কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জের সূর্যসন্তান শহীদ ডা. আবদুল আলীম চৌধুরী


 মু আ লতিফ, সাংবাদিক ও আঞ্চলিক ইতিহাস-ঐতিহ্য সন্ধানী লেখক | ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯, শুক্রবার, ১২:৪৭ | ব্যক্তিত্ব 


ঢাকা বিভাগের একটি অন্যতম জেলা কিশোরগঞ্জ। হাওর-বাঁওরে ঘেরা বৈচিত্র্যময় ভূ-প্রকৃতির এক অনন্য জনপদ কিশোরগঞ্জ। চন্দ্রাবতী, মহুয়া-মলুয়ার দেশ এই কিশোরগঞ্জ।এই জেলার ভৌগোলিক আয়তন প্রায় ২,৬৮৯ বর্গ কিলোমিটার। জেলার ১৩টি উপজেলার পরতে পরতে ছড়িয়ে রয়েছে ইতিহাস আর ঐতিহ্যের নিদর্শন। শিল্প-সাহিত্য আর লোকসংস্কৃতির এক সমৃদ্ধ ও উর্বর জনপদের নাম কিশোরগঞ্জ।

কিশোরগঞ্জ অসংখ্য কীর্তিমান মানুষের জন্মস্থান। মুক্তিযুদ্ধকালীন সরকারের অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম, প্রয়াত রাষ্ট্রপতি মো. জিল্লুর রহমান, বর্তমান রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ, প্রয়াত মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, র‌্যাংলার আনন্দমোহন বসু, শহীদ ডা. আবদুল আলীম চৌধুরী, পণ্ডিত শ্রীনীরদচন্দ্র চৌধুরী, মহারাজ ত্রৈলোক্যনাথ চক্রবর্তী, উপেন্দ্রকিশোর রায়চৌধুরী, বিপ্লবী রেবতী মোহন বর্মন, শিক্ষানুরাগী মুন্সি আজিমউদ্দিন আহমদ, শাহনামা অনুবাদক কবি মনিরউদ্দীন ইউসুফ এর মতো অনেক বিখ্যাত লোকের জন্মস্থান কিশোরগঞ্জ।

আমরা ধারাবাহিকভাবে পরিচিত হবো এমনই কিছু বিখ্যাত ব্যক্তিদের সাথে। আজ দশম পর্বে আমরা তুলে ধরছি একাত্তরের মহান মুক্তিযুদ্ধে শহীদ বুদ্ধিজীবীদের মধ্যে অন্যতম ডা. এ এফ এম আবদুল আলীম চৌধুরী এঁর সংক্ষিপ্ত জীবনালেখ্য। লিখেছেন সাংবাদিক ও আঞ্চলিক ইতিহাস-ঐতিহ্য সন্ধানী লেখক মু আ লতিফ

এক সাগর রক্তের বিনিময়ে যাঁরা বাংলার স্বাধীনতা ছিনিয়ে এনেছেন তাঁদেরই একজন ডা. আবদুল আলীম চৌধুরী। শোষণমুক্ত সমাজ, জনগণের সরকার ও রাষ্ট্র কায়েমই তাঁর স্বপ্ন ছিল। লাল-সবুজের পতাকাশোভিত স্বাধীন বাংলার কোটি কোটি মানুষ যুগ যুগ ধরে তাঁকে স্মরণ করবে বিনম্র শ্রদ্ধা ও গভীর ভালোবাসায়।

ডা. আবদুল আলীম চৌধুরী কিশোরগঞ্জের অষ্টগ্রাম উপজেলার খয়েরপুরে এক সম্ভ্রান্ত পরিবারে ১৯২৮ সালে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতার নাম আবদুল হেকিম চৌধুরী ও মাতার নাম ইয়াকুতুন্নেছা চৌধুরী। আবদুল হেকিম চৌধুরী একজন সরকারি কর্মকর্তা ছিলেন। সর্বশেষ তিনি ডিস্ট্রিক্ট ইন্সপেক্টর অব স্কুল পদে কর্মরত অবস্থায় অবসর নেন।

আবদুল আলীম চৌধুরীর পুরো নাম আবুল ফয়েজ মোহাম্মদ আবদুল আলীম চৌধুরী (এ এফ এম আবদুল আলীম চৌধুরী)। তাঁর প্রাথমিক শিক্ষা শুরু হয় গ্রামেই খয়েরপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। পরে তিনি চলে আসেন কিশোরগঞ্জে এবং ১৯৪৫ সালে রামানন্দ হাই স্কুল (বর্তমানে কিশোরগঞ্জ হাই স্কুল) থেকে ম্যাট্রিক পাস করেন।

তিনি ১৯৪৮ সালে কলিকাতা ইসলামিয়া কলেজ থেকে আইএসসি, ১৯৫৫ সালে ঢাকা মেডিকেল কলেজ থেকে এমবিবিএস এবং ১৯৬১ সালে লন্ডন থেকে ডিও ডিগ্রি লাভ করেন।

তিনি ছিলেন প্রতিভাবান, মেধাবী, চিন্তা-মননে সচেতন এবং প্রগতিশীল। মেডিকেলে পড়ার সময় তিনি ছিলেন শ্রেণিবৈষম্য, শোষণ ও সাম্রাজ্যবাদী আগ্রাসনের বিরোধী। আমৃত্যু তিনি এই আদর্শকেই লালন করেছেন এবং স্বাধীন বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখতে দেখতে শাহাদাত বরণ করেছেন।

কিশোরগঞ্জে স্কুলে পড়ার সময় তিনি তাঁর ভগ্নিপতি মরহুম এমাদউদ্দিন উকিল সাহেবের বাসায় (রেল স্টেশনের কাছে)  থাকতেন। সেখানে থেকেই তিনি কিশোরগঞ্জ স্কুল থেকে ম্যাট্রিক পাস করেন।

যতদূর জানা গেছে, স্কুলে পড়ার সময় তিনি একজন সাধারণ ছাত্রের মতোই ছিলেন। লেখাপড়ার বাইরে খেলাধুলা, সংস্কৃতিচর্চা ও অন্যান্য ব্যাপারে তাঁর তেমন একটা আগ্রহ লক্ষ্য করা যায়নি। তবে কলকাতার জীবন ও ঢাকায় পড়ার সময়ই তাঁর মধ্যে পরিবর্তন আসে। তিনি অনেকটা রাজনীতিসচেতন হয়ে ওঠেন।

পাকিস্তানি শোষণ ও শাসনের ফলে পূর্বাঞ্চলীয় জনগণের বঞ্চনা দেখে তাঁর ভেতর দ্রোহের সৃষ্টি হতে শুরু করে। এর বহিঃপ্রকাশ ঘটে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারীদের আন্দোলন ও  ’৫২-এর ভাষা আন্দোলনে সক্রিয় অংশগ্রহণের মধ্য দিয়ে। ওই সময় তিনি যুবলীগের (কমিউনিস্ট) সাথে জড়িয়ে পড়েন।

তাঁর ঢাকা মেডিকেলে পড়াকালীন রাষ্ট্রভাষা বাংলার জন্য আন্দোলন শুরু হয়। তিনি সেই আন্দোলনে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেন। পাকিস্তানি শাসকরা পূর্বাঞ্চলের বাঙালিদের মাতৃভাষা বাংলাকে অবদমিত করে প্রকৃত অর্থে লুটেরাদের শাসন ও শোষণ পাকাপোক্ত করার ঘৃণ্য প্রচেষ্টায় লিপ্ত ছিল। শোষকেরা বাঙালির সংস্কৃতি, স্বকীয়তা ও গণতান্ত্রিক অধিকারে হস্তক্ষেপ করে।

তাই সেদিনের সচেতন ছাত্রসমাজ এর বিরুদ্ধে সোচ্চার ও দুর্বার সংগ্রাম গড়ে তোলে। সেই সংগ্রামে ডা. আলীমও ছিলেন একজন বলিষ্ঠ সৈনিক। ’৫২ সালের রাষ্ট্রভাষা আন্দোলনের সময় তিনি গ্রেফতার হন এবং কারাভোগ করেন।

এর আগেও তিনি ১৯৪৮ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারীদের আন্দোলনে শরিক হন এবং তাদের ধর্মঘটকে সাফল্যম-িত করতে বিশেষ ভূমিকা পালন করেন। তিনি সবসময় বঞ্চিত, নির্যাতিত ও শোষিতের পক্ষে থাকতেন। যতই প্রতিশ্রুতি দিক না কেন, অসৎ, স্বার্থান্ধ ও প্রবঞ্চকের পক্ষে কোনো মহৎ কাজ করা সম্ভব নয়, তিনি এমনটি বিশ্বাস করতেন।

ডা. আবদুল আলীম চৌধুরী জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঘনিষ্ঠ সহচর ছিলেন। তিনি বঙ্গবন্ধুর চিকিৎসকও ছিলেন।

মেডিকেলে পড়ার সময় তিনি একজন মেধাবী ছাত্র হিসেবেও পরিচিত ছিলেন। তিনি ১৯৫৪-৫৫ সালে মেডিকেল কলেজ ছাত্র সংসদের সহসভাপতি নির্বাচিত হন। একজন নীতিনিষ্ঠ ও আদর্শবান নেতা হিসেবে তিনি ছিলেন খুবই জনপ্রিয়। তাঁর কর্মজীবন দেশের বাইরে ও দেশের ভেতরে বিভিন্ন ক্ষেত্র ও স্থানে পরিচালিত হলেও তিনি সর্বত্রই নীতি-আদর্শ ও সাধারণের প্রতি গভীর মমত্ববোধ বজায় রেখেছিলেন।

কর্মজীবনের শুরুতেই তিনি লন্ডনে সেন্ট জেমস হাসপাতালে রেজিস্ট্রার হিসেবে কাজ করেন। পরে দেশে ফিরে প্রথমে মির্জাপুর কুমুদিনী হাসপাতালের প্রধান চক্ষু চিকিৎসক (১৯৬৩-১৯৬৫), পরে ঢাকা পোস্ট গ্র্যাজুয়েট মেডিসিন অ্যান্ড রিসার্চ ইনস্টিটিউটের চক্ষু বিভাগের এসোসিয়েট প্রফেসর, ঢাকা মেডিকেল কলেজের চক্ষু বিভাগের এসোসিয়েট প্রফেসর এবং ঢাকার স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজের এসোসিয়েট প্রফেসর হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

এদিকে তিনি  প্রথমে পাকিস্তান মেডিকেল এসোসিয়েশনের পূর্ব পাকিস্তান শাখার যুগ্ম সম্পাদক ও পরে ওই সংস্থার সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। এছাড়া তিনি পূর্ব পাকিস্তান অপথ্যালমোলজিক্যাল সোসাইটিরও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছিলেন (১৯৬৯)। জানা গেছে, এসব সংগঠন প্রতিষ্ঠা ও বিস্তারের ব্যাপারেও তাঁর যথেষ্ট অবদান ছিল।

তিনি একজন বিচক্ষণ লেখক ছিলেন। তিনি মূলত গবেষণাধর্মী লেখালেখি করতেন। তিনি বেশ কয়েকটি জার্নাল ও পত্রিকা সম্পাদনা করেছেন। তাঁর সম্পাদনায় ১৯৪১-৪২ সালে মাসিক পত্রিকা ‘খাপছাড়া’ প্রকাশিত হয়। পরে তিনি ১৯৫২-৫৩ সালে মাসিক ‘যাত্রিক’ প্রকাশ করেন। তাঁর সম্পাদনায় গবেষণাধর্মী ‘পূর্ব পাকিস্তান মেডিকেল জার্নাল’ (১৯৫৭-৫৮) প্রকাশিত হয়।

তিনি ছিলেন প্রগতিশীল চিন্তা-চেতনায় বিশ্বাসী। ফলে তিনি তাঁর পেশায় ও কর্মে ছিলেন শতভাগ সৎ ও আন্তরিক। আদর্শের ছত্রছায়ায় তিনি  ব্যক্তি ও গোষ্ঠীগত স্বার্থ হাসিল এবং বাণিজ্যিক মনোভাবকে ঘৃণা করতেন।

ষাটের দশকে পূর্ব পাকিস্তানে মুক্তচিন্তা ও বাঙালি জাতীয়তাবাদের যে স্ফুরণ ঘটেছিল তিনি এতে প্রভাবিত হন। মুক্তিযুদ্ধকালীন তিনি দেশের ভেতরে থেকেই প্রবল ঝুঁকি নিয়ে স্বাধীনতার পক্ষে কাজ করছিলেন। যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধাদের গোপনে চিকিৎসাসহ নানাভাবে তিনি সহায়তা প্রদান করেন। ফলে তিনি হানাদার বাহিনী ও তাদের দোসরদের কোপানলে পতিত হন।

তিনি মির্জাপুর কুমুদিনী হাসপাতালে কর্মরত অবস্থায় প্রেম করে বিয়ে করেন। তাঁর স্ত্রীর নাম শ্যামলী নাসরিন চৌধুরী। মুক্তিযুদ্ধকালীন শাশুড়িসহ ওই পরিবারের ক’জন ঢাকায় তাঁর আশ্রয়ে ছিলেন। ওই সময় শাশুড়ি ও শ্যালক গরম সুতার সোয়েটার তৈরি করে মুক্তিযোদ্ধাদের গোপনে সরবরাহ করতেন।

অন্যদিকে তিনি তাঁর পুরানা পল্টনের ক্লিনিকে আহত মুক্তিযোদ্ধাদের চিকিৎসাসহ নানাভাবে সাহায্য করতেন। শোষণমুক্ত সমাজ ও ধর্মান্ধতার বিরোধী একজন মুক্তচিন্তার মানুষ হিসেবে প্রতিক্রিয়াশীল চক্র তাঁকে শত্রু ভাবত।

১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর বিজয়ের সূর্য ওঠার মাত্র এক দিন আগে ১৫ ডিসেম্বর পাকিস্তান বাহিনীর সহযোগী আলবদর বাহিনী এই কীর্তিমান চিকিৎসককে তাঁর বাসভবন থেকে ধরে নিয়ে যায়। তারা তাঁকে ঢাকার বধ্যভূমিতে নৃশংসভাবে হত্যা করে। ১৮ ডিসেম্বর রায়েরবাজার ইটখলার বধ্যভূমিতে আরও অনেক বুদ্ধিজীবীর সাথে শহীদ ডা. আবদুল আলীম চৌধুরীর লাশও পাওয়া যায়।

ভাষাসৈনিক, মুক্তবুদ্ধির চিন্তক এবং দেশপ্রেমিক এই মানুষটিকে হত্যা করার ফলে বাংলাদেশ তথা এ জনপদের অপূরণীয় ক্ষতি হয়েছে এতে কোনো সন্দেহ নেই।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর