কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ই-নথি কার্যক্রমে সারাদেশে প্রথম কিশোরগঞ্জ জেলা, এবার দেশসেরা উপজেলা ইটনা


 কিশোরগঞ্জ নিউজ রিপোর্ট | ১০ সেপ্টেম্বর ২০২০, বৃহস্পতিবার, ২:৫৮ | তথ্য প্রযুক্তি 


ই-নথি কার্যক্রমে বাংলাদেশের ৬৪টি জেলার মধ্যে প্রথম স্থান অধিকার করেছে কিশোরগঞ্জ জেলা। এছাড়া উপজেলা পর্যায়ে দেশের ৪৯১টি উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয় এবং ৪৭৫টি উপজেলা ভূমি অফিসের মধ্যে দুই বিভাগেই প্রথম স্থান অর্জন করেছে হাওরকন্যা খ্যাত কিশোরগঞ্জ জেলার ইটনা উপজেলা।

আইসিটি বিভাগের এটুআই এর আগস্ট ২০২০ মাসের ই-নথি কার্যক্রমের প্রকাশিত ফলাফলে এই তথ্য জানা গেছে।

উপজেলা পর্যায়ে এর আগে জুন ২০২০ এ জেলার অষ্টগ্রাম উপজেলা এবং জুলাই ২০২০ এ করিমগঞ্জ উপজেলা দেশসেরা হওয়ার কৃতিত্ব অর্জন করে।

প্রকাশিত ফলাফল অনুযায়ী, কিশোরগঞ্জ জেলা প্রশাসকের কার্যালয় থেকে ১ আগস্ট থেকে ৩১ আগস্ট পর্যন্ত সময়ে ই-নথি কার্যক্রমের অংশ হিসেবে ডাক গ্রহণ ও নিষ্পত্তি, স্বউদ্যোগে নোট সৃজন ও নিষ্পত্তি, ডাক থেকে নোট সৃজন ও নিষ্পত্তি, পত্রজারি এবং পত্রজারিতে নিষ্পত্তি এই সব কটি সূচকে সর্বোচ্চ সফলতা দেখায়। সেবা প্রদানে এই অভাবনীয় দক্ষতা ও কৃতিত্বের স্বীকৃতি হিসেবে ই-নথি কার্যক্রমে বাংলাদেশের ৬৪টি জেলার মধ্যে প্রথম স্থান অধিকার করে কিশোরগঞ্জ জেলা।

অন্যদিকে সফলভাবে ই-নথি কার্যক্রম সম্পাদনের মাধ্যমে দেশের ৪৯১টি উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ের মধ্যে দেশসেরা হওয়ার গৌরব অর্জন করেছে কিশোরগঞ্জ জেলার ইটনা উপজেলা।

কিশোরগঞ্জ জেলার অন্য উপজেলাগুলোর মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলা দ্বিতীয়, ভৈরব ৪র্থ, অষ্টগ্রাম ৭ম, নিকলী ১২তম, কটিয়াদী ১৪তম, করিমগঞ্জ ১৬তম, বাজিতপুর ১৯তম, কুলিয়ারচর ২১তম, হোসেনপুর ২৯তম, মিঠামইন ৩৮তম, পাকুন্দিয়া ৪৩তম এবং তাড়াইল ৫৬তম স্থান অর্জন করেছে।

এছাড়া ৪৭৫টি উপজেলা ভূমি অফিসের মধ্যেও ই-নথি কার্যক্রমে শ্রেষ্ঠত্ব অর্জন করে ঈর্ষণীয় সাফল্য দেখিয়েছে ইটনা উপজেলা।

কিশোরগঞ্জ জেলার অন্য উপজেলা ভূমি অফিসগুলোর মধ্যে অষ্টগ্রাম ২য়, নিকলী ৭ম, হোসেনপুর ৮ম, বাজিতপুর ১১তম, কুলিয়ারচর ৩৭তম, মিঠামইন ৪৫তম, ভৈরব ৫২তম, কিশোরগঞ্জ সদর ২৪০তম, তাড়াইল ২৪১তম, কটিয়াদী ২৪২তম, পাকুন্দিয়া ২৪৩তম এবং করিমগঞ্জ ২৪৪তম স্থান অর্জন করেছে।

কিশোরগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান কিশোরগঞ্জ নিউজকে জানান, ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে কিশোরগঞ্জ জেলার জেলা প্রশাসক মো. সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরীর নির্দেশনায় এই জেলায় অত্যন্ত সফলভাবে ই-নথি কার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে।

একসময় ই-নথি কার্যক্রমে এ ক্যাটাগরির ২৫টি জেলার মধ্যে কিশোরগঞ্জের অবস্থান ছিল তলানীতে, সেখান থেকে জেলা প্রশাসক মো. সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরীর ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় কিশোরগঞ্জ জেলা ক্রমশ অবস্থানের উত্তরণ ঘটিয়ে আজ সারাদেশের মধ্যে শীর্ষস্থান অর্জন করেছে।

এছাড়া বর্তমান করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে মানুষ যাতে সহজে তাদের সেবাটা পায়, এজন্যে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়সহ জেলার প্রতিটি উপজেলায় ই-নথি কার্যক্রম জোরদার করা হয়েছে।

তারই ফলস্বরূপ প্রায় প্রতি মাসে সারাদেশের মধ্যে কিশোরগঞ্জ জেলার কোন না কোন উপজেলা প্রথম স্থান অর্জন করার মতো চমকপ্রদ সাফল্য দেখিয়ে আসছে। এরই ধারাবাহিকতায় আগস্ট মাসের ফলাফলে ইটনা উপজেলা সারাদেশের উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয় এবং উপজেলা ভূমি অফিস এই দুই বিভাগে প্রথম হয়েছে।

কিশোরগঞ্জের জেলা প্রশাসক মো. সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরী কিশোরগঞ্জ নিউজকে বলেন, ‘দক্ষতার সাথে তথ্য ও প্রযুক্তির সঠিক ব্যবহারের মাধ্যমে কিশোরগঞ্জ জেলার সকল উপজেলায় অত্যন্ত জোরালোভাবে ই-নথি কার্যক্রম পরিচালিত হয়ে আসছে। এর মাধ্যমে সবাই খুব সহজে এবং কম সময়ের মধ্যে সেবা পাচ্ছেন এবং সরকারের ডিজিটাল বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার পথে আমরা ক্রমেই এগিয়ে যাচ্ছি।

এই প্রক্রিয়ার ভেতরে অত্যন্ত দক্ষতা ও সফলতার স্বাক্ষর রেখে ই-নথি কার্যক্রমে আমাদের কিশোরগঞ্জ জেলা সারাদেশের ৬৪টি জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের মধ্যে প্রথম স্থান অর্জন করেছে।

এছাড়া ৪৯১টি উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয় এবং ৪৭৫টি উপজেলা ভূমি অফিসের মধ্যে ইটনা উপজেলা সারাদেশে প্রথম স্থান অর্জন করার কৃতিত্ব দেখিয়েছে।

এ অর্জন নিঃসন্দেহে সংশ্লিষ্টদের আন্তরিকতা ও কর্মদক্ষতার মূল্যায়ন। এর মাধ্যমে গোটা জেলাবাসীও সম্মানিত হয়েছেন। এই অনন্য কৃতিত্ব আগামী দিনগুলোতে অনুপ্রেরণা হিসেবে কাজ করবে বলেও আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি।’




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর