কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


আত্মহনন ও প্রতিরোধ


 লুৎফর রহমান নাঈম | ৮ অক্টোবর ২০২১, শুক্রবার, ১১:২৮ | মত-দ্বিমত 



দেশে দিন দিন শিক্ষার্থীদের মধ্যে আত্মহত্যা উদ্বেগজনকভাবে বাড়ছে। পত্রিকার পাতা খুলতেই চোখে পড়ছে আত্মহত্যার মতো ভয়ংকর খবর। এটা আমাদের নতুন প্রজন্মের জন্য অশনি সংকেত।

গত সেপ্টেম্বর মাসে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) সাবেক ছাত্র মাসুদ আল মাহাদী (অপু), রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) ইমরুল কায়েস, পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (পাবিপ্রবি) তাহমিদুর রহমান জামিল, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) শিক্ষার্থী অমিতোষ হালদার সহ ৭ জন শিক্ষার্থীর আত্মহত্যার খবর বিভিন্ন সংবাদপত্র ও ইলেকট্রনিক মিডিয়াগুলোতে এসেছে।

এছাড়া চলতি মাসের ৭ অক্টোবর, বৃহস্পতিবার বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র তানভীর আলম তুষার ফেসবুকে পোস্ট দিয়ে আত্মহত্যা করেছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের মতো উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এসেও কেন তারা আত্মহত্যার মতো ভয়ংকর একটা পথে পা রাখছে। এ নিয়ে সঠিক তদন্ত, আত্মহত্যার কারণ উদঘাটন ও পর্যালোচনা এখন সময়ের দাবি।

আত্মহত্যার সঠিক কারণ উদঘাটনের পাশাপাশি আত্মহনন ঠেকাতে সমাজের সকল স্তরের মানুষের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধি ও ধর্মীয় অনুভূতি জাগিয়ে তোলা ও প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহণ জরুরি।

আঁচল ফাউন্ডেশনের এক জরিপের তথ্যমতে, ২০২০ সালের ১৭ মার্চ থেকে ২০২১ সালের ৪ জুন পর্যন্ত দেশে ১৫১ জন শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছে। সর্বশেষ গত ১৯ মাসে ১৮০ শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছে বলে বিভিন্ন দৈনিক পত্রিকাগুলোতে এসেছে।

কিন্তু শিক্ষার্থীদের মধ্যে হতাশা ও আত্মহত্যার প্রবণতা বৃদ্ধি পেলেও অধিকাংশ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যথাযথ কাউন্সিলিং এর ব্যবস্থা করা হচ্ছে না। কোনো কোনো প্রতিষ্ঠানে মানসিক স্বাস্থ্যকেন্দ্র আছে কিন্তু মনোচিকিৎসক বা মনোবিদ এর সংকটে চিকিৎসাকেন্দ্র গুলো চলছে অনিয়মিত ও গুরুত্বহীনভাবে। তাই শিক্ষার্থীদের মধ্যে আত্মহত্যার  প্রবণতা কমিয়ে আনতে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে মানসিক স্বাস্থ্যসেবা সংক্রান্ত সুযোগসুবিধা পুরোপুরি নিশ্চিত করা জরুরি।

আত্মহত্যাপ্রবণ শিক্ষার্থীদের চিহ্নিত করে তাদের নিয়মিত কাউন্সেলিং এর ব্যবস্থা করতে হবে। কারণ মানসিক সমস্যায় আক্রান্ত শিক্ষার্থীদের জন্য মানসিক চিকিৎসা প্রয়োজন। পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের উপর অভিভাবকদের নজরদারি বাড়াতে হবে। শিক্ষার্থীদের মানসিক স্বাস্থ্য সম্পর্কে সচেতন করতে সরকারি উদ্যোগে সেমিনার বা বিভিন্ন কর্মসূচির আয়োজন করা যেতে পারে।

প্রতিবছর ১০ সেপ্টেম্বর পালিত হয় বিশ্ব আত্মহত্যা প্রতিরোধ দিবস। নানা আয়োজনের মাধ্যমে দিবসটি বিশ্বের বিভিন্ন দেশে পালন করা হয়।

প্রশ্ন হলো- আত্মহত্যা প্রতিরোধ করা সম্ভব কিনা? হ্যাঁ আত্মহত্যা এমন একটি সমস্যা, যা প্রতিরোধযোগ্য। একে মোকাবিলা করতে প্রয়োজন সমন্বিত পদক্ষেপ ও সঠিক সময়ে সঠিক ব্যবস্থা নেওয়া।

কারণ প্রতিটি আত্মহত্যার পিছনেই সুনির্দিষ্ট কিছু কারণ থাকে। যেমন: পারিবারিক জটিলতা, সম্পর্কের অবনতি, হতাশা, বিষন্নতা, আর্থিক সংকট, কলহ, শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন, ব্যর্থতা, বেকারত্ব, মাদক সেবন, সাইবার ক্রাইমের শিকার, যৌতুক প্রথা, বাবা-মায়ের মধ্যে সুসম্পর্ক ভালো না থাকা, সন্তানের প্রতি বাবা মায়ের খারাপ আচরণ বা তুচ্ছতাচ্ছিল্য।

এসব কারণে মানুষের মধ্যে দুশ্চিন্তা, উদ্বেগ জন্ম নেয়। ফলে মানুষ নিজের উপর  নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলে। নিজের প্রতি  মায়া কমে যায় এবং আত্মহত্যা করে।

আত্মহত্যার কারণ যত তুচ্ছই হোক না কেন, আত্মহত্যাপ্রবণ ব্যক্তির কাছে তা অনেক বড় একটি কারণ। পরিবারের কোনো সদস্য বা বন্ধু-বান্ধব এমন পরিস্থিতির শিকার হলে বা আত্মহত্যার যে আর্লি ওয়ার্নিং সাইন আছে, যদি হতাশাগ্রস্ত ব্যক্তির মধ্যে এগুলো পরিলক্ষিত হয় তাহলে তার প্রতি সহানুভূতিশীল হতে হবে। কারণ এ সময়ে হতাশাগ্রস্ত ব্যক্তি চরম একাকীত্ব অনুভব করে। পাশে বিশ্বস্ত মানুষের প্রয়োজন অনুভব করে। তাই পরিবার ও বন্ধু বান্ধবদের উচিত এই ক্রাইসিস মুহূর্তে তার উপর যত্নশীল হওয়া এবং সাহস দেওয়া।

হতাশাগ্রস্ত ব্যক্তিকে খুব জটিল মনে হলে মনোচিকিৎসক বা মনোবিদ এর কাছে নিয়ে যাওয়া। পাশাপাশি অভিভাবক বা কাছের বন্ধু বান্ধবদের উচিত তাকে পর্যাপ্ত সময় দেওয়া। আর এতে করে আত্মহত্যাপ্রবণ ব্যক্তির মধ্যে আশার সঞ্চার হয়। নতুন করে বাঁচার স্বপ্ন দেখে।

আত্মহত্যার প্রবণতা কমিয়ে আনতে সমাজের সকল স্তরের মানুষের মধ্যে সচেতনতা জাগিয়ে তোলা জরুরি। আপনি যদি মনে করেন আপনি নিজেই নানা কারণে উদ্বিগ্ন ও বিষণ্নতার মধ্যে সময় কাটাচ্ছেন। তাহলে ধর্মীয় কাজে বেশি সময় দিন। আত্মহত্যার চিন্তা থেকে দূরে রাখে এমন কাজে দ্রুত সম্পৃক্ত হোন। নিজেকে ভালো কাজে ব্যস্ত রাখুন। মানসিক সহায়তা দিতে পারবে এমন বন্ধুদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখুন। ক্ষতিকর ও বিষাক্ত দ্রব্য বা কোনো ধারালো অস্ত্র বা যন্ত্র যা দিয়ে আপনি আত্মহত্যার করতে পারেন তা ঘর বা আশেপাশে থাকলে সরিয়ে ফেলুন। পাশাপাশি নিজ দায়িত্বে মানসিক স্বাস্থ্যের বিষয়ে কাউন্সেলিং নিলে আত্মহত্যার হার অনেকাংশে কমে আসবে।

সুতরাং বিষন্নতা বা কোনো কারণে আত্মহত্যার চিন্তা মাথায় এলে তা লুকিয়ে রাখবেন না। পরিবারের কোনো সদস্য, কাছের কোনো বন্ধু বা বিশ্বস্ত কোনো ব্যক্তির সঙ্গে আলোচনা করুন।

আত্মহত্যার আর্লি ওয়ার্নিং সাইনগুলো জানুন। ওয়ার্নিং সাইনগুলো দেখামাত্র বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন। পরিবারের কোনো সদস্য বা বন্ধু-বান্ধব হতাশাগ্রস্ত হলে তার পাশে দাঁড়ান, তাকে সময় দিন। আপনার সচেতনতাই আত্মহত্যার প্রবণতা কমিয়ে আনতে পারে।

আত্মহত্যা কোনো সমাধান নয়। ব্যর্থতা, হতাশা, না পাওয়ার বেদনা এসব কষ্ট টপকিয়ে সামনে এগিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করাই জীবন।

# লেখক: লুৎফর রহমান নাঈম, শিক্ষার্থী, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়।


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর