কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জে সংস্কৃতিচর্চা‘


 মু আ লতিফ | ৪ আগস্ট ২০১৯, রবিবার, ১২:২২ | সংস্কৃতি 


কিশোরগঞ্জ অঞ্চলের সাহিত্য-সংস্কৃতি মুলত উজান-ভাটির সমন্নয়ে গঠিত অপরূপ কাব্যিক দ্যোতনায় উদ্ভাসিত। হাওরের বিস্তীর্ণ জলরাশি, জলের কিনারে সংগ্রামী মানুষের বসবাসের বৈচিত্রময় প্রকৃতি ও অন্যদিকে উজানে দিগন্তবিস্তারী ফসলের মাঠ, সবুজের সমারোহে মানুষের কাব্যিক জগতকে ছন্দায়িত করেছে।

এখানকার সাহিত্য-সংস্কৃতির ঐতিহ্য গৌরবোজ্জল এতে কোন সন্দেহ নেই।

তবে এটাও সত্য, এখানকার সংস্কৃতিচর্চার ইতিহাস খুব সুপ্রাচীন নয়। আধুনিকতার ছোঁয়া লেগেছে তাও বেশি দিনের কথা নয়। কারণ আমরা দেখি, পুরো মধ্যযুগে বাংলা সাহিত্য দেবকীর্তন ও বন্দনার মধ্যেই সীমাবদ্ধ ছিলো।

কেবল ধর্মের মহিমা ও দেবকীর্তন ছাড়া মানুষের প্রেম, ভালোবাসা ও দুঃখ, বেদনার চিত্র ছিলো অনুপস্থিত। এসময়ই ড. দীনেশ সেনের ঐকান্তিক চেষ্টায় প্রকাশিত হয়, ‘মৈমনসিংহ গীতিকা’ ও ‘পূর্ববঙ্গ গীতিকা’। এর মধ্যদিয়ে ঘটে যায় বিপ্লব। উদ্ভাসিত হলো এক উজ্জল, মহৎ ও আধুনিক সাহিত্য।

উল্লেখিত গ্রন্থ দুটিতে প্রকাশিত গাথাগুলোর রচয়িতা এ অঞ্চলের সামান্য শিক্ষিত বয়াতীরা। এর নায়ক-নায়িকারা সাধারণ মানুষ। এতে বর্ণিত হয়েছে তাদের প্রেম, ভালোবাসা, সুখ-দুঃখ ও আশা-আকাক্সক্ষার চিরায়ত রূপ।

চন্দ্র কুমার দে’র সংগ্রহে ও ড. দীনেশ চন্দ্র সেনের গ্রন্থনায় প্রকাশিত দুটি গ্রন্থের ‘মলুয়া-চাঁদবিনোদ’, ‘দেওয়ান মদিনা’, কঙ্ক ও লীলা’, মহুয়া ইত্যাদি কাব্যগাথায় তৎকালীন অর্ধশিক্ষিত বয়াতীরা যে কাব্যিক পরিচয় দিয়েছেন তা অসাধারণ।

এসব পালাগান ওইসময় এতদঞ্চলের মানুষের হৃদয়কে ছুঁয়ে গিয়েছিলো। গ্রামে গ্রামে দলবেধে এসব পালাগান গাওয়া হতো। গ্রামীণ জীবনে এগুলো ছিলো মানুষের চিত্তবিনোদনের আকর্ষণ।

কবি চন্দ্রাবতীর রামায়ণ ও তাঁর পিতা দ্বিজ বংশীদাসের মনসামঙ্গল পালা একসময় এ অঞ্চলে গীত হতো। তাছাড়া বৈষ্ণব পদাবলিসহ পালাগান, মহানবীর জীবনী, হজরত আলী, হজরত হামজার বীরত্বগাথা নিয়ে কাহিনীকাব্যের প্রচলন এখানে ছিল।

এখানে মলুয়া, দেওয়াানা মদিনার পালাগান, কারবালার হৃদয় বিদারক কাহিনী নিয়ে জারিগান, কবি গান, পুঁথিপাঠ, বিয়ের গান এবং যাত্রাপালা, নাটক, ঝুমুর দলের নাট্যপালা মঞ্চায়ন হতো।

অনেকের মতে, উনবিংশ শতকের শেষ ভাগে এ অঞ্চলে মানুষ ব্যাপকহারে সংস্কৃতিচর্চার সঙ্গে জড়িত হয়। এবং এই সাংস্কৃতিক কার্যক্রম ব্যবসাকেন্দ্র ও বাণিজ্যিক বন্দরকেন্দ্রীয় শুরু হয়েছিল। যেমন ব্রহ্মপুত্র পাড়ের হোসেনপুর বাজার, মেঘনাতীরের ভৈরব নৌবন্দর, পাটের বাণিজ্যকেন্দ্র নিকলী ও তাড়াইল বাজারের ব্যবসায়ীদের বিনোদনকে কেন্দ্র করে নাচ-গান-নাটকের আয়োজন করা হতো।ওইসময় হিন্দু সম্প্রদায়ের পূজা-পার্বণে যাত্রাপালা পরিবেশন করা হতো।

বিভিন্ন সূত্রমতে জানা যায়, উনবিংশ শতকের ষষ্ঠ দশকে ভারতের পশ্চিমবঙ্গ থেকে আমন্ত্রিত হয়ে শিল্পীরা ভৈরবে ‘রামলীলা’ যাত্রাপালা পরিবেশন করেছিলেন।

অন্যদিকে এও বলা হয়, বিদেশি বণিকরাই নিকলীতে সাংস্কৃতিক চর্চার সূত্রপাত করেছিলেন। তৎকালে নিকলী ছিল পাটের বাণিজ্যকেন্দ্র। ওখানে বিদেশি বণিকরা স্থায়ীভাবে বসবাস করতেন। তাদের বিনোদনের জন্যই সেখানে নাটক মঞ্চায়ন শুরু করেন। সম্ভবত সেটা ১৮৮৩ সালের কথা। ওখানকার বড় বড় গোদামঘরগুলোই ছিল এসব নাটক মঞ্চায়নের স্থান।

তাড়াইলের দামিহার উমেশ চৌধুরীর উমেশ অপেরা তৎকালে সুপরিচিত ছিল। প্রতিবছর শারদীয় পূজায় তিনি বাড়িতে যাত্রাপালা প্রতিযোগিতার আয়োজন করতেন। তার বাড়ির নাচমহল ও রঙমহল গান, নাটক ও যাত্রাগানের আসরে জমজমাট থাকতো।

উমেশ চৌধুরীর অপেরাদল ঈসা খা, কেল্লা তাজপুর, নবাব সিরাজউদ্দৌলা, ভাওয়াল সন্যাসী, মহুয়া, কাজল রেখা, কাঞ্চনমালা ইত্যাদি যাত্রাপালা পরিবেশন করে বিশেষ সুনাম অর্জন করেছিল।

নিকলীতে ১৯৩৫ সালে টাঙ্গাইলের অধিবাসী রমণী প্রসাদ তালুকদার ‘নিকলী থিয়েটার’ নামেও একটি নাট্য সংগঠন তৈরি করেছিলেন। এছাড়াও ১৯৫৬ সালে গোড়াচাঁদ হাই স্কুলে স্থায়ী মঞ্চ তৈরি হলে সেখানে প্রায় প্রতি মাসেই নাটক ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হতো।

অবশ্য পরে ১৮৯১ সালে ‘কিশোরগঞ্জ নাট্য সমাজ’ নামে একটি সৌখিন নাট্য সংগঠন গড়ে উঠেছিল। তৎকালীন কিশোরগঞ্জ দেওয়ানি আদালতের জনৈক মুন্সেফের একান্ত আগ্রহ ও কতিপয় কর্মচারির চেষ্টায় ওই সংগঠনটির জন্ম হয়েছিল।

এ সংগঠনের কর্মীরাই তৎকালে ইংল্যান্ডের প্রিন্স এডওয়ার্ডের নামানুসারে ‘এডওয়ার্ড হল’ প্রতিষ্ঠা করেন। পরে ১৯৫৮ সালে কিশোরগঞ্জের মহকুমা প্রশাসক আবদুল করিম চৌধুরীর একান্ত আগ্রহ ও স্থানীয় শিল্পীদের সক্রিয় সহযোগিতায় উক্ত এডওয়ার্ড হলটিকে আর্টস কাউন্সিল নামকরণ করা হয়। বর্তমানে এরই নাম জেলা শিল্পকলা একাডেমি।

একসময় কিশোরগঞ্জ রথখোলা পৌনেচারআনি বাড়ির জমিদার বিরাজ মোহন রায় তাঁর বাড়িতে নাটক মঞ্চস্থ করতেন। এমনও শোনা  গেছে, এখানে নাটকের প্রতিযোগিতা হতো। তিনি নিজেও একজন উৎকৃষ্ট সেতারবাদক ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব ছিলেন।

ত্রিশের দশকে ‘ভৈরব অপেরা’ নামে একটি যাত্রাদল প্রতিষ্ঠার কথা জানা যায়। এটির প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন ভৈরবের বেণীমাধব ভট্টাচার্য। ১৯৪৮ সাল পর্যন্ত এটি সক্রিয় ছিল।

ওই বছরই ভৈরবে প্রতিষ্ঠা করা হয় ‘ইয়ং ম্যানস প্রোগ্রেসিভ এসোসিয়েশন’। এরা প্রথম মঞ্চস্থ করেন ‘টিপু সুলতান’। সুবোধ বাগচীর পরিচালনায় এ নাটকে অভিনয় করেছিলেন মো. জিল্লুর রহমান (প্রয়াত রাষ্ট্রপতি), কথাসাহিত্যিক মিন্নাত আলী ও অন্যান্য।

১৯৫৭ সালে ভৈরবে প্রতিষ্ঠিত হয় ‘সাংস্কৃতিক সংঘ’ ও ১৯৫৮ সালে ‘শিল্পী পরিষদ’। ভৈরবে নাটক ও সাংস্কৃতিক চর্চায় উল্লেখযোগ্য অবদান রাখে।

এ সময় ভৈরবের নাট্যাভিনেতাদের মধ্যে ছিলেন নুরুল ইসলাম, মোখলেছ মিয়া, নুরুল হক, খুর্শিদ মাস্টার, মিহির সেন, মজিবুর রহমান, হিরা মিয়া, আতাউর রহমান, মুর্শেদ আনোয়ার, বশীরউদ্দিন, শফিকুর রহমান অন্যতম।

কিশোরগঞ্জের অন্যান্য অঞ্চলেও সাংস্কৃতিকচর্চা ছিলো। হোসেনপুর, তাড়াইল, কটিয়াদীতে নাটক মঞ্চায়ন ও সাংস্কৃতিকচর্চা হতো।

কটিয়াদীর বনগ্রাম, মসুয়া, আচমিতা, বানিয়াগ্রামেও নিয়মিত যাত্রাপালা ও নাটক মঞ্চস্থ হতো। কটিয়াদীর পশ্চিমপাড়ার জমিদার কুমুদ সাহা রায় তৎকালে একজন বিশিষ্ট নাট্যামোদী হিসেবে পরিচিত ছিলেন।

ওই সময় আচমিতা ও মসুয়ার বেশ কিছু নাট্যকর্মীর আগ্রহে ‘নাট্যসংঘ’ গঠন করা হয়েছিল। এ সংগঠনটি ১৯৭০ সাল পর্যন্ত সক্রিয় ছিল।

হোসেনপুরের গাঙ্গাটিয়ার জমিদার পরিবারের সদস্যদের মাধ্যমে সেখানে সংস্কৃতিচর্চা ছিল। ওই বাড়ির জমিদার ভূপতিনাথ চক্রবর্তী চৌধুরী ছিলেন একজন সঙ্গীতজ্ঞ।

এদিকে তাড়াইলের দামিহা গ্রামের উমেশ চৌধুরীবাড়ির তত্বাবধানে পঞ্চাশের দশকে নাট্য কোম্পানি নামে একটি যাত্রাদল সক্রিয় ছিল বলেও জানা যায়। তিনি প্রতিবছর পূজায় যাত্রাপালার আয়োজন করতেন। তাঁর বাড়ির নাচমহল ও রঙমহলে গান ও নাটেক মঞ্চস্থ হতো। তাঁর অপেরা দল ঈসা খা, কেল্লা তাজপুর, নবাব সিরাজউদ্দৌলা, ভাওয়াল সন্যাস, মহুয়া, কাজল রেখা, কাঞ্চনমালা ইত্যাদি যাত্রাপালা আয়োজন করে সে সময় যথেষ্ট সুনাম অর্জন করেছিল।

আগেই উল্লেখ করা হয়েছে বর্তমান কিশোরগঞ্জ  শিল্পকলা একাডেমি প্রথমে এডওয়ার্ড হল ছিলো। পরে এটি ১৯৫৮ সালে আর্টস কাউন্সিল হল হয়ে বর্তমানে জেলা শিল্পকলা একাডেমি নাম ধারণ করেছে।

এটি প্রতিষ্ঠার পর থেকে এখানে নাটক ও সাংস্কৃতিকচর্চার অনুকূল পরিবেশ সৃষ্টি হয়। ক্রমেই গান, নাটকসহ নানা অনুষ্ঠানের আয়োজন হতে শুরু করে। একে কেন্দ্র করে নতুন নতুন শিল্পী সৃষ্টি ও সঙ্গীতানুরাগীর আবির্ভাব ঘটে। (চলবে)




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর