কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


বিশ্বকাপের ছক্কা-৬: পাহাড়ে সাগরে লড়াই


 মো. শাহাদত হোসেন | ৪ জুন ২০১৯, মঙ্গলবার, ১২:০০ | বিশ্বকাপ ফুটবল ’১৮/ ক্রিকেট বিশ্বকাপ ‘১৯ 


সাগরবেষ্টিত শ্রীলংকা এ উপমহাদেশের খুব পরিচিত একটা দেশ। মহাভারতের কল্যাণে এ পরিচিতির পরিধি আরো বেশি। ৬৫,৬১০ বর্গ কিলোমিটারের ছোট্ট এ দেশটির লোকসংখ্যা প্রায় ২১.৪৪ মিলিয়ন। ভারতের দক্ষিণ উপকূল থেকে মাত্র ৩১  কিলোমিটার দুরে ভারত মহাসাগরে আবস্থিত (যার তটরেখা ১,৩৪০ কিলোমিটার) শ্রীলংকার ইতিহাস ও ঐতিহ্য বেশ পুরনো।

অন্যদিকে শুধু স্থলবেষ্টিত আফগানিস্তানও এ উপমহাদেশে অপরিচিত নয়। ভারতের ইতিহাসে নানাভাবে আফগানিস্তান জড়িয়ে আছে। তাছাড়া সৈয়দ মুজতবা আলীও আমাদেরকে আফগানের সাথে পরিচয় করিয়ে দিয়েছেন। মাত্র ২৮.১৫ মিলিয়ন জনসংখ্যা অধ্যুষিত পাকিস্তানের সীমান্তবর্তী দেশটির আয়তন ৬,৫২,৮৬৪ বর্গ কিলোমিটার। প্রায় ৫০ হাজার বছর পূর্বে এ অঞ্চলে মনুষ্য বসতি ছিল বলে অনুমান করা হয়।

শ্বাপদসঙ্কুল পর্বত আর উত্তাল সমুদ্র মানুষের স্বভাব চরিত্রেও প্রভাব ফেলে। আজ (৪ জুন) এই ভিন্ন দুই প্রকৃতির লড়াই হবে কার্ডিফের সোফিয়া গার্ডেনে।

উল্লেখ্য যে, শ্রীলংকা যেমন ভারতের প্রতিবেশি, আফগানিস্তান তেমনি পাকিস্তানের প্রতিবেশি। ফলে ভারত-পাকিস্তানের ক্রিকেটের প্রভাবও এ দু’দেশের উপর পড়েছে। সুতরাং আজকের (৪ জুন) লড়াইয়ে যে পরোক্ষভাবে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ভারত-পাকিস্তানের লড়াইয়ের ছাপ থাকবে তাতে কোন সন্দেহ নেই।

তবে লড়াই হলে তো? কারণ যুদ্ধটা যে ক্রিকেটের। এখানে আফগানিস্তানের চেয়ে শ্রীলংকা যোজন যোজন দূর এগিয়ে।

কিছু তথ্য-উপাত্তের দিকে তাকালেই তা সহজে বুঝা যাবে। শ্রীলংকা বিশ্বকাপ খেলে আসছে বিশ্বকাপের প্রথম আসর অর্থাৎ সেই ১৯৭৫ সাল থেকেই। তবে প্রথম পাঁচটি আসরে লংকানরা গ্রুপ পর্বই পেরুতে পারেনি। চমক দেখিয়েছে ১৯৯৬ বিশ্বকাপে এসে।

আগের পাঁচটি বিশ্বকাপে গ্রুপ পর্ব থেকে বিদায় নেয়া লংকানরা এবার গ্রুপের পাঁচ খেলার পাঁচটিতেই জিতে গ্রুপ সেরা হয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে উঠে। এরপর কোয়ার্টার ফাইনালে ইংল্যান্ডকে, সেমিফাইনালে ভারতকে এবং ফাইনালে অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়। পাকিস্তানের লাহোরে গাদ্দাফি স্টেডিয়ামে রূপকথার রচনা করে শ্রীলংকা।

চ্যাম্পিয়নশিপের পরের বছর আবারো গ্রুপ পর্ব উতরাতে পারেনি শ্রীলংকা। তবে তার পরের চারটি বিশ্বকাপে তাদের সাফল্য নেহাত কম নয়। ২০০৩ সালে সেমিফাইনাল, ২০০৭ ও ২০১১ সালে রানার্স-আপ এবং সর্বশেষ বিশ্বকাপে কোয়ার্টার ফাইনাল খেলে দিমুথ করুণারত্নের শ্রীলংকা।

আর আফগানিস্তান? যুদ্ধবিধস্ত দেশটি বিশ্বকাপে প্রথম সুযোগ পায় ২০১৫ সালে। সেবার গ্রুপের ৬টি ম্যাচের ৫টিতেই হারে তারা। শুধু স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে জিতে।

অর্থাৎ বিশ্বকাপে শ্রীলংকার সাফল্যের হার ৫০% আর আফগানিস্তানের ১৭%। এসব বিবেচনায় নিলে আজকের লড়াইটা যে অসম হবে তাতে কোন সন্দেহ নেই।

কিন্তু তবু সন্দেহ আছে। কারণ পার্বত্য এলাকার কষ্টসহিষ্ণু জীবন আফগানদের। হেরে যাওয়ার আগে হেরে যেতে রাজি নয় তারা। এর স্বাক্ষর তারা রেখেছে এবারের বিশ্বকাপের চতুর্থ ম্যাচে। বিশ্বসেরা অস্ট্রেলিয়ার সাথে লড়াই করে তবেই তারা হেরেছে।

যেখানে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে পাকিস্তান ১০৫ এবং নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে শ্রীলংকা ১৩৬ রানের বেশি করতে পারেনি, সেখানে ৭৭ রানে ৫ উইকেট হারানোর পরও কষ্টসহিষ্ণু আফগানরা ২০৭-এ তাদের ইনিংস শেষ করে। আর এ লড়াইয়ে নেতৃত্ব দিয়েছে নজিবুল্লাহ জারদান ও রহমত শাহ্। সুতরাং আফগানিস্তানকে হেলাফেলার চোখে দেখলে শ্রীলংকার কপালে দুঃখ আছে।

শুধু কি তাই? এ মুহূর্তে আইসিসি র‌্যাঙ্কিংয়ে শ্রীলংকা-আফগানিস্তানের অবস্থান পিঠাপিঠি। ওডিআইয়ে শ্রীলংকার র‌্যাঙ্কিং ৯, আর আফগানিস্তানের ১০; অন্যদিকে টি২০তে আফগানিস্তানের র‌্যাঙ্কিং ৭, আর শ্রীলংকার ৮। তাই কেউ কাউকে ছেড়ে দিবে এমনটি ভাবার কোন কারণ নেই।

(লেখক: মো. শাহাদত হোসেন, সহকারী অধ্যাপক, ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগ, গুরুদয়াল সরকারি কলেজ, কিশোরগঞ্জ। Email: sahadot.hossain@gmail.com)




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর