কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


বাংলা শব্দ ও বানান কড়চা


 জাহাঙ্গীর আলম জাহান | ২৩ মার্চ ২০১৯, শনিবার, ৮:২১ | সাহিত্য 


স্বয়ম্বর এবং স্বযম্ভর দুটি পৃথক শব্দ। বানান এবং উচ্চারণেও ভিন্নতা রয়েছে। প্রথমটির অর্থ আমন্ত্রিত ব্যক্তিবর্গের মধ্য হতে পতি নির্বাচন, যাকে বলা হয় স্বয়ম্বর-সভা। অন্যদিকে স্বয়ম্ভর মানে স্বয়ংসম্পূর্ণ বা নিজেই নিজের প্রয়োজন নির্বাহ অথবা ভরন-পোষণ করতে পারে এমন। এ দুটি শব্দ লিখতেও বানান বিভ্রাটে পড়ে কেউ কেউ তালগোল পাকিয়ে ফেলেন। ধ্বনিগত পার্থক্য জানা থাকলে অনাহুত তালগোল থেকে সহজেই মুক্তি পাওয়া যায়।

সার্থক এবং সার্থকতা বানান লিখতেও অনেকেই অনাবশ্যকভাবে স'র সাথে ব-ফলা যুক্ত করেন। এতে করে শব্দের শুদ্ধতা নষ্ট হয়। কারণ স্বার্থক বা স্বার্থকতা কখনোই শুদ্ধ নয়। তবে 'স্বার্থ' লিখতে ব-ফলার বিকল্প নেই। সার্থক এবং সার্থকতাকে অহেতুক ব-ফলার ভারে ন্যুব্জ করা ঠিক নয়। এ বিষয়ে সচেতনতা আবশ্যক।

পর্ব-২
বাংলা অভিধানে কৃতি এবং কৃতী বলে সমোচ্চারিত দুটি পৃথক শব্দ আছে। শব্দ দুটির অর্থও আলাদা। কিন্তু লেখার সময় অনেকেই শব্দ দুটিকে গুলিয়ে ফেলেন। অনেকেই জানেন না কৃতি মানে নির্মাণ, রচনা বা সম্পাদিত কর্ম, যেমন- সুকৃতি বা কবিকৃতি।

অন্যদিকে কৃতী শব্দের অর্থ কর্মকুশল, কৃতকার্য বা গুণবান। যেমন- কৃতী পুরুষ বা কৃতী শিক্ষার্থী। অর্থের ভিন্নতা জানা না থাকায় প্রায় সকলেই পৃথক দুটি শব্দকে একই অর্থবোধক বলে ভুল করেন।

নিচ আর নীচ, বন্দি আর বন্দী, বদলি আর বদলী, ত্বরিত আর তড়িৎ, মরা আর মড়া, সত্তর আর সত্বর অথবা এ জাতীয় আরও অনেক সমোচ্চারিত শব্দ আমাদের ভাষার মধ্যে ঘাপটি মেরে আছে। এ সকল শব্দকেও আমরা একই অর্থবোধক বলে ভুল করি। কিন্তু মনে রাখতে হবে এগুলো সমোচ্চারিত শব্দ হলেও কখনোই সমার্থক নয়। প্রতিটি শব্দের আলাদা অর্থ রয়েছে। যেমন- ওপর থেকে নিচের দিকে বোঝাতে লিখতে হয় নিচ। কিন্তু নীচ মানে জঘন্য। উদাহরণ- তুমি এত নীচ আগে জানতাম না।

বন্দি মানে কয়েদি বা আটক ব্যক্তি। কিন্তু বন্দী মানে বন্দনা করা। 'পিতা বন্দী মাতা বন্দী, বন্দী গুরুজন'। একইভাবে বদলি অর্থ স্থানান্তর বা transfer. আবার বদলী মানে একের বদল অন্যজন। অর্থাৎ ইংরেজি on behalf of-এর মতো। যেমন-বদলী কামলা।

ত্বরিত মানে শীঘ্র আর তড়িৎ মানে বিদ্যুৎ। মরা মানে মৃত্যুবরণ করা, কিন্তু মড়া মানে শবদেহ বা লাশ। 'মড়ার আবার জাত কি রে?' সত্তর হলো সংখ্যা, আর সত্বর মানে তাড়াতাড়ি বা শীঘ্র।

অর্থ এবং বানান সম্পর্কে সঠিক ধারণা না থাকায় অনেকেই লেখার সময় প্রায়ই ভুল করে থাকেন। ভাষার নৈরাজ্য আর অরাজকতা প্রতিরোধে তাই সকলের আরও সতর্কতা জরুরি। (চলবে)

# জাহাঙ্গীর আলম জাহান, ছড়াকার, ভাষাচিন্তক, মুক্তিযুদ্ধ ও লোকসংস্কৃতি গবেষক।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর