কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


স্বাধীনতা বইমেলা ২০১৯


 মু আ লতিফ | ১৪ আগস্ট ২০১৯, বুধবার, ১১:৪৮ | আমাদের কিশোরগঞ্জ 


শেষ করার আগে যে কথাটি বলতে মন আনচান করছে সেটি পাঠকদের কাছে নিবেদন করার অনুমতি নিশ্চয় পাবো, এমনটি আমি আশা করতেই পারি। সেটি হচ্ছে,‘স্বাধীনতা বইমেলা ২০১৯’ আয়োজনের বিষয়।

কিশোরগঞ্জে এর আয়োজনটি ছিলো একেবারেই প্রথম। নিখাদ বইমেলা আয়োজনের চিন্তাটি আমার মাথায় ঘুরপাক খাচ্ছিল বহুদিন ধরেই। কিন্তু তা হয়ে উঠেনি।

এবার সাহস করেই বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করতে শুরু করি। আমি কবি আমিনুল ইসলাম সেলিম, বিজন বণিক, ছাদরুল উলা তাদের সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে আলাপ করি। এরা প্রত্যেকেই আমাকে সমর্থন করে।

পরে আলোচনা হয় ‘কিশোরগঞ্জ নিউজ’ অফিসে। এক কথায় এখানে উপস্থিত সবাই আমার প্রস্তাবে সমর্থন জানায়। সাংবাদিক আশরাফুল ইসলাম তাৎক্ষণিকভাবে ‘স্বাধীনতা বইমেলা’ এ নামটি প্রস্তাব করে। উপস্থিত সাংবাদিক আহমদ ফরিদ, আল আমিন ও অন্যান্য এ নামটি লুফে নেয়।

আমিও উৎসাহিত বোধ করি এবং আমার মনে সাহসের সঞ্চার হয়। আমিও ভাবতে শুরু করি বইমেলা করা যাবে এবং এর জন্যে উপযুক্ত লোকের অভাব হবে না।

শুরু হয় আমাদের পথচলা। আমি এ ব্যাপারে আরো আলোচনা করি ছড়াকার জাহাঙ্গীর আলম জাহানের সঙ্গে। আলাপ করি সাংবাদিক সাইফুল হক মোল্লা দুলু’র সঙ্গে। এরাও আমাকে সমর্থন জানায়। আমি কথা বলি প্রফেসর প্রাণেশ কুমার চৌধুরী, চিত্রশিল্পী এমএ কাইয়ুমসহ আরো অনেকের সঙ্গে।

প্রত্যেকেই বইমেলার বিষয়ে আমার ভাবনাকে দারুনভাবে সমর্থন জানান। এরপর আমি কিশোরগঞ্জ নিউজ অফিসে একটি সভা আহবান করি। সভায় সাংবাদিক, লেখক ও সাংস্কৃতিক কর্মীরা উপস্থিত হন।

আমি তাদের সামনে বইমেলা আয়োজন বিষয়ে আমার ভাবনা তুলে ধরি। সবাই এর ওপর আলোচনা করেন এবং শেষে বইমেলা পরিচালনার জন্য আমাকে আহবায়ক ও সাইফুল হক মোল্লাহ দুলুকে সদস্য সচিব করে একটি আহবায়ক কমিটি গঠন করার সিদ্ধান্ত হয়।

অবশেষে সকলের সম্মিলিত চেষ্টায় আমরা ২৫ শে মার্চ থেকে ৩১ শে মার্চ সাতদিন ব্যাপী সফল ভাবে স্বাধীনতা বইমেলা সম্পন্ন করি। আমাদের উদ্দেশ্য  ছিলো সাধারণ মানুষকে বিশেষ করে ছাত্র ছাত্রীদেরকে বই পাঠে আগ্রহশীল করা। এজন্যে  আমরা বইমেলা উপলক্ষে শিক্ষার্থীদের নিয়ে চিত্রাংকন,আবৃত্তি, শুদ্ধ পঠন ও সাধারণ জ্ঞানের প্রতিযোগিতা করি। এদের মধ্যে প্রায় শতাধিক বিজয়ীকে আমরা বই পুরস্কার দেই।

বইমেলায় লেখক, সাংবাদিক, কবি, ছড়াকার, বুদ্ধিজীবী, ভাষা সৈনিক, মুক্তিযোদ্ধা, গুণীব্যক্তিত্বকে আমন্ত্রণণ জানাই। তাঁরা উপস্থিত সর্বস্থরের মানুষের সামনে বাংলা ভাষা, বই পাঠ, ভাষা আন্দোলন, মুক্তিযুদ্ধ, পাঠাগারের গুরুত্ব ইত্যাদি নির্ধারিত বিষয়সমুহের উপর বক্তৃতা করেছেন।

বইমেলাটিতে শুধু মাত্র বইয়ের স্টল ছিলো। মেলায় আমরা অন্য কোনো পণ্যের স্টল খুলতে দেইনি। আমরা শতভাগ সফল হয়তো হইনি কিন্তু আমাদের প্রয়াস আমাদেরকে ভবিষ্যতের সম্ভাবনাকে জাগিয়ে তুলতে সক্ষম হয়েছে। আমরা যে সুন্দর ও সার্থকভাবে বইমেলার আয়োজন করতে পারি, এটাই এবার আমরা প্রমাণ করেছি।

বইমেলা পরিচালনা করতে গিয়ে আবারো প্রমাণ হয়েছে,ভালো কাজ সেটি কঠিন হলেও সম্পন্ন করা অসম্ভব কিছু নয়। আমরা স্বাধীনতা বইমেলা পরিচালনা করতে যেয়ে সর্বমহলের সমর্থন পেয়েছি, সেজন্যে আমরা প্রত্যেকের কাছে কৃতজ্ঞ। (চলবে)




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর