কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


স্বাধীনতার পর নতুন ধারার সংস্কৃতিচর্চা


 মু আ লতিফ | ৮ আগস্ট ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ১২:২০ | সংস্কৃতি 


স্বাধীনতা লাভ ও বাংলাদেশের অভ্যুদ্বয়ের পর কিশোরগঞ্জে সংস্কৃতিচর্চার ক্ষেত্রে নতুন ধারার সূত্রপাত হয়। এসময় নাটক, সঙ্গীতানুষ্ঠান, বাউল গানের আসর ও রবীন্দ্র-নজরুল জয়ন্তিসহ বিভিন্ন অনুষ্ঠান আয়োজনের মাধ্যমে কিশোরগঞ্জে একটি সংস্কৃতিচর্চার অনুকূল আবহ গড়ে উঠে।

ওইসময় একাধারে মাসাধিককালব্যাপী নাটক মঞ্চায়নের রেকর্ড সৃষ্টি হয়। এসব ক্ষেত্রে ডা. জেবি রায়, অধ্যাপক জিয়াউদ্দিন আহমদ, অধ্যাপক সিএল রায়, অধ্যাপক আতিকুল্লাহ চৌধুরী, এমএ আজিজ, নীলোৎপল কর, মোহাম্মদ সাইদুরসহ অনেকেই উল্লেখযোগ্য ভূমিকা পালন করেন।

১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধু হত্যা ও রাজনৈতিক পরিবর্তণের কারণে সাংস্কৃতিক অঙ্গনে ভাটা পড়ে। তবে ১৯৭৭ সাল থেকে আবার সংস্কৃতিকর্মীরা সক্রিয় হয়ে ওঠেন।

আর্টস কাউন্সিল হলের সম্পাদকের দায়িত্ব নেন সিরাজুল হক আংগুর। লোকসংস্কৃতি, সঙ্গীত সন্ধ্যা ও নাটক মঞ্চায়নের নানা আয়োজনে আবার জমজমাট হয়ে ওঠে সাংস্কৃতিক অঙ্গন।

১৯৭২ সালে বদিউল আলম মতির পরিচালনায় রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ‘দুইবিঘা জমি’র কবিতা মুখাভিনয় অনুষ্ঠিত হয় আর্টস কাউন্সিল হলে।

এ নাটকে প্রথম বারের মত উপেন চরিত্রে অভিনয় করে মোহাম্মদ আলজুস ভুঞা। তার অভিনয় অত্যন্ত প্রশংসিত হয়। কিছুদিন পর কল্লোল সমিতি নারায়ণ গঙ্গোপাধ্যায়ের ‘ভাড়াটে চাই’ হাসির নাটকে মোহাম্মদ আলজুস ভুঞা অসামান্য অভিনয় করে সকলের দৃষ্টি কাড়ে।

১৯৭৭ সালে মঞ্চস্থ করা হয় আবদুল্লাহ আল মামুনের ‘এখন দুঃসময়’। একই বছর শৈলেশ গুহ নিয়োগীর প্রহসনধর্মী নাটক ‘ফাঁস’। এ নাটকে অভিনয় করতে আসেন ঢাকার প্রখ্যাত শিল্পী রাণী সরকার।

‘এখন দুঃসময়’ আর্টস কাউন্সিল হলে প্রায় মাসাধিককাল একাধারে মঞ্চায়নের মধ্য দিয়ে এক নতুন রেকর্ড সৃষ্টি হয়। তৎকালে আরো বেশ কিছু নাটক মঞ্চায়িত হয়েছিল। সে গুলির মধ্যে যেমন সুবচন নির্বাসনে,শাহজাদীর কালো নেকাব, আয়না, তোমরাই এবং ওরা।

অন্যদিকে এসময়  কিশোরগঞ্জে ‘বৃহস্পতি নাট্য গোষ্ঠী’ নামে একটি শক্তিশালী নাট্য সংগঠনের জন্ম হয়। এ সংগঠনের উদ্যোগে মঞ্চস্থ নাটকে প্রথমবারের মত কিশোরগঞ্জে অপেশাদার শৌখিন নারী নাট্যশিল্পী অভিনয় করেন। এদের মধ্যে নাসরিন সুলতানা ও ন্যান্সি অন্যতম। এরা ছিলেন আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার আসামি সার্জেন্ট আবদুল জলিলের দুই কন্যা।

এ সংগঠনটি তৈরি করেছিলেন শহিদুল ইসলাম মতি, সিরাজুল হক আংগুর, মুক্তি চৌধুরী, সালাহ উদ্দিন আহমেদ, বিভাস চৌধুরী, রুহুল আমিন, মৃণাল দত্ত প্রমুখ। এছাড়াও ডা. সাহেব আলী পাঠান ও  এমএ আফজাল সংগঠনটির শক্তি সঞ্চয়ে বলিষ্ঠ ভূমিকা রেখেছিলেন।

আশির দশকে কিশোরগঞ্জে নাটক ও সংস্কৃতিচর্চায় ব্যাপক জাগরণ সৃষ্টি হয়। স্থানীয় গুরুদয়াল কলেজ ও শহরের বিভিন্ন এলাকায় নাট্য সংগঠন গড়ে উঠে। খড়মপট্টিতে তরুণ সংঘ ও কিশোর কাফেলা, হয়বতনগরে  যুব কল্যাণ সমিতি ও সেবক সংঘ নামে বেশ ক’টি সংগঠন সক্রিয়ভাবে কাজ করে। (চলবে)




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর