কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কমরেড ভূপেশ গুপ্ত পণ্ডিত নীরোদচন্দ্র চৌধুরী


 মু আ লতিফ | ৮ জুলাই ২০১৯, সোমবার, ১০:০৫ | আমাদের কিশোরগঞ্জ 


খড়মপট্টির কথা আগেও বলেছি। এই মহল্লায় একসময় বহু হিন্দু সম্ভ্রান্ত পরিবারের বাস ছিল। খড়মপট্টির বর্তমান মুক্তিযোদ্ধাদের কমপ্লেক্সটি ছিল প্রখ্যাত রাজনীতিবিদ ভূপেশ চন্দ্র গুপ্ত পরিবারের বাসস্থান।

ভূপেশ চন্দ্র গুপ্ত জন্মগ্রহণ করেছিলেন ইটনায়। কলকাতার স্কটিশ চার্চ কলেজে পড়ার সময়ই তিনি বৈপ্লবিক আন্দোলনের সঙ্গে জড়িয়ে পড়েন। একসময় লন্ডন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ব্যারিস্টারি ডিগ্রি নিয়ে দেশে ফিরে আবার কমিউনিস্ট রাজনীতিতে জড়িত হন।

তিনি সিপিআই’র হয়ে রাজ্যসভার সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন। ভারতের কমিউনিস্ট পার্টির তৎকালীন মুখপত্র ‘দৈনিক স্বাধীনতা’র তিনি সম্পাদক মন্ডলির সভাপতি ছিলেন। তিনি ইংরেজি ও বাংলায় বহু গ্রন্থ রচনা করেছেন। এর মধ্যে ‘ফ্রিডম অ্যান্ড দ্যা সেকেন্ড ফ্রন্ট,’ ‘টেরার ওভার বেঙ্গল’, ‘সেকেন্ড ফাইভ ইয়ার প্ল্যান এ ক্রিটিক’, ‘বিগ লুট’ অন্যতম।

মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স এর সামনের বীর প্রতীক নূরুল ইসলাম খান পাঠানের বর্তমান বাসভবনটি ছিল পন্ডিত শ্রী নীরোদচন্দ্র চৌধুরীদের। তিনি ছিলেন অগাধ প্রতিভা ও জ্ঞানের অধিকারী।

তাঁর লেখা The Autobiography of an Unknown Indian অসাধারণ একটি বই। এ সম্পর্কে তিনি নিজেই বলেছেন,‘ এই বইটির জন্যই আমি ইংরেজীতে লেখক বলিয়া সুপ্রতিষ্ঠিত হই। উহা প্রকাশের পরই বিলাতে যেভাবে প্রশংসিত হইয়াছিল ও যেভাবে আলোচিত হইয়াছিল তাহা ইহার পূর্বে কোনও ভারতীয়ের লেখা ইংরেজী বই-এর বেলাতে দেখা যায় নাই, এমনকি জওহারলাল নেহেরুর আত্মজীবনীর জন্যও নয়।’ (সুত্র: শারদীয় দেশ, ১৩৯৯ ব.)।

এই বইটির মাধ্যমে আমরা তাঁর জন্মভুমির প্রতি গভীর ভালোবাসার উল্লেখ পাই। তিনি বিদেশ-বিভূঁইয়ে থেকেও তার জন্মভূমি কিশোরগঞ্জকে ভুলেন নি। তিনি তাঁর বইটির সূচনাতেই লিখেছেন, Kishorganj My Birthplace। এ বইয়ে তিনি তাঁর শৈশব,-কৈশোর এবং কিশোরগঞ্জের মাটি, মানুষ, নদী, প্রকৃতির বিশদ বর্ণনা করেছেন।

এর পাশের বাড়িটি (স্কুল সংলগ্ন) ছিল অমিয় ভিলা। এটি ছিল সুরেশচন্দ্র করের বাসভবন। তিনি একজন হোমিও চিকিৎসক ছিলেন এবং ভাগ্যান্বষনে নেত্রকোণা থেকে এসে স্থায়ী হন। তাঁর পুত্র নীলোৎপল কর একজন সাংস্কৃতিক অঙ্গনের কৃতী ব্যক্তিত্ব ছিলেন। তাঁকে বলা হতো ‘আলোর যাদুকর’। বর্তমানে এ বাসভবনটি ‘রাণী নিবাস’ নাম ধারণ করেছে। এর বর্তমান মালিক হলেন জার্মান প্রবাসী হুমায়ুন ও কাস্তেল।

অতীতের অনেক কথা আমরা অনেকেই জানি না, জানার সুযোগও নেই। বাংলাদেশের অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলামের ছোট ভাই সৈয়দ ওয়াহিদুল ইসলামের পূর্ণি ভিলায় বাস করতেন বর্তমান সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ের ক্রীড়া শিক্ষক রমেশ চন্দ্র মোদক।

তবে বাড়িটির আসল মালিক ছিলেন ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক পন্ডিত জগদিশ চক্রবর্তী মহাশয়ের। তিনি সকলের নিকট রায় সাহেব নামে পরিচিত ছিলেন। তিনি নিজে বর্তমান মডেল থানার পূর্ব পাশে যেখানে ইটালি ভবন ও মেডিল্যাব গড়ে উঠেছে সেখানে থাকতেন।

রায় সাহেব সম্পর্কে অনেক কথা বলা যায়। তিনি একজন সুপণ্ডিত ছিলেন। একজন দক্ষ প্রধান শিক্ষক হিসেবে তখনকার দিনে তাঁর যশ ছিল। ছাত্ররা তাকে ভীষণ ভয় করতো। তবে শিক্ষার্থীদের প্রতি তাঁর দায়িত্ব ও কর্তব্য প্রশ্নাতীত ছিল। ফলে তাঁর সময় স্কুলটি যথেষ্ট সুনাম করেছিল।

পূর্ণিভিলার পাশের বাড়িটি ছিল সূকুমার বাবুর বাড়ি। প্রতি বছরই সেখানে দুর্গা পূজা হতো। এখন সেটি সাংবাদিক হারুন হামিদদের বাস ভবন। ভবনটির একটি অংশে এখন মসজিদ নির্মাণ করা হচ্ছে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর