কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


পাকুন্দিয়ায় এমএ মান্নান মানিক কলেজের অনলাইন পাঠদানে সুফল পাচ্ছে শিক্ষার্থীরা


 রাজন সরকার, পাকুন্দিয়া | ২৯ জুলাই ২০২০, বুধবার, ১১:৫২ | তথ্য প্রযুক্তি 


করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবের কারণে সারা দেশের ন্যায় কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া উপজেলার সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান দীর্ঘদিন ধরে বন্ধ রয়েছে। স্কুল ও কলেজ বন্ধের সময় শিক্ষার্থীরা যাতে পড়াশোনায় পিছিয়ে না পড়ে সেই লক্ষ্যে সরকারের সিদ্ধান্ত মোতাবেক উপজেলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান অনলাইনে পাঠদান শুরু করেছে।

তারই ধারাবাহিকতায় উপজেলার প্রত্যন্ত গ্রামের নন-এমপিওভুক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমএ মান্নান মানিক কলেজে নিয়মিতভাবে অনলাইনে পাঠদান করা হচ্ছে। অনলাইনে এই পাঠদানের ফলে সুফল পাচ্ছে শিক্ষার্থীরা।

কলেজটি এমপিওভুক্ত না হলেও করোনা দুর্যোগকে মোকাবেলা করার জন্য সকল বাঁধা উপেক্ষা করে শিক্ষকগণ ফেসবুক ম্যাসেঞ্জার, গুগল ক্লাস রুম, জুম অ্যাপ, ইউটিউব ও বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার করে অনলাইনে শিক্ষার্থীদের বিষয় ভিত্তিক পাঠদান চালিয়ে যাচ্ছেন।

সরেজমিনে দেখা যায়, পৌরনীতি ও সুশাসন বিষয়ের প্রভাষক শরীফুল ইসলাম অনলাইনে পাঠদান করেছেন এবং ইংরেজি বিষয়ের প্রভাষক কামরুল হাসান রুবেলকে পরবর্তী পাঠদানের জন্য প্রস্তুতি নিতে দেখা যায়।

অনলাইন পাঠদান চলাকালীন সময়ে কয়েকজন শিক্ষার্থীর বাড়িতে মুঠোফোনের মাধ্যমে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, তারা ইন্টারনেটের মাধ্যমে বাড়িতে বসেই মোবাইল ফোনে অনলাইন পাঠদানে অংশ নিয়েছে।

এ সময় মুঠোফোনে ছোট আজলদী গ্রামের একাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থী বিকারুন্নেছা বিনতি জানায়, করোনা ভাইরাসের কারণে প্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে আমাদের শিক্ষকেরা নিয়মিত অনলাইনে পাঠদান চালিয়ে যাচ্ছেন। এতে আমরা ঘরে বসেই পড়াশোনা করতে পারছি। এভাবে পাঠদান চলতে থাকলে যথাসময়ে আমাদের সিলেবাস হবে।

প্রভাষক শরীফুল ইসলাম ও কামরুল হাসান রুবেল জানান, সরকার গত মার্চ থেকে করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবের কারণে দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রেখেছেন। অঘোষিত লকডাউনে ঘরবন্দি হয়ে বেশিরভাগ শিক্ষার্থী অলস সময় পার করছে। তাদের শিক্ষা কার্যক্রম সচল রাখতে নিয়মিত অনলাইন পাঠদান চালু রাখা হয়েছে।

এ সময় তারা কলেজটি এমপিও ভুক্তির জন্য দাবি জানান।

এমএ মান্নান মানিক কলেজের অধ্যক্ষ মো. জসীম উদ্দীন জানান, সরকারের নির্দেশ মোতাবেক অনলাইন পাঠদান কার্যক্রম আমরা অব্যাহত রেখেছি। কিন্তু প্রতিষ্ঠানটি এমপিও ভুক্তি না হওয়ায় শিক্ষক-কর্মচারীদের ঠিক মতন বেতনভাতা দেয়া সম্ভব হচ্ছে না।

তিনি বলেন, এলাকার অসহায় দরিদ্র শিক্ষার্থীদের কথা বিবেচনা করে এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি এমপিও ভুক্তি করার জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও শিক্ষামন্ত্রী’র নিকট আকুল আবেদন জানাচ্ছি।

নারান্দী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. শফিকুল ইসলাম জানান, এলাকার কৃতীসন্তান শিল্পপতি এমএ মান্নান মানিক একজন সমাজসেবক ও দানবীর হিসেবে অনেক সুনাম রয়েছে। তিনি এলাকার মানুষদের জন্য মসজিদ, এতিমখানা নির্মাণসহ দরিদ্র ও অসচ্ছল মানুষদের সবসময় সাহায্য সহযোগিতা করে আসছেন।

তারই ধারাবাহিকতায় এলাকায় দরিদ্র ছেলেমেয়ের কোন উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান না থাকায় তিনি ‘এমএ মান্নান মানিক কলেজ’ প্রতিষ্ঠা করে এলাকায় শিক্ষার আলো ছড়িয়ে দিয়েছেন।

ইউপি চেয়ারম্যান মো. শফিকুল ইসলাম বলেন, এই প্রতিষ্ঠানটিতে বর্তমানে শিক্ষার্থীরা সম্পূর্ণ বিনামূল্যে লেখাপড়া করে আসছে। তাই আমি একজন জনপ্রতিনিধি হিসেবে কলেজটিকে এমপিও ভুক্তি করণের জন্য যথাযথ কর্তৃপক্ষকে অনুরোধ জানাচ্ছি।

এ ব্যাপারে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার এসএম সাইফুল আলম বলেন, সরকারের নির্দেশনা মোতাবেক এমএ মান্নান মানিক কলেজ নিয়মিত অনলাইন পাঠদান চালু করেছে। অনলাইনে পাঠদানের ফলে শিক্ষার্থীরা বাড়িতে বসেই পড়াশোনা করতে পারছে।

উল্লেখ্য, পাকুন্দিয়া উপজেলার নারান্দী ইউনিয়নের পোড়াবাড়িয়া গ্রামের বাসিন্দা শিল্পপতি এমএ মান্নান মানিক এলাকার দরিদ্র ছেলেমেয়ের কথা বিবেচনা করে ২০১৫ সালে সম্পূর্ণ ব্যক্তিগত উদ্যোগে ‘এমএ মান্নান মানিক কলেজ’ নামে একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠা করেন।

বর্তমানে কলেজটিতে বিজ্ঞান, ব্যবসায় শিক্ষা ও মানবিক বিভাগে প্রায় ৩০০ শিক্ষার্থী অধ্যয়নরত আছে। কলেজের অধ্যক্ষ ও শিক্ষার্থীদের বিষয় ভিত্তিক পড়াশুনার জন্য ১৫ জন প্রভাষক রয়েছেন। এছাড়া অফিসের জন্য ৫ জন কর্মচারীসহ মোট ২১ জন শিক্ষক-কর্মচারীর স্টাফ রয়েছেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর