কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


সৎ ও সত্যবাদী কেজি মতি ও কিছু কথা


 মো. শফিকুল ইসলাম শফিক | ৮ আগস্ট ২০২১, রবিবার, ১২:৩৬ | মত-দ্বিমত 



কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া উপজেলার চরটেকী নরসুন্দা বিদ্যা নিকেতন এর প্রতিষ্ঠাতা ও অধ্যক্ষ, প্রত্যন্ত চরাঞ্চল তথা গ্রামীণ জনপদে আধুনিক কিন্ডারগার্টেন স্কুল পদ্ধতির সূচনাকারী মরহুম মো. শামছুল মুসলেমিন মতি যাকে আমরা চিনতাম "কেজি মতি" হিসাবে, কিন্ডারগার্টেন বা কেজি স্কুল প্রতিষ্টার জন্য মানুষ ভালোবেসে তাঁকে নাম দিয়েছিলেন কেজি মতি। গত ০২ আগস্ট ২০২১ সোমবার সকাল আনুমানিক ৫.০০টায় জেলহাজত থেকে কিশোরগঞ্জ সদর হাসপাতালে নেওয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। ইন্না লিল্লাহ ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন।

কেজি মতি সাহেবকে নিয়ে অনেক কথা বলার বা লিখার আছে। তিনি চরটেকী সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারের সন্তান, তাঁর দাদা কন্দার বাপ ছিলেন তৎকালীন জুরিবোর্ডের হাকিম, গ্রামের এলাকার স্কুল কলেজ পড়ার শেষে তিনি ঢাকা কলেজ থেকে বিএ পাশ করেন, ছাত্র অবস্থায় তিনি সামাজিক সাংস্কৃতিক ও রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে জড়িত ছিলেন, আড্ডা দিতেন ঢাকার আজিজ মার্কেটে সাংস্কৃতিক সংগঠক ও ব্যক্তিদের সাথে।

পড়ালেখা শেষে একটা সময়ে ন্যাশানাল ব্যাংকে চাকরি করেন, নরসিংদী শাখায় চাকরি করার সময় নিজ গ্রামের মানুষের জন্য কিছু একটা করার চিন্তায় প্রায়ই গ্রামের বাড়িতে আসতেন, বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডে অংশ নিতেন।

বৃহস্পতিবার হলেই নিজ গ্রাম চরটেকীতে চলে আসার জন্য অস্থিরতা কাজ করতো কেজি মতি সাহেবের মধ্যে। এক বৃহস্পতিবার তার বয়সের চেয়ে জুনিয়র অথচ শহরের নামকরা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের পড়ুয়া ম্যানেজারের ইচ্ছাকৃতভাবে সন্ধায় অফিসে কাজ বাড়িয়ে দিয়ে বাধা দেওয়া তিনি মনে অনেক কষ্ট পান।

বৃহস্পতিবার হলে ম্যানেজার কেজি মতি সাহেবকে কিভাবে আটকানো যায় সেই ফন্দি আঁটতেন, কাজের পরিমাণ বাড়িয়ে দিতেন, তাই তার আর চাকরিতে মনে বসে বসে না। একসময়ে তিনি চাকরি ছাড়তে বাধ্য হন।

সেই থেকে তিনি চিন্তা করলেন, গ্রামের ছেলেমেয়েদের যদি শিক্ষার ভিত্তি মজবুত করা যায় তাহলে এই শহুরের পড়ুয়াদের সাথে তাল মিলিয়ে গ্রামের কৃষক মজুরের ছেলে মেয়েরা একদিন এগিয়ে যাবে, জজ ব্যরিস্টারসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের কর্ণধার হতে পারবে।

তাই এলাকার শিক্ষা উন্নয়নের মহান ব্রত নিয়ে ১৯৯২ সালে ৫ মে নিজ গ্রাম পাকুন্দিয়া উপজেলার চরটেকীতে নরসুন্দা বিদ্যা নিকেতনের যাত্রা শুরু করেন "চরটেকী আনিসের বাড়ি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়" এর ভবনে। কিছুদিন পর এটি স্থানান্তর করেন তাঁদের পৈতৃক ভিটা-জায়গায়।

দিন যায় আর প্রতিটা বছর পার হয়, শিক্ষার মান, গ্রামীণ পরিবেশে শিক্ষার্থীদের সাদা নেভিব্লু ড্রেস, বাদ্যযন্ত্রের তালে তালে কুচকাওয়াজ, খেলাধুলাসহ মনোমুগ্ধকর বার্ষিক ক্রীড়া অনুষ্ঠান, প্রাথমিকে বৃত্তিসহ বিভিন্ন দিবস অন্যান্য বিষয়ে উপজেলা পর্যায়ে সর্বোচ্চ গ্রহণযোগ্যতা অর্জন করে স্কুলটি।

কোমলমতি ছাত্রছাত্রীদের মানসিক বিকাশ ঘটানোর পাশাপাশি স্বাধীনতা যুদ্ধের ইতিহাসের সঙ্গে পরিচয়, জাতীয় বিভিন্ন দিবস উদযাপন করা, ৭ মার্চের ভাষণ মুখস্থ করে ভাষণ শিখানো মর্মার্থ বিশ্লেষণ, ভাষা আন্দোলনের শহীদদের পরিচিতি, জাতীয় দিবসে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক নিজে গ্রামীণ আঞ্চলিক ভাষায় নাটক মঞ্চায়ন, কবিতা আবৃত্তি, জারিসারি গান ইত্যাদির মাধ্যমে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসকে পৌঁছে দিয়েছেন হাজারো ছাত্রছাত্রীদের মাঝে।

সমাজের দুর্নীতি, অন্যায়, অবিচার, নিরক্ষরতার বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে গেছেন তিনি আজীবন। সকল অন্যায়ের বিরুদ্ধে ছিলেন সোচ্চার, প্রতিবাদীকন্ঠ এবং ছিলেন আপসহীন এক মানুষ।

প্রায় ২৫ বছর পর নিজেদের পৈতৃক ভিটার প্রায় ৬৫ শতাংশ জমিতে প্রতিষ্ঠিত নরসুন্দা বিদ্যানিকেতন দিনে দিনে এলাকার সুনাম বৃদ্ধি পেলেও মতি সাহেবের বোন-ভাইদের জমির ভাগবাটোয়ারা নিয়ে শুরু হয় ঝগড়া বিবাদ, নিজেদের মধ্যে সেক্রিফাইসের অভাব! একঘেঁয়েমি মনোভাব আর পাল্টাপাল্টি হামলা মামলা, শেষে ভাইদের চাপে জমি বেদখল হওয়ায় স্কুলটি বন্ধ হয়ে যায়।

দিনের পর দিন বছরের পর বছর স্কুলটি খোলার চেষ্টা করে ভাই ও সমাজের কিছু মানুষের বাধার মুখে আর পেরে উঠতে পরেননি এই শিক্ষানুরাগী কেজি মতি সাহেব, স্কুল চালানো থেকে বঞ্চিত হন চিরতরে, অর্থনৈতিকভাবে পঙ্গু হয়ে তিনি মানসিকভাবে বিকারগ্রস্ত হয়ে যান, দিনে দিনে এইভাবে মামলা হামলা শিকার হয়ে, একমাত্র শিশু সন্তান মুকুট কন্দাকে নিয়ে হয়ে অসহায় বিপদগামী, বিপথগামী থেকে একজন শিক্ষানুরাগী শিক্ষাবিদ হয়ে যায় খুনি, বড় ভাইয়ের খুনের দায়ে জেলহাজতে থাকতে হয় প্রায় দুই বছর।

সমাজ গড়ার কারিগর কেজি মতি পরাজিত হন গ্রামীণ সমাজের "ভিলেজ পলিটিক্স" নামক অপসংস্কৃতির কাছে, হেরে যান জীবন ও জীবিকার কাছে।

কেজি মতির একটা বড় গুণ ছিলো, তিনি সত্য কথা বলতেন, সৎ জীবন যাপন করতেন, বৃষ্টির রাতে তাঁর জানাজায় হাজার হাজারো লোকের আগমনে জানান দেয়, তিনি কত মানুষের প্রিয় ছিলেন, কত ছাত্রছাত্রীর জীবনের তিনি প্রদীপ জ্বেলেছেন। জানাজার পূর্বে বক্তারা কান্নায় ভেঙে পড়েন, কান্নার রোল ভেসে উঠে আকাশে, জানাজায় আগতরা চিরনিদ্রায় শায়িত করেন তাঁর ইচ্ছানুযায়ী আধুনালুপ্ত তার প্রতিষ্ঠিত স্কুলের মাঠের পূর্ব-দক্ষিণ কোণে।

জীবনের অন্তীম সময়েও তিনি সত্য কথা বলতে একটুও দ্বিধাবোধ করেন নি। তাইতো দেখি জেলখানায় নিজের জীবন বিপন্ন হবে জেনেও আইন-আদালতের কাছে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়ে গেছেন। তিনি পারতেন, নিজে ভাই হত্যার দায় স্বীকার না করে অন্যদের উপর চাপিয়ে দিতে, যদিও এটি ছিলো একটি অনাকাঙ্ক্ষিত হত্যা। একক হত্যার দায় স্বীকার না করলে আরো অনেক বিশৃঙ্খলার সৃষ্টি হতো এই সমাজে।

বেলা শেষেও আপনি আবারো প্রমাণ করলেন, সত্য কথা বলা ছিলো আপনার অলংকার। কেজি মতি সাহেব ভালো থাকুন পরপারে, আপনার একমাত্র শিশু সন্তান মুকুট কন্দা হয়ে উঠুক একজন দেশপ্রেমিক মানবহিতৈষী মানুষ, দোয়া রইল।

লেখক: মো. শফিকুল ইসলাম শফিক, সভাপতি, চরটেকী উচ্চ বিদ্যালয়, পাকুন্দিয়া, কিশোরগঞ্জ।


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর