কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ইসলামিয়া বোর্ডিং ও শহীদী মসজিদ


 মু আ লতিফ | ১২ জুলাই ২০১৯, শুক্রবার, ৮:০৪ | আমাদের কিশোরগঞ্জ 


পুরানথানা এলাকায় প্রতিষ্ঠিত সেদিনের ইসলামিয়া বোর্ডিংটি আজ এর অস্তিত্ব প্রায় হারাতে চলেছে। এর কিছু অংশে ইসলামিয়া সুপার মার্কেট নির্মাণ করা হয়েছে। পেছনের অংশে কিন্ডারগার্টেন স্কুল চালু করা হয়েছে।

এ বোর্ডিংটি ১৯১০ সালে নির্মিত হয়, তখন এই শহরে মুসলিম ছাত্রদের বসবাসের কোন জায়গা ছিলো না। কারন তৎকালে শহরে জায়গির রাখার মত সচ্ছল মুসলিম পরিবার কমই ছিলো। অতএব মূলত তাদের জন্যই এটি নির্মাণ করতে হয়েছিল।

এসব ভাবনা থেকেই তৎকালীন মুসলিম বুদ্ধিজীবীদের আগ্রহেই বোর্ডিংটি নির্মিত হয়। তখন বোর্ডিংটি ছিলো ওয়ালের উপর টিনসেডের অনেকটা ইউ আকৃতির। সামনে ছিলো বড় মাঠ। এ মাঠে ভলিবল ও ব্যাডমিন্টন খেলা হতো। এছাড়াও ছোট-খাট সভা হতো।

মুক্তিযুদ্ধে খেতাবপ্রাপ্ত ইটনার শহীদ সিরাজ এ বোর্ডিংয়েরই ছাত্র ছিলেন। ইসলামিয়া বোর্ডিংয়ের পাশেই পরে নির্মাণ করা হয় বর্তমান শহীদী মসজিদ।

শহীদী মসজিদ প্রতিষ্ঠার পেছনে একটি রক্তাক্ত ঘটনা এতদঞ্চলের মুসলিম সম্প্রদায়কে এখনো আলোড়িত করে। ঘটনাটি ছিলো সম্ভবত ১৯৪০ সালের। দুর্গাপূজা শেষে হিন্দু সম্প্রদায় মসজিদের সামনে দিয়ে বাদ্য-বাজনা বাজিয়ে মিছিল সহকারে বিগ্রহ নিতে গিয়ে এই বিয়োগান্তক ঘটনাটি ঘটেছিল।

ব্রিটিশ সরকার সমস্যার শান্তিপূর্ণ সমাধান না করে  মসজিদের মুসল্লিদের উপর গুলি বর্ষণ করে। ফলে কয়েকজন মুসল্লি সেদিন প্রাণ হারান। পরে তাঁদেরই স্মরণে মসজিদের নামকরণ করা হয় শহীদী মসজিদ।

সেদিন যাঁরা শহীদ হয়েছিলেন তাঁরা হলেন শোলাকিয়া সাহেব বাড়ির সৈয়দ আলী আসগার (মানিক মিয়া), শোলাকিয়ার নেহাল মিয়া ও আফছার উদ্দিন (আছির) এবং  বৌলাই এলাকার কালার বাপ (কালা) ও একই এলাকার মো. আবদুস সোবহান। এছাড়া আহত হয়েছিলেন চর শোলাকিয়ার আবুল কাসেম (কাউছার বাপ), একই এলাকার আমির হোসেন, ইছব মিয়া, মিয়া হোসেন এবং বয়লার হাফিজউদ্দিন, কলাপাড়ার মালি হোসেন ও বৌলাই এলাকার মিছরির বাপ।

ইতিহাস নিয়ে যারা গবেষণা করেন তারা গভীরভাবে পর্যালোচনা করলে এর পেছনে ওই সময়কার ব্রিটিশের দ্বৈত নীতির জঘন্য খেলার ইতিহাস হয়তো অনুধাবন করতে সক্ষম হবেন।

মাদরাসার পশ্চিম পাশের সড়কটির নাম জামিয়া সড়ক। এখানেই আমাদের পৈত্রিক নিবাস। প্রায় চার’শ বছর আগে এখানেই আমাদের পূর্বপুরুষরা বসবাস শুরু করেন।

প্রাসঙ্গিকভাবে বলে রাখি, এ সড়কের ওয়াহেদ মঞ্জিলে আমি জন্মেছি এবং এখানেই আমি বেড়ে ওঠেছি। এ সড়কে অবস্থিত তাজ রেস্টুরেন্ট এর জায়গায় একসময় ৩নং বিড়ি’ ফ্যাক্টরি ছিল। এর পরে এখানে একাটি বেসরকারি ব্যাংক স্থাপিত হয়েছিল।

ব্যাংকের পেছনেই আমরা এক সময় কল্লোল সমিতি প্রতিষ্ঠা করেছিলাম। মূলত আমাদের বড় ভাইয়েরাই এর উদ্যোক্তা ছিলেন। ওই সময় আমাদের সমিতির উদ্যোগে নাটক, রবীন্দ্র ও নজরুল জয়ন্তি ছাড়াও বিভিন্ন সমাজ কল্যাণ মূলক কর্মকান্ড পরিচালনা করা হতো। এসব কর্মসূচি পালনে আমরা নিজেরাই চাঁদা দিতাম এবং ক্ষেত্র বিশেষে ধনাঢ্য ব্যক্তিদের সাহায্য নিতাম।

আমাদের নাটক ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানগুলো সাধারণত শিল্পকলা মঞ্চেই আয়োজন করা হতো। আমাদের মহল্লার আরো বেশ কজন সম্মানীয় ব্যক্তির নাম এখানে উল্লেখ করা যায়। এঁরা হলেন মরহুম আতাউর রহমান খান (সাবেক এমপি) সাহেবের পিতা মরহুম হযরত মাওলানা আহম্মদ আলী খান সাহেব। যিনি আল জামিয়াতুল ইমদাদিয়ার প্রতিষ্ঠায় অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছিলেন।

তিনি আজীবন এ মাদরাসার প্রিন্সিপাল হিসাবে সুনামের সঙ্গে দায়িত্ব পালন করেছেন। তাঁকে আমি দেখেছি, তিনি প্রায়ই মহল্লার বাড়ি বাড়ি গিয়ে সকলের খোঁজ-খবর নিতেন। কে কেমন আছেন এবং কারো কোনো অসুখ-বিসুখ হলে  পরামর্শ দিতেন।

এ মহল্লায় বাস করতেন তাড়াইল নিবাসী মরহুম সাবান আলী খান মোক্তার। তিনি প্রচুর বই পড়তেন। তাঁর বাসার সামনে বাংলা ঘরের বাড়ান্দায় প্রতিদিন তাঁকে বই পড়তে দেখতাম। তিনি আমাদের খুব স্নেহ করতেন এবং পড়া-লেখার প্রতি মনযোগী হতে উপদেশ দিতেন।

আর একজনের কথা বলতেই হয়, তিনি ইংরেজির শিক্ষক রফিকুর রহমান চৌধুরী। একজন জ্ঞানী, প্রজ্ঞাবান ও শুভ্র ব্যক্তি হিসেবে যাঁর পরিচিতি। তিনি গুরুদয়াল কলেজের সেরা শিক্ষকদের একজন। তিনি পবিত্র কোরআন মজিদ এর বাংলা অনুবাদ করে বিশেষভাবে সমাদৃত হয়েছেন।

এ মহল্লায় শিশু-কিশোরদের একটি সংগঠন ছিলো। নাম ছিলো কলরব সাহিত্য সংসদ। এ সংসদের উদ্যোগে বিভিন্ন সময় ছোটদের জন্য বিভিন্ন বিষয়ের উপর প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হতো। সাইফুল আলম চৌধুরী কায়সার ছিল এর প্রধান এবং সংসদের কার্যক্রম রফিক স্যারের বাসভবনের বাংলা ঘরেই সম্পন্ন হতো। প্রফেসর রফিকুর রহমান চৌধুরী, ডা. কুতুবউদ্দিন আহমদসহ অন্যান্য আরো অনেকেই ছিলেন এর উপদেষ্টা।

মুক্তিযুদ্ধকালীন অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি শহীদ  সৈয়দ নজরুল ইসলাম ১৯৭২ সালে কিশোরগঞ্জ সফরে এলে তিনি রফিক স্যারদের বাসায় এসেছিলেন। তখন কলরব সাহিত্য সংসদের শিশু-কিশোররা ওই বাসভবনে তাঁকে ঘরোয়াভাবে সংবর্ধনা প্রদান করেছিল। উক্ত সংবর্ধনা সভায় আমি ছিলাম এর উপস্থাপক।

আমার আরো মনে পড়ে মরহুম আবদুল মন্নাফ চাচার কথা। যিনি পরে কটিয়াদিতে পরিবার নিয়ে থিতু হন। মনে পড়ে মরহুম আবদুর রশিদ যিনি ঐতিহ্যবাহি প্রতিষ্ঠান আলীমুদ্দিন লাইব্রেরির প্রতিষ্ঠাতা।

মনে পড়ে আবদুল মালেক চাচা,শামছুল ইসলাম, আবদুল বারিক, গোলাম মস্তোফা,আবদুল মোতালিবসহ অন্যান্য চাচাদের কথাও। তাঁদের প্রত্যেকের জীবনাচার ছিলো সহজ-সরল এবং ভালবাসার চাঁদরে মোড়ানো। (চলবে)




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর