কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


সংস্কৃতি অঙ্গনে কিশোরগঞ্জের তারকারা


 জাহাঙ্গীর আলম জাহান | ২৯ জুন ২০১৯, শনিবার, ৯:০৯ | সংস্কৃতি 


নৃত্যের ক্ষেত্রে দু’জন শিল্পীর নাম সর্বাগ্রে উল্লেখ করতে হয়, যারা শুধু দেশে নয়, আন্তর্জাতিক খ্যাতিও অর্জন করেছেন। তারা হলেন শুক্লা সরকার ও শামীম আরা নীপা। প্রয়াত নৃত্যশিল্পী কমল সরকারও এক্ষেত্রে একটি বিশিষ্ট নাম। এছাড়া ওস্তাদ নারায়ণ দেব, সুশান্ত সাহা, সবিতা রায় (বর্তমানে সবিতা বেগম, সাবেক সংসদ সদস্য), মণিকা রায়, মিনাক্ষী রায়, এএসএম ফেরদৌস, সেতারা বেগম, বাদল পাল, শিখা চক্রবর্তী, নিয়তী পাল, ঝর্ণা পাল, শক্তি পাল, নিয়তী পাল, জরিনা বেগম, পূর্ণিমা দাস, মায়া বসাক, সন্দীপ রায়, আমিনুর রহমান, জাবেদ করিম, কবিরুল, কামরুন নাহার লুনা, ফৌজিয়া জলিল ন্যান্সি,  ধনেশ পণ্ডিত, মানস কর, সীমা চৌধুরী, জিয়াউল হক সোহাগ, লুবজানা মুনা মুনমুন, সাকি রহমান ফ্লোরা, জাকি রহমান নীরা, মিত্রা রায়, রুবা চৌধুরী, আল্পনা মজুমদার, তানজিনা শাহরিন পাঁপড়ি, রুমা ইসলাম, রুমা খন্দকার, শ্যামা পাল, সীমা চৌধুরী, স্বপ্না রায়, দিবা রায়, তন্বি, লুসি ও লাকি প্রমুখ নৃত্যকলায় কৃতিত্বের স্বাক্ষর রেখেছেন।

কিশোরগঞ্জ সদরসহ বিভিন্ন উপজেলায় আরও অনেক নৃত্যশিল্পী রয়েছেন, যারা কিশোরগঞ্জের গৌরব।

এই প্রজন্মেরও বেশ কিছু প্রতিশ্রুতিশীল নৃত্যশিল্পীর কথা বলা যায়। সুব্রত দে টুনটুন, একেএম নাজমুল করিম রুয়েল, শরীফ আহমেদ, দেবাশীষ সাহা আকাশ, ইমরান হোসেন কাওসার, শ্বেতা রায় তৃণা, ডানা চৌধুরী, লোরা চৌধুরী, মিষ্টি ঘোষ, সাদিয়া খান মিল্কী, ছোঁয়া বসাক, স্পর্শ বসাক, সাব্বির প্রান্ত, শতাব্দী দাস, সোহেল হাসান, সাকি আজাদ, জোবেয়ের শাহরিয়ার অপু, রাইসা তাবাস্সুম রোজ, তুলি ঘোষ, রাবিয়া তাবাস্সুম বারিষা, নাফিসা আনজুম প্রভা, উম্মে হক লিয়া, পলাশ পাল, রনি কুমার দেব, ফারিয়া রাইসা, উপমা বসাক, মুনমুন সরকার, পরমা কৈরী তিত্লী, সিদরাতুল আলম প্রিয়তা, সাইক নূরে আলম সাফাত, শুভাশীষ বাপ্পী, মিলন মির্জা, সাব্বির হোসেন রাফি, শিমুল মিয়া, মিঠু বিশ্বাস, রীমা দাস, পুষ্প শেখ, আলমা আক্তার, ইমা আক্তার দৃষ্টি, চায়না, ঈশিতা, ববি, প্রিয়ন্তী, আনিকা, সাদিয়া, বিল্লাল, কবির, শাহীন, নাঈম, ইফা, নাজমুল হক সাগর ও মাসুম বিল্লাহ্ প্রমুখ নতুন প্রজন্মের প্রতিশ্রুতিশীল নৃত্যশিল্পী।

জেলার অন্যান্য উপজেলাতেও এ প্রজন্মের আরও কিছু প্রতিশ্রুতিশীল নৃত্যশিল্পী রয়েছে। যারা নিরন্তর চর্চার মধ্য দিয়ে একদিন নৃত্যশিল্পে নিজেদের অবস্থানকে সংহত করবে।

কিশোরগঞ্জ আর্টস কাউন্সিলে প্রতিষ্ঠিত সঙ্গীত এবং নৃত্য বিদ্যালয়ের শুভ সূচনা থেকে এখানে নৃত্যকলা পরিচর্যার শুভ অভিষেক ঘটে। তারপর বিভিন্নভাবে বিভিন্ন ক্ষেত্রে শিল্পীরা নৃত্যকলায় পারদর্শী হয়েছে। বর্তমানে নৃত্যচর্চায় বেশ জনপ্রিয়তা লক্ষ করা যায়। অভিভাবকদের মধ্যেও সন্তানকে নৃত্যশিল্পে সংযুক্ত করার প্রবণতা বহুলাংশে বৃদ্ধি পেয়েছে।

চলচ্চিত্রে কিশোরগঞ্জ:
ঢাকার প্রথম সবাক চলচ্চিত্র ‘মুখ ও মুখোশ’-এ একটি গুরুত্বপূর্ণ পার্শ্বচরিত্রে অভিনয় করেছিলেন তাড়াইল থানার বিশিষ্ট অভিনেতা খুরশিদ উদ্দিন (খুশু ভূঁইয়া)। কিশোরগঞ্জ শহরের পৌনে চারআনি বাড়ির জমিদার প্রয়াত বিরাজ মোহন রায়ের কন্য সবিতা রায় (বর্তমানে সবিতা বেগম, সাবেক সংসদ সদস্য) মহান মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে ভারত সরকারের অর্থায়নে নির্মিত ‘এপার বাংলা ওপার বাংলা’ চলচ্চিত্রে একটি গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে অভিনয় করেন।

সেই আশির দশক থেকে ঢাকাই চলচ্চিত্রে একচ্ছত্রভাবে নায়ক চরিত্রে অভিনয় করে দর্শক মাতিয়েছেন করিমগঞ্জের কৃতী অভিনেতা ইলিয়াস কাঞ্চন। এই জনপ্রিয় চিত্রনায়ক অভিনয়ের পাশাপাশি বিভিন্ন সামাজিক কর্মকাণ্ডেও ওতোপ্রতোভাবে জড়িত। সড়ক দুর্ঘটনায় তার স্ত্রী জাহানারার অকাল মৃত্যুর পর তিনি সড়ক দুর্ঘটনা রোধে জনসচেতনতা সৃষ্টির জন্য দেশব্যাপী ‘নিরাপদ সড়ক চাই’ সংগঠন সৃষ্টির মাধ্যমে একটি ফলপ্রসূ সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলেছেন। চলচ্চিত্রাভিনেতা ইলিয়াস কাঞ্চন নিঃসন্দেহে কিশোরগঞ্জের গৌরব।

ঢাকার চলচ্চিত্রে একসময় চলচ্চিত্রাভিনেত্রী হিসেবে কাজ করে জনপ্রিয় হয়েছিলেন কিশোরগঞ্জের মেয়ে ছায়া। তিনি চলচ্চিত্রে ‘কানন’ নামে পরিচিত ছিলেন। অষ্টগ্রাম উপজেলার মেয়ে মঞ্জু দত্তও এক সময় চলচ্চিত্রাভিনেত্রী হিসেবে যথেষ্ট সুখ্যাতি অর্জন করেন।

তাড়াইল উপজেলার কুশলী অভিনেতা হেকমতে সোলায়মান বিবেক, কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার মহিনন্দ গ্রামের কৌতুকাভিনেতা প্রদীপ সরকার, প্রয়াত সিরাজুল হক আঙ্গুরও ঢাকার বিভিন্ন চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন।

কিশোরগঞ্জের প্রিয়দর্শিনী মেয়ে শাহনাজ ঢাকার অনেক চলচ্চিত্রে নায়িকার চরিত্রে অভিনয় করে একসময় খুব জনপ্রিয় হয়েছিলেন। এছাড়া সুদর্শন যুবক মারুফ ও এরফান অনেক চলচ্চিত্রে সহ-নায়কের চরিত্রে অভিনয় করেছেন। মারুফ এখনও চলচ্চিত্রের সাথে জড়িত আছেন।

কটিয়াদী উপজেলার মানিকখালী গ্রামের ছেলে মেহেদীও বিভিন্ন চলচ্চিত্রে নায়ক ও সহ-নায়কের চরিত্রে অভিনয় করে চলেছেন। কিশোরগঞ্জের ছেলে সঞ্জয় (শম্ভু)-কে ঢাকার বিভিন্ন চলচ্চিত্রের ফাইটিং চরিত্রে অভিনয় করতে দেখা যায়।

ভৈরবের ছেলে সাগর রহমান ‘খলনায়ক’ ছবিতে পার্শ্বচরিত্রে অভিনয় করেন। সাগর রহমান বেশ কিছু টিভি নাটকেও অভিনয় করেছেন। ভৈরবের অভিনেতা তাজ ভৈরবীও একটি ছবিতে পার্শ্ব খল চরিত্রে অভিনয় করেন। ভৈরবের তরুণ পরিচালক সায়মন তারিক চলচ্চিত্র পরিচালনা শুরু করেছেন। চলচ্চিত্রের স্থির চিত্রগ্রাহক সঞ্জীব বসাককেও দু’চারটি ছবিতে ছোট্ট চরিত্রে অভিনয় করতে দেখা গেছে।

কিশোরগঞ্জের এক সময়কার তরুণ বাম রাজনীতিক ও মঞ্চাভিনেতা সাইদুর রহমান মানিক ঢাকার চলচ্চিত্রাঙ্গনে বেশকিছু সফল চলচ্চিত্র পরিচালনা করে প্রশংসিত হয়েছেন। পাকুন্দিয়া থানার মঠখোলা এলাকার বাসিন্দা জীবন রহমান এবং সদর উপজেলার নীলগঞ্জ (হাত্রাপাড়া) এলাকার বাসিন্দা মুখলেছুর রহমান গোলাপ ঢাকাই চলচ্চিত্রাঙ্গনে বেশকিছু ছবি পরিচালনা করেছেন।

কুলিয়ারচরের চলচ্চিত্র প্রদর্শক মোঃ আবু বকর সিদ্দিক ‘চিরঋণী’ ছবি প্রযোজনা করেছেন। ইটনা থানার তরুণ ব্যবসায়ী মোঃ শরীফুল ইসলাম শরীফ ‘চাঁদের হাসি’ ছবিটি যৌথভাবে প্রযোজনা করেন। বাজিতপুর থানার তরুণ রাজনীতিক শেখ মুজিবুর রহমান ইকবাল চলচ্চিত্র প্রযোজনার পাশাপাশি বেশকিছু ছবিতে অভিনয়ও করেছেন।

তাড়াইল উপজেলার রাশেদুজ্জামান ফুল মিয়া ঢাকার বেশ কিছু চলচ্চিত্রে পার্শ্ব খল চরিত্রে অভিনয় করেছেন। তার অভিনীত ছবিগুলো হচ্ছে ‘অন্ধকার’ ‘আবার একটি যুদ্ধ’ ‘ফুটপাতের রাজা’ ‘তুষের আগুন’ ইত্যাদি।

কিশোরগঞ্জ শহরতলীর কলাপাড়া এলকার সুদর্শন তরুণ সাইমন সাদিক গত ক’বছর যাবত দাপটের সাথে ঢাকাই চলচ্চিত্রে নায়ক চরিত্রে অভিনয় করে আসছেন। তার মুক্তিপ্রাপ্ত উল্লেখযোগ্য ছবি হচ্ছে ‘জ্বি হুজুর’ ‘পোড়ামন’ ও ‘জান্নাত’। তার অভিনীত অধিকাংশ ছবিই দর্শকনন্দিত হয়েছে। তিনি চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতিরও নির্বাচিত সদস্য।

বিশিষ্ট নৃত্যশিল্পী ও নাট্যাভিনেতা মানস কর ‘অন্তর্ধান’ ও ‘চন্দ্রাবতী কথা’ ছবিতে অভিনয় করেন। বিশ্বের ক্ষুদ্রতম ফুটবল রেফারি নামে খ্যাত কিশোরগঞ্জের ক্ষুদ্র মানব চরশোলাকিয়ার বাসিন্দা নূরুল ইসলাম (বামন নূরু) অন্তত ৩৫টি চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন। সাধারণত নায়কের চার্লি চরিত্রেই তাকে বেশি দেখা গেছে।

মহিনন্দ ইউনিয়নের তরুণ কৌতুকাভিনেতা আবুল হায়দার কাঞ্চন (কমেডি কাঞ্চন) ‘অবতার’ ‘মায়াবতী’ ও ‘আলোয় ভুবন ভরা’ নামক চলচ্চিত্রে  গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে অভিনয় করেন। তাড়াইল উপজেলার তরুণ ছড়াকার ও লেখক ছাদেকুর রহমান রতন ‘একাত্তরের দালাল’ নামে একটি স্বল্পদৈর্ঘ্যরে চলচ্চিত্র নির্মাণ করেছেন। নির্মিত ছবিটি তিনি জেলার বিভিন্ন এলাকায় প্রদর্শন করে থাকেন।

টিভি ও বেতারে কিশোরগঞ্জ:
কত্থক, ভরত নাট্টম, লোকজসহ বিভিন্ন ক্লাসিকেল নৃত্যের কূশলী শিল্পী সবিতা রায় (বর্তমানে সবিতা বেগম ও সাবেক সংসদ সদস্য) টেলিভিশনের বিভিন্ন নৃত্যের অনুষ্ঠানে প্রচুর নৃত্য পরিবেশন করে প্রশংসিত হন। এছাড়া শুক্লা সরকার-এর অনেক নৃত্যও টেলিভিশনে পরিবেশিত হয়। প্রখ্যাত নৃত্যশিল্পী শামীম আরা নিপা নিয়মিত টেলিভিশনে নৃত্য পরিবেশন করে আসছেন।

কিশোরগঞ্জের হয়বতনগর ফিসারী রোড এলাকার তরুণ নাট্যকার মহিউদ্দীন ভূঞা (যিনি ঢাকায় ‘মহিউদ্দীন ছড়া’ নামে পরিচিত) ঢাকার বুকে নাট্যকার হিসেবে যথেষ্ট সুখ্যাতি অর্জন করেছেন। তার লেখা ‘ব্যাচেলর’ নাটকটি টিভি’তে মঞ্চ নাটক হিসেবে প্রচারিত হয়েছে। এছাড়া ঢাকা বেতারেও তার অনেক নাটক প্রচারিত হয়।

কিশোরগঞ্জ গুরুদয়াল সরকারি কলেজের সাবেক অধ্যাপক ও সু-সাহিত্যিক জিয়াউদ্দিন আহমদ-এর দু’টি নাটক ঢাকা বেতারে প্রচারিত হয়েছিল। বিশিষ্ট কবি আবিদ আজাদের বেশ কিছু নাটক বেতার ও টিভিতে প্রচারিত হয়েছে। তিনি সেই সত্তর দশকের শেষদিকে ঢাকা বেতারের ‘উত্তরণ’ অনুষ্ঠানটি গ্রন্থনা করতেন। এছাড়া টিভিতে ‘বইপত্র’ নামের একটি অনুষ্ঠানও উপস্থাপনা করতেন।

কটিয়াদী উপজেলার গাংকুলপাড়া গ্রামের কৃতী অভিনেত্রী শামীমা নাজনীন রুনা গত এক দশকের অধিককাল ধরে বেতার ও টিভি-তে গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে অভিনয় করে আসছেন। তিনি মাঝে মাঝে চলচ্চিত্রেও অভিনয় করেন। নাটকের সংলাপে কিশোরগঞ্জের আঞ্চলিক ভাষা ব্যবহার করে তিনি এ অঞ্চলের ভাষাকে অন্যরকম মর্যাদায় পৌঁছে দিয়েছেন।

করিমগঞ্জ উপজেলার জয়কা গ্রামের কুশলী অভিনেতা কামাল হোসেন বাবরও রেডিও-টিভি’র বিভিন্ন নাটকে অভিনয় করে সুখ্যাতি অর্জন করেছেন। তিনিও কিশোরগঞ্জের ভাষাকে নাটকের সংলাপে ব্যবহার করে এই আঞ্চলিক ভাষাকে জনপ্রিয় ও পরিচিত করেছেন। সত্তর দশকের কবি রিফাত চৌধুরী গত এক দশকেরও অধিককাল যাবত বিভিন্ন টিভি নাটকে ও টেলিফিল্মে অভিনয় করে দর্শকনন্দিত হয়েছেন। অনেক বিজ্ঞাপনচিত্রেও তাকে অভিনয় করতে দেখা যায়। রিফাত চৌধুরী জনপ্রিয় টিভি অভিনেতা হিসেবে সুখ্যাতি অর্জন করেছেন। ভৈরবের ছেলে সাগর রহমানকে টিভি’র বিভিন্ন নাটকে অভিনয় করতে দেখা যায়।

কিশোরগঞ্জের মেয়ে নৃত্যশিল্পী শামীম আরা নিপা, আফরোজা হাসান পারুল এবং নৃত্যশিল্পী সন্দীপ রায়কেও টিভি নাটকে অভিনয় করতে দেখা গিয়েছে। কিশোরগঞ্জের বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ও রাজনীতিক শরীফ আহমদ সাদীও টিভি’র কয়েকটি নাটকে অভিনয় করেছেন। তার অভিনীত একটি নাটক হচ্ছে ‘বাবর আলীর হেলিকপ্টার’। এ নাটকে কিশোরগঞ্জের আরেক তরুণ রাজনীতিক আনোয়ার হোসেন বাচ্চুকেও একটি ছোট্ট চরিত্রে অভিনয় করতে দেখা গেছে। এছাড়া বাংলাদেশ টেলিভিশনসহ অন্যান্য বে-সরকারি কয়েকটি চ্যানেলে কিশোরগঞ্জের শিল্পীরা প্রায়শই নৃত্য ও সঙ্গীত পরিবেশন করে থাকেন।

আগামী পর্ব: কিশোরগঞ্জের সাংস্কৃতিক সংগঠন
(জাহাঙ্গীর আলম জাহান, ছড়াকার, প্রাবন্ধিক, ইতিহাস-মুক্তিযুদ্ধ ও লোকসংস্কৃতির গবেষক, প্রকাশিত গ্রন্থের সংখ্যা ৪১টি।)




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর