। দেশ ও জাতি গঠনের মতো মহান কাজে নিজেকে আত্মোৎসর্গ করা যায়। তাই এটি একটি ব্রতও বটে। আর ব্রত অনেক কঠিন বিষয়। একজন শিক্ষক কেমন হবেন- এসব নিয়ে বিস্তর গবেষণা হয়েছে। সেখান থেকে বের হয়ে এসেছে শিক্ষকের কী কী গুণাবলী থাকা প্রয়োজন এবং একজন আদর্শ শিক্ষকের দায়িত্ব ও কর্তব্য কী হওয়া উচিত।

শিক্ষকতা মহান পেশা হলেও পাশাপাশি এটি জটিলও বটে। এই পেশার উন্নয়নে সর্বাগ্রে প্রয়োজন জ্ঞান ও দক্ষতার পাশাপাশি ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি। একজন শিক্ষককেও তাঁর পেশার উন্নয়নের স্বার্থে প্রতিনিয়ত নব নব জ্ঞানের সন্ধান করতে হয়- তাঁকে  নতুন নতুন শিখন-শেখানো পদ্ধতি ও কৌশল সম্পর্কে ধারণা লাভ করতে হয়। পাঠদানকে শতভাগ সফল করতে নতুন নতুন প্রযুক্তি ও আধুনিক জ্ঞান-গবেষণার সন্ধানে নিরলস প্রচেষ্টায় নিজেকে সচেষ্ট রাখতে হয়।

আধুনিক শিক্ষা-মনোবিদদের মতে, একজন শিক্ষকের আত্মমূল্যায়নের গুরুত্ব প্রতিনিয়ত বৃদ্ধি পাচ্ছে। শিক্ষক কী করছেন এবং শিক্ষকের কার্যাবলী শিক্ষার্থীর সামাজিক ও একাডেমিক শিক্ষণে কী প্রভাব ফেলছে তার ওপর নির্ভর করে কার্যকর-শিক্ষণ। এ প্রসঙ্গে ওয়াং (Wong) বলেছেন, ‘শিক্ষক হিসেবে আপনি আপনার শিক্ষার্থীর স্পন্দন স্পর্শ করার চেষ্টা করুন। এতে করে আপনি এমন এক শিক্ষার্থীকে পাবেন যে ইতিহাস, শারীরিক শিক্ষা, বিজ্ঞান, গণিত সব শিখবে- নিজের অন্যসব কাজ করেও আপনাকে খুশি রাখবার সবরকম প্রচেষ্টা গ্রহণ করবে।’

শিক্ষকতা পেশার মতো একটি আদর্শিক পেশার সাথে নিজেকে সম্পৃক্ত করার সৌভাগ্য সকলের হয় না। যাঁর জীবনে এ পেশার সাথে সংশ্লিষ্ট হওয়ার সুযোগ এসেছে তাঁকে শেখানোর মনোবৃত্তি নিয়ে, শেখার মনোবৃত্তি নিয়ে পাঠদান করতে হবে। এখানে চাওয়া-পাওয়া কিংবা স্বার্থের বিনিময়ে বিদ্যাদান কাম্য নয়। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর শিক্ষকের এরূপ আদর্শকে বড় করে দেখেছেন। তিনি বলেছেন, “একদিন বুদ্ধদেব বলেছিলেন, ‘আমি সমস্ত মানুষের দুঃখকে দূর করিব’; দুঃখ তিনি সত্যি দূর করতে পেরেছিলেন কিনা সেটা বড় কথা নয়, বড় কথা হচ্ছে তিনি এটি ইচ্ছে করেছিলেন, সমস্ত জীবের জন্য নিজের জীবনকে উৎসর্গ করেছিলেন।”

মাদাম মন্তেস্বরী শিক্ষাক্ষেত্রে একটি অবিস্মরণীয় নাম। তাঁর জীবনের মূল-লক্ষ্য ছিল সেবামূলক মনোভাবাপন্ন মানুষ তৈরি করা। সেবার মনোবৃত্তি নিয়ে সারাজীবন শিক্ষাপদ্ধতির সংস্কার ও উন্নয়নের জন্য তিনি নিজেকে নিয়োগ করেছিলেন। তিনি বুঝতে পেরেছিলেন, মানুষের অজ্ঞতাই তার জীবনের সবচেয়ে বড় বিপর্যয়ের কারণ। তাই এর উত্তরণ ঘটাতে হলে দক্ষ শিক্ষকের দ্বারা প্রকৃত শিক্ষায় শিক্ষিত করতে হবে এবং সেবামূলক ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি প্রসারিত করতে হবে। আর এ জন্য সর্বাগ্রে প্রয়োজন শিক্ষকের জ্ঞান ও দক্ষতার উন্নয়ন সাধন।

গ্রীক বীর মহামতি আলেকজান্ডার দ্য গ্রেট বলেছেন- জন্মগ্রহণ করার জন্য আমি আমার মা-বাবার কাছে ঋণী। কিন্তু আমি যে আজকের আলেকজান্ডার তার জন্য আমার মহান শিক্ষকদের কাছে ঋণী। শিক্ষক শুধু শিক্ষার্থীদের পাঠদানই করেন না, বরং সামগ্রিক জীবনের দিকনির্দেশনা তৈরি করে দেন। একজন ভালো শিক্ষকের গুণাবলীর বহিঃপ্রকাশ ঘটে তার দায়িত্ব ও কর্তব্য যথাযথ পালনের মধ্য দিয়ে।

আমেরিকান কবি ও সাহিত্যিক রাল্ফ ওয়াল্ডো এমারসনের মতে, ‘তিনিই শিক্ষক যিনি কঠিনকে সহজ করে তুলে ধরতে পারেন।’ শিক্ষকের কর্তব্য বুঝতে উইলিয়াম আর্থার ওয়ার্ডের বক্তব্যই যথেষ্ট। তিনি বলেছেন, ‘মাঝারি মানের শিক্ষক বলেন, ভালো শিক্ষক বুঝিয়ে দেন, শ্রেষ্ঠ শিক্ষক করে দেখান আর মহান শিক্ষক অনুপ্রাণিত করেন।’

প্রকৃত অর্থে একজন শিক্ষকই তার ছাত্রের মধ্যে লুকিয়ে থাকা অপার সম্ভাবনার উন্মেষ ঘটাতে পারেন। এ সম্ভাবনাকে কাজে লাগিয়ে তিনি ছাত্রকে ভবিষ্যতের যোগ্য মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে পারেন। তিনি প্রতিনিয়ত নানাবিধ জটিল বিষয়ের সমাধান উন্মোচন করেন। তিনি মেধা ও মননকে ব্যবহার করে তৈরি করেন আদর্শ ছাত্র।

শিক্ষককে মনে করা হয় সকল জ্ঞানের আধার। তাই তাঁকে অগাধ পাণ্ডিত্যের অধিকারী হওয়া প্রয়োজন। সীমিত জ্ঞান দ্বারা শিক্ষকতার মতো পেশা গ্রহণ করা যায় না বা গ্রহণ করা উচিতও নয়। মনে রাখতে হবে, শিক্ষার্থীরা কৌতুহলী, তাদের মনে হাজারো প্রশ্ন। তারা নানা প্রসঙ্গে তাঁর জ্ঞানের পরীক্ষা নেবে, তাদের জ্ঞান-পিপাসা তৃপ্ত করতে না পারলে শিক্ষকের প্রতি তাদের ভক্তি-শ্রদ্ধা হ্রাস পাবে- আর এটাই স্বাভাবিক। তাই শিক্ষককে জীবনব্যাপী শিক্ষার অভিপ্রায় নিয়ে নিয়মিত বিষয়ভিত্তিক, কখনো বিষয়ের বাইরেও অধ্যয়ন করতে হবে। নিত্যনতুন বিষয় যেমন জানতে হবে, তেমনি জানা বিষয়কে আবার জ্ঞানচর্চার নজরে আনতে হবে।

শিক্ষকতাকে অর্থোপার্জনের মাধ্যম না ভেবে জ্ঞানচর্চার সুযোগ ভাবতে হবে। এক্ষেত্রে শিক্ষকদের খেয়াল রাখতে হবে, তাঁরা যেন শ্রেণিকক্ষে প্রবেশের আগে অবশ্যই পূর্বপ্রস্তুতি নিতে ভুলে না যান। যত জানা বিষয়ই হোক তারপরও শিখনফল সম্পর্কে পূর্বধারণা নিয়ে পাঠদান করা প্রয়োজন। প্রতিদিনের পাঠদানে নতুন কিছু সংযোজন করা যায় কি-না তা চিন্তার জগতে নিয়ে আসতে হবে। কত সময়ব্যাপী পাঠদান করা হবে, কী কী পদ্ধতি বা কৌশল অবলম্বন করে পাঠদান করা হবে এবং কিভাবে মূল্যায়ন করা হবে- তা পূর্ব থেকেই নির্ধারণ করে রাখতে হবে। কী কী উপকরণ লাগতে পারে সেগুলো সংগ্রহ বা তৈরি করে সাথে নিয়ে ক্লাসে যাওয়া সমীচীন। একই সাথে যে বিষয়ে পাঠদান করা হবে সে বিষয়ে উচ্চতর কোনো রেফারেন্স বই অধ্যয়ন করা হলো কি-না সেদিকেও নজর দিতে হবে।

বিশেষত বিষয়ভিত্তিক শিক্ষকের জন্য সংশ্লিষ্ট বিষয়ের উচ্চতর শ্রেণির পাঠ্যবই কিংবা রেফারেন্স বই সংগ্রহে থাকা প্রয়োজন। শিক্ষককে মনে রাখতে হবে প্রতিদিনের পাঠদান সব সময় শুধু বিষয়ভিত্তিক পড়াশোনা বা পাঠ্যবইয়ের মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকে না। বর্তমানে তথ্যপ্রযুক্তির যথেষ্ট উন্নতি হয়েছে। মিডিয়ার কল্যাণেও শিক্ষকগণ তাঁদের জ্ঞান-ভাণ্ডারকে আরও সমৃদ্ধ করতে পারেন। আর পাঠদানের ক্ষেত্রে ডিজিটাল প্রযুক্তির ব্যবহার আয়ত্ত করা একজন শিক্ষকের জন্য সময়ের দাবি। প্রতিনিয়ত নতুন নতুন তথ্য ও অভিজ্ঞতা তাঁর জ্ঞান-ভাণ্ডারে সংযোজন করতে হয়। শিক্ষকতা পেশাটাকে জানতে ও বুঝতে হবে। এই পেশার মধ্যে যে নতুনত্ব ও বৈচিত্র্য আছে তার সৌন্দর্য উপভোগ করতে শিখতে হবে।

কোমলমতি শিশুদের ছোট ছোট পরিবর্তন যার মনে দোলা দেয় না তিনি কখনও প্রকৃত শিক্ষক হতে পারবেন না। আগামী প্রজন্মের চাহিদাকে সামনে রেখে শিক্ষককে প্রস্তুতি গ্রহণ করতে হবে। শিক্ষককে সব সময় বিভিন্ন কার্যোপযোগী গবেষণা বা কর্মসহায়ক গবেষণা পরিচালনার মাধ্যমে নিজেকে সমৃদ্ধ করে যোগ্যতর শিক্ষক হিসেবে প্রস্তুত করতে হবে। আর অর্জিত জ্ঞান, দক্ষতা ও অভিজ্ঞতা প্রযোজ্য ক্ষেত্রে প্রয়োগ করতে হবে।

একটি জাতির স্বপ্ন কত বড় এবং তারা মানসিকতায় কতটা উদার- তা সেই দেশের শিক্ষকদের দিকে তাকালেই বোঝা যায়। কারণ নতুন জ্ঞান সৃষ্টির পাশাপাশি মানব মনকে সংকীর্ণতা থেকে মুক্ত করে বৃহৎ মানবসত্তা বিনির্মাণের সঙ্গে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও শিক্ষকের সম্পর্কই সবার ওপরে। শিক্ষকের উচিত শিক্ষার্থীদের স্বপ্ন দেখানো। শিক্ষার্থীদের উন্নত জীবনের স্বপ্ন দেখানোও শিক্ষার উদ্দেশ্যগুলোর অন্যতম।

আমাদের রাষ্ট্রীয় জীবনের সাম্প্রতিক সংকটকে বিশ্লেষণ করলে আমরা দেখি- আমরা ছাত্রছাত্রীদের গ্র্যাজুয়েট ডিগ্রিধারী তথা উচ্চশিক্ষিত করছি ঠিকই; কিন্তু পার্থিব জীবনে বড় ধরনের কোনো স্বপ্ন তাদের মনে গেঁথে দিতে পারছি না। ফলে অনেকে হতাশার জলে ডুবে কিংবা ভুল প্ররোচণায় বিপথগামী হচ্ছে।

এ সংকট উত্তরণের সবচেয়ে সহজ পথ হচ্ছে- ব্যক্তিজীবনে সব ছাত্রছাত্রীর মনে আকাশছোঁয়ার স্বপ্ন বুনে দেয়া। এ কাজটি একজন শিক্ষকের পক্ষে সম্ভব। একজন আদর্শ শিক্ষক এখানেই সফল হন। তিনি আদর্শের প্রতীক রূপে সমাজ ও দেশ আলোকিত করেন এবং শিক্ষার্থীদের স্বপ্ন দেখান ও বাস্তবায়ন রূপরেখাও তৈরি করে দেন।

মানুষের বেঁচে থাকার ও বড় হওয়ার পূর্বশর্ত একটাই- তা হচ্ছে স্বপ্ন লালন করা। কারণ স্বপ্নই মানুষকে ওপরে উঠতে সাহায্য করে। অনেক সময় ছাত্রছাত্রীরা তাদের আকাশছোঁয়া স্বপ্নের কথা বলে, কেউ আবার কীভাবে স্বপ্নকে জয় করতে পারবে তার পরামর্শ চায় শিক্ষকের কাছে। কেউ কেউ আবার তাদের স্বপ্নভঙ্গের নানা কাহিনী শোনায়। শিক্ষকের কাউকে হতাশ করা উচিত নয়। কারণ শিক্ষককে বিশ্বাস করতে হবে, মানুষ কত বড় হবে, তা তার স্বপ্নের আকারের ওপর নির্ভর করে। যার স্বপ্নের আকার যত বড়, সে ততই বড়।

প্রবাদ আছে  ‘ইচ্ছা থাকলে উপায় হয়’। ইচ্ছাশক্তি মানুষকে অনেক দূর এগিয়ে নিয়ে যায়। তবে শুধু ইচ্ছা থাকলে এগিয়ে যাওয়া যায় না। ইচ্ছা পূরণের জন্য থাকতে হয় আত্মবিশ্বাস এবং ইচ্ছা অনুযায়ী কাজ করার সামর্থ্য। মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার কথা আমরা সবাই জানি। তিনি চতুর্থ শ্রেণিতে পড়ার সময় ‘আমার জীবনের লক্ষ্য’ রচনা লিখতে গিয়ে লিখেছিলেন, ‘আমি আমেরিকার প্রেসিডেন্ট হতে চাই’। আর সেই শিশুটিই একসময় আমেরিকার প্রেসিডেন্ট হয়েছিলেন। যে দেশের প্রেসিডেন্ট ভবনের নামই হোয়াইট হাউস, একটি কৃষ্ণাঙ্গ  শিশু কীভাবে স্বপ্ন দেখে সেই দেশের  প্রেসিডেন্ট হওয়ার! তার স্বপ্নই পরবর্তী সময়ে তাকে আমেরিকার প্রেসিডেন্ট বানিয়েছে; এটাই স্বপ্নের শক্তি। একজন আদর্শ শিক্ষক এখানেই সফল, যদি তিনি প্রতিটি শিক্ষার্থীর মনে বড় স্বপ্ন দেখার বীজ বপন করে দিতে পারেন।

অন্যদিকে যে শিক্ষার্থীর স্বপ্ন নেই কিংবা স্বপ্ন অতি ক্ষুদ্র- তাকে খোলাসমুক্ত করে স্বপ্নের অনুরাগী করার দায়িত্বও শিক্ষকসমাজের। এখানেও একজন সত্যিকার শিক্ষকের সার্থকতা নিহিত আছে।

শিশুদের মাঝে নৈতিক ও মানবিক গুণাবলি বিকাশে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান তথা শিক্ষকের গুরুত্ব অপরিসীম। শিক্ষার্থীর সৃজনশীলতা বা স্বাভাবিক চিন্তা-চেতনা বাধাগ্রস্ত হয় এমন কিছু করা যাবে না। মনে রাখতে হবে জীবনের শুরুতে চিন্তা-চেতনার স্বাভাবিক ধারা বাধাগ্রস্ত হলে তা থেকে বৈপরীত্য জন্ম নেয়।

অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায়, ছেলেমেয়েরা কোনো বিষয়ে হয়তো বাবা-মা’র কথা শুনছে না, কিন্তু শিক্ষকের কথা শুনছে। বাবা-মা’র পর ছেলেমেয়েরা শিক্ষকদেরই তাদের জীবনপথের কাণ্ডারি হিসেবে বিবেচনা করে।

কাজেই শিক্ষার্থীদের নৈতিক, মানবিক ও সামাজিক গুণাবলি বিকাশে শিক্ষকের ভূমিকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আর শিক্ষার্থীদের এই গুণাবলির বিকাশ ঘটাতে হলে প্রথমে শিক্ষকদের নৈতিক, মানবিক ও সামাজিক গুণাবলিসম্পন্ন হতে হবে এবং তাদেরকে তা ধারণ ও লালন করতে হবে।

কিস্তু বাস্তবতা আমাদের ভিন্ন কথা বলে। কোথায় যেন একটা শূন্যস্থান আছে। প্রকৃত পক্ষে দেখা যায় অধিকাংশ শিক্ষার্থীই বিভিন্ন বিষয়ে নির্ধারিত শ্রেণিভিত্তিক অর্জনোপযোগী যোগ্যতাগুলোর অধিকাংশই অর্জন করতে পারে না। পরীক্ষায় পাসের হার বাড়লেও আমরা আমাদের সন্তানদের প্রকৃত শিক্ষায় শিক্ষিত করতে পারছি না।

একদিকে বাড়ছে শিক্ষার হার ও শিক্ষিত মানুষের সংখ্যা, অন্যদিকে সমাজে বাড়ছে মূল্যবোধের অবক্ষয়, হচ্ছে নৈতিক অধঃপতন। বাড়ছে অশ্লীলতা, দুর্নীতি ও নানা ধরনের অপরাধপ্রবণতা। আমাদের শিক্ষাব্যবস্থায় যেন একধরনের নৈরাজ্য চলছে। এই নৈরাজ্য আরও বৃদ্ধি পেয়েছে শিক্ষার বাণিজ্যিকীকরণের কারণে। শিক্ষা এখন বাজারি বস্তুতে পরিণত হয়েছে।

একজন প্রাজ্ঞ, দূরদৃষ্টিসম্পন্ন সত্যিকারের শিক্ষিত শিক্ষক সমাজ বদলে একটি বিশেষ ভূমিকা রাখতে পারেন। আদর্শ শিক্ষকই শুধু আদর্শ সমাজ প্রতিষ্ঠার পথ তৈরি করতে পারেন। শিক্ষকের আদর্শ, চেতনা, অনুপ্রেরণা, কর্মপদ্ধতি সবকিছু ছাত্র-ছাত্রীর মাঝে প্রভাবিত হয়। শিক্ষা যদি সমাজের আয়না হয় শিক্ষক তবে সেই আয়নার প্রতিচ্ছবি। শিক্ষকের মাধ্যমেই শিক্ষার রস সমাজে ছড়িয়ে পড়ে। আর শিক্ষার্থীরা শিক্ষার রস আস্বাদন করার সুযোগ পায় শিক্ষকের জন্যই।

কিন্তু বর্তমান সময়ে শিক্ষকরা এই লক্ষ্য থেকে অনেকটা বিচ্যুত হয়েছেন। কেবল চাকরি হিসেবে নেয়ার জন্যই এই দশা। আর শিক্ষকতাকে ব্রত হিসেবে নেয়ার জন্য কেবল সার্টিফিকেটই যথেষ্ট নয়। সব থেকে কুৎসিত মানসিকতার মানুষেরও আজ বড় বড় সার্টিফিকেট রয়েছে। ভালো শিক্ষক হতে হলে সার্টিফিকেটের সঙ্গে সঙ্গে দরকার সুস্থ ও সুন্দর মন-মানসিকতা। শিক্ষকতা পেশায় আসার পূর্বে মনকে স্থির করতে হবে। অন্য দশটা চাকরির যোগ্যতা আর শিক্ষকতার যোগ্যতা তাই এক মাপকাঠিতে বিচার করলে চলবে না। অল্প কয়েকজন বিপথগামী শিক্ষকের জন্য শিক্ষকসমাজের অসম্মান মেনে নেয়া যায় না।

আমাদের দেশে অতীতে শিক্ষকদের যেমন সামাজিক মর্যাদা এবং ছাত্র-শিক্ষকদের মধ্যে মধুর, বন্ধুত্বপূর্ণ ও পবিত্র সম্পর্ক ছিল বর্তমান সময়ে তা অনেক ক্ষেত্রেই অনুপস্থিত। বিগত ষাট ও সত্তর দশকেও শিক্ষকরা সমাজের সবচেয়ে সম্মানিত ব্যক্তি ছিলেন। ছাত্র-ছাত্রীরাও শিক্ষকদের অনেক শ্রদ্ধা ও সম্মান করত, পাশাপাশি ভয়ও পেত। শিক্ষকরাও ছাত্র-ছাত্রীদের বেশ ভালোবাসতেন, স্নেহ করতেন।

কিন্তু আজকাল সে অবস্থা অনেক ক্ষেত্রেই নেই। আগে অনেক শিক্ষার্থী স্বপ্ন দেখতো ভবিষ্যতে বড় হয়ে শিক্ষক হওয়ার এবং হয়েছেও। কিন্তু এখন কোনো শিক্ষার্থীর স্বপ্ন শিক্ষক হওয়া এমনটি খুঁজে পাওয়া কঠিন। এ অবস্থা একটা দেশ তথা জাতির জন্য শুভকর নয়। কাজেই দেশ তথা জাতির স্বার্থে যোগ্য শিক্ষক তৈরি করতে হলে শিক্ষকের মর্যাদার আসনটি পুনঃপ্রতিষ্ঠা করা জরুরি। শিক্ষকতা ব্রতের মধ্য দিয়ে শিক্ষক তাঁর ছাত্র-ছাত্রীর মধ্যে ইতিবাচক পরিবর্তন ঘটাবেন এমনটিই জাতির প্রত্যাশা। আর শিক্ষকের এই কাজটির সফলতা ও ব্যর্থতার মধ্যে রয়েছে দেশ ও জাতির ভবিষ্যৎ।

লেখক: শরীফুল্লাহ মুক্তি, প্রাবন্ধিক, শিক্ষা-গবেষক ও  ইন্সট্রাক্টর, উপজেলা রিসোর্স সেন্টার (ইউআরসি), নান্দাইল, ময়মনসিংহ।

ই-মেইল: ahmsharifullah@yahoo.com


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর