কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


একজন আদর্শ রাজনীতিবিদ রাষ্ট্রপতি মো. জিল্লুর রহমান


 মু আ লতিফ, সাংবাদিক ও আঞ্চলিক ইতিহাস-ঐতিহ্য সন্ধানী লেখক | ১৯ মার্চ ২০২০, বৃহস্পতিবার, ১:১৫ | ব্যক্তিত্ব 


দেশপ্রেমিক রাজনীতিবিদের এক উজ্জ্বল উদাহরণ বাংলাদেশের ১৯তম রাষ্ট্রপতি মো. জিল্লুর রহমান। তাঁর জীবন ও কর্ম এবং ত্যাগের মহিমা পরবর্তী প্রজন্মের জন্য চিরকাল অনুকরণীয় আদর্শ হয়ে জ্বলজ্বল করবে। তিনি বাংলাদেশের একজন কীর্তিমান রাজনীতিবিদ। নেতার প্রতি অবিচল আস্থা, দেশ ও জাতির ক্রান্তিকালে অসীম ধৈর্য ও প্রজ্ঞা তাঁকে যেমন মহান করেছে, তেমনি জাতিকেও গণতন্ত্রের সড়কে প্রতিস্থাপিত করেছে।

মো. জিল্লুর রহমান আপাদমস্তক একজন আদর্শ রাজনীতিবিদ। ছাত্রাবস্থা থেকেই তিনি রাজনীতির একজন সক্রিয় যোদ্ধা। মুক্তিযুদ্ধের একজন বিশিষ্ট সংগঠক এবং এ দেশের প্রতিটি গণতান্ত্রিক সংগ্রামের তিনি অন্যতম পুরোধা পুরুষ।

’৫২-এর ভাষা আন্দোলনে কিশোরগঞ্জের যে কজন কীর্তিমান ছাত্রনেতা সে সময়ে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছিলেন, তাদেরও একজন তিনি। তিনি ছিলেন তখন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র। থাকতেন ফজলুল হক হলে। ’৫২ সালে তিনি বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ফজলুল হক হলের সহসভাপতি নির্বাচিত হন।

’৫২-এর উত্তাল দিনগুলোতে তিনি ছাত্রনেতা হিসেবে বিশেষ ভূমিকা পালন করেন। ছাত্ররা যখন ২১ ফেব্রুয়ারি (১৯৫২) তারিখে ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করার সিদ্ধান্তে অনমনীয়, তখন তারা প্রস্তুতি নিতে ১৯ ফেব্রুয়ারি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আমতলায় এক সভা করেন।

এতে সভাপতিত্ব করেন জিল্লুর রহমান এবং এ সভাতেই সিদ্ধান্ত হয় ১৪৪ ধারা ভঙ্গের। ভাষা আন্দোলনে অংশগ্রহণের কারণে ১৯৫৩ সালে তিনি গ্রেফতার হন।

তাঁকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কার করা হয় এবং স্বৈরাচারী সরকার তাঁর এমএ ডিগ্রি কেড়ে নেয়। এ ঘটনায় ছাত্ররা প্রবল আন্দোলন শুরু করে এবং এর ফলে সরকার বশ্যতা স্বীকার করে এবং তাঁর ডিগ্রি ফিরিয়ে দিতে বাধ্য হয়।

জননেতা মো. জিল্লুর রহমান ১৯২৯ সালের ৯ মার্চ কিশোরগঞ্জ জেলার ভৈরব পৌরসভার ভৈরবপুর মোল্লা বাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর শৈশব ও কৈশোরের দিনগুলো কাটে নানাবাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার পৈইরতলা গ্রামে। কারণ তাঁর বয়স যখন মাত্র সাত মাস তখন তিনি মাকে হারান।

আবার নয় বছর বয়সে তিনি তাঁর বাবাকেও হারিয়ে এতিম হয়ে যান। নানা-নানি ও দাদা হাজী মোজাফফর মুন্সির প্রত্যক্ষ যত্ন ও তত্ত্বাবধানে বেড়ে ওঠেন কিশোর জিল্লুর রহমান।

তাঁর পিতা মেহের আলী ছিলেন ময়মনসিংহের একজন প্রখ্যাত আইনবিদ। বৃহত্তর ময়মনসিংহের লোকাল বোর্ডের তিনি ছিলেন চেয়ারম্যান। তিনি জেলা বোর্ডেরও সদস্য ছিলেন।

জিল্লুর রহমান ভৈরবের কেবি হাই স্কুল থেকে ১৯৪৫ সালে মেট্রিক, ঢাকা ইন্টারমিডিয়েট কলেজ থেকে আইএ, ১৯৫৪ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইতিহাসে অনার্সসহ এমএ এবং  পরে এলএলবি ডিগ্রি  নেন।

১৯৪৬ সালে ঢাকা ইন্টারমিডিয়েট কলেজের ছাত্র থাকা অবস্থায় সিলেটে গণভোটের কাজ করতে গিয়ে তিনি প্রথম বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সংস্পর্শে আসেন।

১৯৫৪ সালে যখন তৎকালীন পূর্ববাংলার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় তখন জিল্লুর রহমান বৃহত্তর ময়মনসিংহের যুক্তফ্রন্টের নেতা ছিলেন। নির্বাচন পরিচালনা কমিটির ভাইস-চেয়ারম্যান নির্বাচিত করা হয় তাঁকে।

পরে তিনি আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের প্রধান নির্বাচিত হন এবং তাঁকে কিশোরগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগেরও সভাপতি নির্বাচিত করা হয়। ১৯৬০ সালে তিনি ঢাকা জেলা আইনজীবী সমিতির সম্পাদক নির্বাচিত হন।

ষাটের দশক ছিল বাংলাদেশের মুক্তিসংগ্রামের প্রস্তুতির দশক। এ সময় ১৯৬২ সালে সামরিক শাসনবিরোধী আন্দোলন হয়, ১৯৬৬ সালে বঙ্গবন্ধু ছয় দফা ঘোষণা করেন এবং ১৯৬৯ সালে ঘটে গণঅভ্যুত্থান। জিল্লুর রহমান প্রতিটি আন্দোলন ও কর্মসূচিতে বলিষ্ঠ ও সক্রিয় ভূমিকা পালন করেন।

১৯৭০ সালে সারা পাকিস্তানের জাতীয় নির্বাচন হয়। তিনি আওয়ামী লীগের মনোনয়ন নিয়ে পাকিস্তান জাতীয় পরিষদ সদস্য নির্বাচিত হন। কিন্তু সামরিক জান্তারা বাঙালিদের হাতে ক্ষমতা দিতে টালবাহানা শুরু করলে বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতা যুদ্ধের ডাক দেন।

জিল্লুর রহমান ১৯৭১ সালের স্বাধীনতা যুদ্ধে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেন। মুজিবনগর সরকারের পরিচালিত ‘স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র’ পরিচালনা ও ‘জয়বাংলা’ পত্রিকা প্রকাশনার সঙ্গেও তিনি যুক্ত ছিলেন। পাকিস্তান সামরিক জান্তা তাঁর সংসদ সদস্য পদ বাতিল করে, ২০ বছর কারাদণ্ড প্রদান করে এবং সব সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করে। পাকিস্তানি বর্বর বাহিনী মুক্তিযুদ্ধের সময় তাঁর বসতবাড়ি পুড়িয়ে দেয়।

বাংলাদেশের স্বাধীনতার পর তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রথম সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। সে সময় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ছিলেন দলের সভাপতি। এভাবে দেশ পরিচালনা ও নেতৃত্বদানে বঙ্গবন্ধুর সরাসরি সাহচর্য লাভ করেন তিনি। ১৯৭২ সালে সংবিধান প্রণয়নেও তিনি অংশগ্রহণ করেন।

১৯৭৫ খ্রিস্টাব্দের ১৫ আগস্ট জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান নিহত হওয়ার পর দলের নেতৃবৃন্দের সঙ্গে জিল্লুর রহমানকেও গ্রেফতার করা হয়। দীর্ঘ চার বছর কারাভোগের পর তিনি মুক্ত হয়ে দলীয় নেতাদের নিয়ে আওয়ামী লীগকে সুসংগঠিত করার কাজে আত্মনিয়োগ করেন এবং ১৯৮১ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত দলের হাল ধরেন।

১৯৮১ সালে বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা দলের দায়িত্ব গ্রহণের পূর্ব পর্যন্ত তিনি তাঁর এ দায়িত্ব অব্যাহত রাখেন এবং প্রেসিডিয়াম সদস্য হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। ১৯৯২ এবং ১৯৯৭ সালে দলীয় কাউন্সিলে তিনি পর পর দু’বার দলের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন।

তিনি ১৯৭০, ১৯৭৩, ১৯৮৬, ১৯৯৬, ২০০১ এবং ২০০৮ সালে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ১৯৭৫ সালে বাংলাদেশ কৃষক শ্রমিক আওয়ামী লীগ গঠিত হলে তিনি এর প্রথম সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন।

১৯৯৬ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করলে তিনি স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রীর দায়িত্ব পান। একই সাথে তিনি জাতীয় সংসদের উপনেতার দায়িত্ব লাভ করেন।

২০০৭ খ্রিস্টাব্দের ১১ জানুয়ারি দেশে জরুরি আইন জারির পর ওই বছরের ১৬ জুলাই রাতে দলের সভানেত্রী শেখ হাসিনা গ্রেফতার হলে তিনি অত্যন্ত বিচক্ষণতার সঙ্গে দল পরিচালনা করেন।

শেখ হাসিনার দীর্ঘ ১১ মাসের কারাজীবন ও চিকিৎসার জন্য ছয় মাস দেশের বাইরে অবস্থানকালে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মো. জিল্লুর রহমান দলকে ঐক্যবদ্ধ রাখেন এবং গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের সংগ্রামে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন।

সময়ের পরিক্রমায় ২০০৯ খ্রিস্টাব্দের ১২ ফেব্রুয়ারি তিনি বাংলাদেশের ১৯তম রাষ্ট্রপতি হিসেবে শপথ গ্রহণ করেন।

ব্যক্তিজীবনে তিনি ছিলেন ভদ্র, নম্র, বিনয়ী একজন ব্যক্তিত্ব এবং সৌজন্যপরায়ণতার এক অতুলনীয় দৃষ্টান্ত। স্ত্রী আইভি রহমান ছিলেন তাঁর জীবন ও রাজপথের সঙ্গী। আইভি রহমান মহিলা আওয়ামী লীগেরও সভাপতি ছিলেন।

২০০৪ খ্রিস্টাব্দের ২১ আগস্ট আওয়ামী লীগের সমাবেশে বোমা হামলার ঘটনায় জিল্লুর রহমান তাঁর জীবনসঙ্গী ও আদর্শের সাথী আইভি রহমানকে হারান।

জীবনসঙ্গী হারানোর অপূরণীয় ক্ষতির পরও তিনি অসীম ধৈর্য ও সাহসের সাথে রাষ্ট্রের হাল ধরতে সক্ষম হন। তাঁর ছেলে নাজমুল হাসান পাপন ভৈরব-কুলিয়ারচর আসনে আওয়ামী লীগের মনোনীত সংসদ সদস্য ও বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

মো. জিল্লুর রহমান একজন আত্মত্যাগী ও আদর্শবান রাজনীতিক। তিনি শুধু কিশোরগঞ্জেরই নন, সারা বাংলাদেশের গর্ব। ভাষা আন্দোলন, দেশের প্রতিটি গণতান্ত্রিক সংগ্রাম ও মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক হিসেবে তিনি চিরকাল ইতিহাসে অমর হয়ে থাকবেন। একজন দেশপ্রেমিক ও জনকল্যাণকামী জননেতা হিসেবে তিনি দীর্ঘকাল ভাস্বর হয়ে থাকবেন।

এই মহান নেতা সকলকে কাঁদিয়ে ২০১৩ সালের ২০ মার্চ ইন্তেকাল করেন। তাঁর মৃত্যুর পর চরম বিরোধী পরিবেশ থাকা সত্ত্বেও বিরোধীদলীয় নেতাসহ সব দল ও মতের রাজনীতিবিদ তাঁর প্রতি শ্রদ্ধা জানান এবং শোক কর্মসূচি পালন করেন।

প্রয়াত রাষ্ট্রপতির জন্মভূমি ভৈরবে ২২ মার্চ অনুষ্ঠিত প্রথম নামাজে জানাজায় দল-মত নির্বিশেষে সকল শ্রেণী-পেশার মানুষের ফুলেল শুভেচ্ছা প্রদান ও লাখো মানুষের সমাগম বাংলাদেশের জন্য এক নজিরবিহীন উদাহরণ।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর